৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ৩:৪৬ পূর্বাহ্ণ

UMo

২ চেয়ারম্যান এমপির সঙ্গে, একজন আমার সঙ্গে থাকায় সাসপেন্ড : তৈমূর


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ১২:৪৬ এএম, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার


২ চেয়ারম্যান এমপির সঙ্গে, একজন আমার সঙ্গে থাকায় সাসপেন্ড : তৈমূর

বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার খন্দকার বলেছেন, বিএনপি নারায়ণগঞ্জে শামীম ওসমান কিংবা আইভীর উপর ভর করে রাজনীতি করে না।

২২ জানুয়ারী সোমবার রাতে বেসরকারী টিভি চ্যানেল ইনডিপেনন্টে টিভিতে ‘আজকের বাংলাদেশ’ নামের টক শো অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সঙ্গে আলোচক ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি। সঞ্চালনায় ছিলেন খালেদ মুহিউদ্দিন।

বিএনপি নারায়ণগঞ্জে সুবিধের রাজনীতি করেন না কী না ? প্রশ্নের জবাবে তৈমূর বলেন, ১৬ জুনের বোমা হামলার ঘটনা একটি পৈশাচিক ঘটনা। ওই মামলায় আমাকে প্রধান আসামী করা হয়েছিল। ১৪ বছর তদন্তে আমাদের কোন সম্পৃক্ততা পায়নি।

সবশেষ হকার ইস্যুতে মেয়রের সঙ্গে এমপির সংঘর্ষের ঘটনায়ও আমাদের বিএনপিকে দায়ী করা হচ্ছে। কিন্তু এটা সত্য যে নারায়ণগঞ্জে বিএনপি শামীম ওসমান কিংবা আইভীর উপর ভর করে রাজনীতি করে না। সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপির কিছুই করার ছিল না।

তিনি বলেন, আমি প্রথম হকারদের পক্ষে কথা বলেছিলাম। বলেছিলাম পুনর্বাসনের আগে হকারকে পেটানো যাবে না। আর শামীম ওসমান যেভাবে পদক্ষেপ নিয়েছে সেটাও সঠিক না।

তিনি বলেন, শামীম ওসমান ও আইভীর ঘটনাটি তাদের নিজস্ব। কিন্তু এখানে উপলক্ষ হচ্ছে হকার। মেয়র ও এমপির প্রতিদ্বন্দ্বি কথাবার্তার কারণেই এসব ঘটনার সৃষ্টি।

তৈমূর বলেন, মাসুম আমাদের কোন লোক না। বিগত বিএনপি সরকারের আমলে জাতীয় পার্টির অফিসটি আমার কিছু লোক আমাদের পার্টির নাম ব্যবহার করে নাম পরিবর্তন করেছিল। তখন আমি ব্যাংকক থেকে এসে তালা ভেঙে নতুন করে তালা ভেঙে নাসিম ওসমানের (সাবেক এমপি) প্রতিনিধি মাসুমের কাছে চাবি হস্তান্তর করেছি। এটা জাতীয় পার্টির অফিস এটা জাতীয় পার্টির অফিসই থাকবে। এটা দখল হবে না। মাসুম তো তাদের (শামীম ওসমান) লোক ছিল।

তিনি অভিযোগ করেন, জেলায় ৩জন উপজেলা চেয়ারম্যান আছে। সোনারগাঁয়ের চেয়ারম্যান আমার সঙ্গে থাকায় বার বার সাসপেন্ড হয়। বাকি ২জন এমপিদের সঙ্গে তলে তলে সম্পর্ক রাখার কারণে বহাল তবিয়তে আছে।

আইভীর সঙ্গে দূরত্ব থাকবে না : শামীম ওসমান
নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমান বলেছেন, এক সময়ে আমার সঙ্গে আইভীর দূরত্ব থাকবে না সেটা আমি বিশ্বাস করি।

২২ জানুয়ারী সোমবার রাতে বেসরকারী টিভি চ্যানেল ইনডিপেনন্টে টিভিতে ‘আজকের বাংলাদেশ’ নামের টক শো অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। সঙ্গে আলোচক ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। সঞ্চালনায় ছিলেন খালেদ মুহিউদ্দিন।

আপনি আওয়ামী লীগের জন্য ক্ষতিকর না লাভজনক প্রশ্নের জবাবে শামীম ওসমান বলেন, আমি সঠিক পথে আছি। ২০০১ সালের ১৬ জুন সঠিক পথে থাকার কারণে দেশের ভয়াবহ বোমা হামলা হয়েছিল আমাকে হত্যার জন্য। এটার স্বীকারোক্তি আছে। ভারতে মোরসালিন ও মোত্তাকিম স্বীকারোক্তি দিয়েছে যে আমাকে হত্যার জন্য বোমা হয়েছিল। সেদিন আমার ২০জন মারা গেছে। কেন আমাকে মারার চেষ্টা হয়েছিল। নির্বাচনের পর নেত্রীর নির্দেশে সকলের নিরাপত্তায় আমাকে দেশ ছাড়তে হয়েছে। ওয়ান এলেভেলেনের আগে সবাই যখন রাজনীতি করছিল তখন আমি দেশে আসার পরেও আমাকে সেনাবাহিনী, র‌্যাব পুলিশ দিয়ে গ্রেফতার করতে চেষ্টা হয়েছিল অথচ আমার বিরুদ্ধে কোন মামলা জিডিও ছিল না। ১৫দিন হাজার হাজার মানুষ আমার বাড়ি প্রহরা দিয়েছিল।

