৩ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, রবিবার ১৮ নভেম্বর ২০১৮ , ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

rabbhaban

সমিতির ভবনে বাধায় প্রশ্নবিদ্ধ বিএনপি : জুয়েল ও মোহসীন


স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:৩৫ পিএম, ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ বুধবার


সমিতির ভবনে বাধায় প্রশ্নবিদ্ধ বিএনপি : জুয়েল ও মোহসীন

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির প্রস্তাবিত বহুতল বার ভবন নির্মাণকেন্দ্র করে সমিতির বিশেষ সাধারণ সভায় যে বিল পাশ হয়েছে সেটার উপর ভিত্তি করেই কাজ শুরু হবে জানিয়েছেন সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল ও সেক্রেটারী মোহসীন মিয়া। তাঁরা নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেছেন, ‘বিল পাশ হওয়ার পর বিএনপি কিংবা অন্য আইনজীবীদের গুটিকয়েক অংশ কী করলো কী বক্তব্য দিল সেটা গৌন। বরং মুখ্য হলো ১২শ আইনজীবীর স্বার্থ রক্ষায় ভবন করা। আর এ ক্ষেত্রে কয়েকজন ভবনের বিরোধীতা করে নিজেরাই সকল আইনজীবীদের কাছে প্রশ্নবিদ্ধ হতে চলেছেন।’

৫ সেপ্টেম্বর বুধবার নিউজ নারায়ণগঞ্জ প্রতিবদেককে নিজেদের দৃঢ় অবস্থানের কথা ব্যক্ত করেন জুয়েল ও মোহসীন যে দুইজন সহ সমিতির ১৭ সদস্যের কমিটিতে আওয়ামী লীগের ৬জন রয়েছে।

এর আগের দিন ৪ সেপ্টেম্বর বিএনপিপন্থী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে সমিতির বহুতল ভবন নিয়ে সভায় সমিতির সভাপতির কড়া সমালোচনা সহ তাঁকে স্বৈরাচার হিসেবেও আখ্যায়িত করা হয়। ওই সভাতে সমিতির সহ সভাপতি সহ ১১জন উপস্থিত ছিলেন। যদিও এর আগে ২৮ আগস্ট সমিতির বিশেষ সাধারণ সভাতে ওই ১১জন উপস্থিত থাকলেও সেদিন কোন কথা বলেনি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জকে হাসান ফেরদৌস জুয়েল বলেন, ‘তারা (বিএনপি ও ১১ জন) যেসব প্রশ্ন করেছে তা ইজিএমে প্রথমেই ক্লিয়ার করা হয়েছে। আমার কথায় সন্তুষ্ট হয়েই সকল আইনজীবী পাশ পাশ বলে সমর্থন দিয়েছে। গুটি কয়েক আইনজীবী রাজনৈতিক স্বার্থে বিতর্ক তুলছেন এখানে। একজন ডোনারের কাছে থেকে টাকা চাইলেই আনা যায়, কিন্তু সেটা সীমিত। যদি একবারে না চেয়ে কয়েকবারে বলে কয়ে আনা যায় তাহলে লাভ বেশী হবে।’

তিনি আরো বলেন, আমি একবার নির্দিষ্ট পরিমাণ টাকা চেয়ে একটি ভুল সিদ্ধান্ত নিতে পারিনা। আর বার বার যেই কথা বলা হচ্ছে পেছন থেকে কাজ শুরুর কথা। সেখানে পাইলিংয়ে কাজ শুরু করলেই ভবন কাঁপবে এবং ভেঙে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নারী আইনজীবী ও শৌচাগার আমরা জেলা জজ এর কাছে কয়েক মাসের জন্য রুমের প্রার্থনা করবো। আমাদের বিশ্বাস জেলা জজ ১২শ আইনজীবীদের সুবিধার্থে সে আমাদের সুযোগ করে দিবেন।

একই প্রসঙ্গে জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. মোহসীন মিয়া নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, উনারা (জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের নেতারা) আসলে আইনজীবীদের উন্নয়ন হোক তা চান না। তাদের দলীয় কর্মীরাও আইনজীবী ভবন চায়। কিন্তু যারা এখন এই ভবনের সুবিধা ভোগ করছেন তারাই একমাত্র নতুন ভবন হোক তা চান না। এছাড়া রাজনৈতিক প্রতিহিংসা কাজ করছে ভবন নির্মাণ নিয়ে। মুখে উন্নয়নের কথা বলে বাইরে বিতর্ক তৈরী করছে। সাধারণ আইনজীবীরা তাদের ভূমিকা দেখেছে এবং তাদের কর্মকান্ডকে মনে রাখবে। যেখানে ইজিএমে সকল আইনজীবী আমাদের সমর্থন দিয়েছে সেখানে তাদের গুটি কয়েকজনের বক্তব্য নতুন ভবন তৈরীতে কোন ফ্যাক্ট নয়।