১৬ জানুয়ারী মঙ্গলবার হকার ইস্যুতে সংঘর্ষের পরের ঘটনা প্রসঙ্গে শামীম ওসমান প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘সংঘর্ষের পর আমাকে দলের সেক্রেটারী ওবায়দুল কাদের ফোন করেছিল। তিনি আমাকে বলেছেন তুমি দ্রুত যাও ও পরিস্থিতি শান্ত করো। কারণ আমার উপর ওবায়দুল কাদেরের পূর্ণ বিশ্বাস ছিল। এক সময়ে আমি ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে রাজনীতি করতাম। তিনি আমাকে চিনে। আমি সেখানে গিয়ে দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এনেছিলাম এবং এনেছি। বিষয়টি আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয় হয়ে দাঁড়ায়।

‘হকার বসবে এটা আমার নির্দেশ’ ১৫ জানুয়ারী চাষাঢ়ায় হকার সমাবেশে শামীম ওসমানের বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি রাষ্ট্রের মালিক আমি জনগণ। সে কারণেই আমি নির্দেশ দিয়েছিলাম। আর আমি রাজনীতি করি গরীব মানুষের জন্য। যা বলেছি সঠিক বলেছি। এর আগে আমার নেত্রী শেখ হাসিনা একনেকের বৈঠকে বলেছেন, পুনর্বাসনের আগে কাউকে উচ্ছেদ করা হবে না। আর আমি সর্বদা বলেছি ফুটপাতে হকারদের বিপক্ষে আমি। কিন্তু আমি বলেছিলাম ২ মাস আগে নোটিশ দেন যাতে তাদের পুঁজি উদ্ধার করতে পারে।’

শামীম ওসমান প্রশ্ন তুলে বলেন, ‘মঙ্গলবার ঘটনার সময়ে তৈমূর আলম খন্দকারের ভাই কাউন্সিলর ছিল থাকতেই পারে। কিন্তু সরকার আলম যিনি যুবদলের মহানগরের যুগ্ম আহবায়ক সে কেন ছিল। আমার মেয়র তো নৌকা মার্কার মেয়র। তাঁর সঙ্গে কেন সরকার আলম, সিরাজ, সুমন আসলো।’

তিনি বলেন, ‘আইভীকে আমি দোষারোপ করছি না। আইভী কারো দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে। কারণ আইভী যখন প্রেস ক্লাবের দিকে আসতে চাচ্ছিলেন তখন কারা তাকে বাধা দিয়েছিল। আইভী ঘটনাস্থলে আসতে চায়নি। প্রখ্যাত রাজাকার আবু বকর সিদ্দিকের ছেলে মাসুম সাহেব সহ আরো কয়েকজন আইভীকে ঘটনাস্থলে টেনে নিয়ে গেছে।’

শামীম ওসমান চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, ‘প্রথম আলো ও ডেইলি স্টার আমার নেত্রী পড়ে না। ডেইলি স্টার সেনাবাহিনীর চাপে মিথ্যে তথ্য দিয়েছি। যারা আমাকে দেখতে পারছে না, আমার দল ও আমার নেত্রীকে দেখতে পারছে না তারা আইভীর জন্য সম্পাদকীয় লিখছে মিথ্যে তথ্য দিয়ে। যদি আমার কথা ভুল হয় তাহলে যে বিচার করবেন মেনে নিব, সংসদ সদস্য থেকে পদত্যাগ করবো, রাজনীতি ছেড়ে দিব।’

‘গত নির্বাচনে কিভাবে উলটপালট করেছি, কিভাবে আইভীকে পাশ করিয়েছি তা সময় হলে বলবো’ প্রসঙ্গে শামীম ওসমান বলেন, আমি আইভীর রোগমুক্তি কামনা করছি। আমি বিশ্বাস করি এক সময়ে এ দূরত্ব থাকবে না। যখন বুঝাতে পারবো বাশের কেল্লা তার পক্ষে লেখে তখন সে বুঝতে পারবে। আমি এক সময়ে কথা বলবো।’

পার্টির কর্মীরা আমার না তারা আপার (শেখ হাসিনা) কর্মী। কিন্তু একটা বেইজের উপর কর্মী হয়। আমাকে ৭ বছর ধরে গালাগাল করেছে। আমাকে খুনী বলছে আমার মৃত বাবাকে নিয়ে কথা বলছে। এতে আমি কিছু মনে করি নাই কারণ আমি দলকে ভালোবাসি। আমার কোন চাওয়া পাওয়া নাই। আমাকে যদি নেত্রী বলে কালকে থেকে রাজনীতি করবে না করবো না। আই ডোন্ট কেয়ার। আমি বিশ্বাস করি রাজনীতি আল্লাহকে খুশী করতে।’

তিনি বলেন, নির্বাচনের আগে আমাকে নেত্রী বলেছেন নির্বাচন করতে। তখন আমি করেছি। নির্বাচনের আগে কিভাবে বিএনপির ৫জনকে ইনঅ্যাকটিভ করেছি, কার পায়ে ধরেছি সেসব অনেক কথা আছে।

(প্রায় ১ঘণ্টার টক শো হতে উল্লেখযোগ্য অংশের বক্তব্যের সারাংশ নিয়ে প্রতিবেদনটি তৈরি। ফলে বক্তব্যের এক লাইনের সঙ্গে অপর লাইনের মিল নাও থাকতে পারে। নিচে ভিডিওটি দেওয়া হলো যেখানে পুরো টক শোটি রয়েছে।)

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সাক্ষাৎকার -এর সর্বশেষ