তবে আইনজীবীদের অধিকাংশ মনে করছেন, শুধুমাত্র বিরোধীতার জন্যই সমিতির সভাপতির বিরুদ্ধে কাজ করছেন বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা। তার এর পেছনে আওয়ামী লীগেরও কেউ কেউ পরোক্ষভাবে ইন্ধন যোগাচ্ছে। তারা মূলত চাচ্ছে সমিতির বর্তমান অর্জনকে ম্লান করতে।

মঙ্গলবার ৪ সেপ্টেম্বর জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের বিশেষ সভায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তারা। আর এতে উপস্থিত ছিলেন ফোরামের বিবাদমান দুটি গ্রুপের নেতারাও।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির আপ্যায়ন সম্পাদক সুমন মিয়া প্রেরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সভায় সকল আইনজীবীগন এক স্বরে প্রতিবাদ করে বলেন বর্তমানে আইনজীবী সমিতির সভাপতি একজন স্বৈরাচার, গণতন্ত্র হরনকারী, একমতে বিশ্বাসী, একক বক্তব্য ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করায় এই সভা থেকে তাকে ধিক্কার ও তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করা হয়।

সভার সিদ্ধান্ত সমূহ নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতি বহুতল ভবনের উন্নয়নে ঐক্যমত পোষণ করেন। বর্তমান সভাপতির চতুরতার বক্তব্য নয়, বাস্তবে দুই আদালত এক সাথে রাখার দৃশ্যমান প্রদক্ষেপ দেখাতে হবে। বহুতল ভবনে আদৌ প্রান্ত খরচের বাজেট প্রকাশ্য ঘোষনা করতে হবে। ফান্ডের উৎস ও ফান্ড দৃশ্যমান করতে হবে। নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির ৪র্থ তলা ভবনের সর্ব দক্ষিণ দিকে থেকে টিনসেড ভেঙ্গে বহুতল ভবনের কাজ শুরু করতে হবে। আইনজীবী সমিতি সদস্যদের বিকল্প সবার ব্যবস্থা করতে হবে। আইনজীবী সমিতির জমাকৃত ফান্ড কোন অবস্থাতেই উন্নয়নের নামে ব্যবহার করা যাবে না। অবিলম্বে কালিরবাজারস্থ পুরাতন বার ভবনের স্থলে নিজস্ব জায়গায় বহুতল ভবন করতে হবে।

আইনজীবী সমিতির ১৮ আগস্ট বহুতল ভবন নির্মাণের জন্য সয়েল টেস্টের (মাটি পরীক্ষা) মাধ্যমে এর কার্যক্রমের প্রাথমিক যাত্রা শুরু হয়। এরপরেই বহুতল ভবনের পক্ষে-বিপক্ষে কথা উঠতে থাকে। বাড়তে থাকে নানা গুঞ্জন। তবে সকল তথ্য উপাত্ত নিয়ে এ সংক্রান্ত দ্বিধাদ্বন্ধ দূর করতে ২৮ আগস্ট বিশেষ সভার আয়োজন করে জেলা আইনজীবী সমিতি। এসময় সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল আইনজীবীদের সকল সমস্যা তুলে ধরে নতুন ভবন তৈরীর জন্য আইনজীবীদের মত জানতে চাইলে অধিকাংশ আইনজীবী পাশ বলে সম্মতি প্রদান করে।

সমিতির বিশেষ সাধারণ সভায় আইনজীবী সমিতির সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েল বলেন, ৭ তলা প্রস্তাবিত ভবনটির নিচতলায় প্রায় ৬ হাজার স্কয়ার ফিট জায়গা হবে। বর্তমানে পুরো ভবনটি রয়েছে সাড়ে ৫ হাজার স্কয়ার ফিটের। নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতিকে প্রায় ১২শ এর অধিক আইনজীবী রয়েছেন। কোর্টে প্র্যাকটিসরত জুনিয়র আছে প্রায় ৭শ। আগামী ৩ বছরে পাশ করে আসা আইনজীবীরা কোর্টে প্রবেশ করলে অন্তত ১৭শ আইনজীবী কোর্টে বিচরণ করবে। পুরাতন এই ভবন নির্মাণ করা হয়েছিল মাত্র ৩ থেকে ৪শ জন আইনজীবীদের বসার ব্যবস্থার জন্য। দ্রুত এর বিকল্প চিন্তা না করা হলে আইনজীবীদের অমানবিক পরিস্থিতির শিকার হতে হবে।

তিনি প্রস্তাবিত নতুন ভবনের সুবিধা উপস্থাপন করে বলেন, ভবনে ৩টি হলরুম স্থাপন করা হবে। এছাড়া চেম্বার করা হবে দুই শতাধিক কিংবা তার ও বেশী। পাশাপাশি লাইব্রেরী, জুনিয়র হলরুম, মুহুরীদের হলরুম, নারী আইনজীবীদের ব্যক্তিগত স্থান, ক্যান্টিন ও প্রয়োজনীয় নথিপত্রের দোকান।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সাক্ষাৎকার -এর সর্বশেষ