৭ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ , ৮:০৩ পূর্বাহ্ণ

UMo

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে হাতুড়ি মার্কার প্রার্থী হবো : হিমাংশু


|| নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০২:৩৯ পিএম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার


নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে হাতুড়ি মার্কার প্রার্থী হবো : হিমাংশু

পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে আসছে ডিসেম্বরের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে উত্তপ্ত হতে শুরু করেছে নারায়ণগঞ্জের পরিবেশ। নিজ নিজ পদ্ধতিতে প্রস্তুতি নিচ্ছে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক দলগুলো। নির্বাচন ও জেলার বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে নারায়ণগঞ্জের কিছু প্রবীন নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বলেছে নিউজ নারায়ণগঞ্জের প্রতিবেদক মাহমুদুন নবী। প্রথম পর্বে আজ থাকছে ১৪ দলের অন্যতম শরীক দল বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক হিমাংশু সাহার সাথে আলাপচারিতার অংশবিশেষ।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে ওয়ার্কার্স পার্টির পদার্পণ ঘটে কোন সময়টিতে?
হিমাংশু সাহা : আমরা ওয়ার্কার্স পার্টি মূলত ভারতীয় উপমহাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির উত্তরসূরি হিসেবে সেই পাকিস্তান পিরিয়ড থেকেই এখানে রয়েছি। এরপর কমিউনিস্টদের মধ্যে চীন ও রাশিয়া নিয়ে বিভাজনের সৃষ্টি হলে আমরা মূলত মাওবাদী পথটা বেছে নেই। তবে সাংগঠনিক ভাবে পাকিস্তানের সময় থেকেই এখানে আমাদের শক্ত অবস্থান আছে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : সরকারি দলের সাথে জোটে থাকার ভালো দিক বা মন্দ দিক নিয়ে কী বলতে চান?
হিমাংশু সাহা : প্রথমে বলতে হয় আমরা কেনো সরকারি দলের সাথে জোটে এসেছি। মূলত ২০০৫ সালে যখন বাংলা ভাইয়ের উত্থান ঘটে তখন উগ্র জঙ্গিবাদকে রুখে দেয়ার লক্ষ্যেই আমরা ১৪ দলীয় জোট তৈরি করি। সেখানে আমাদের আরও কিছু লক্ষ্য ছিলো যার মধ্যে একাত্তরের ঘাতকদের বিচার নিশ্চিত করা ছাড়াও আরও কিছু কিছু বিষয় ছিলো। আমাদের সে লক্ষ্যগুলোকে সামনে নিয়েই আমরা পথ চলছি। এখানে ভালো বা মন্দ দিক বলতে কিছু নেই। তবে আমাদের দল স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্তকে সব সময়ই স্থানীয় রাজনীতির জন্য প্রাধান্য দিয়ে আসে। আমরা পূর্বের অনেক নির্বাচনেই জোটের সিদ্ধান্তের বাইরে থেকে নিজেদের সিদ্ধান্তে অংশগ্রহণ করেছি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের জনপ্রতিনিধিদের মাঝে প্রায় সময়ই বিরোধ দৃশ্যমান হয়ে উঠে। যারা প্রত্যেকেই আপনাদের জোটের অংশ। জোট থেকে এই বিরোধ দমনে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বা দমনের চেষ্টা হয়েছিলো?
হিমাংশু সাহা : নারায়ণগঞ্জে ১৪ দলীয় জোটের কোনো অবস্থান নেই। এখানে জোটের সমন্বয়ক মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। আমি ব্যাক্তিগতভাবে তাকে অনেকবার বলেছি জোটের মিটিং কিনবা বর্ধিত সভার আয়োজন করার জন্যে কিন্তু তার কোন ধরণের রেসপন্স পাইনি। এখানে তো জোটের কোনো সাংগঠনিক কাঠামোই নেই। যা আছে তা অনেকটা পুরানো ধারায়। সেটা নিয়ে এগিয়ে যাওয়া অসম্ভব।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : জেলায় আপনাদের রাজনৈতিক অবস্থান সম্পর্কে কিছু বলুন...
হিমাংশু সাহা : আমরা জোটে রয়েছি। তবে আমাদের দলকে সম্পূর্ণ বিলুপ্ত করে নয়। আমাদের দল সরকারের সাথে জোটগতভাবে সঠিক কাজগুলোতে যেমন তাদে সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছে। তেমনি সরকারের কোনো কাজ যদি মানুষের দুর্ভোগ তৈরি করে তবে আমরা সে কাজে বাধাও দিয়ে যাচ্ছি। আমাদের দলের কাছে স্থানীয় রাজনীতির জন্য স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত। প্রথম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জোটের প্রার্থী ছিলেন শামীম ওসমান সাহেব। কিন্তু আমরা তার পক্ষে সে নির্বাচনে কাজ করিনি। বরং স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্তে সেলিনা হায়াৎ আইভীর সাথেই কাজ করেছি। আবার উপ নির্বাচনেও জোটের প্রার্থী সেলিম ওসমানের বিপরীতে আমরা এসএম আকরামের হয়ে প্রচারণায় অংশ নিয়েছি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : ইদানিং সময়ে বিএনপি সহ বিরোধী দলীয় নেতৃবৃন্দের নামে বেশ কিছু ভূতুরে মামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠছে। এটা নির্বাচনে কতোটা ছায়া ফেলতে পারে?
হিমাংশু সাহা : বিএনপি এবার নির্বাচন করবে। সেটা তার অস্তিত্ব রক্ষার জন্যেই করবে। জেলে থেকেও নির্বাচনে অংশ নেয়া সম্ভব যে পর্যন্ত না তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হচ্ছে। তবে ভুতুরে মামলা এমন মন্তব্যের বিপরীতে আমি কিছু বলতে ইচ্ছুক নই।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও কী আপনারা জোটগত ভাবেই নির্বাচনে যাচ্ছেন?
হিমাংশু সাহা : অবশ্যই। এখনও জোট ভাঙার কোনো প্রশ্নই আসেনি। তবে নারায়ণগঞ্জের পরিস্থিতিতে  জোট থেকে নির্বাচনে দাঁড়ানোর মতো ক্লিন ইমেজের কেউ আছে বলে আমরা নারায়ণগঞ্জের নেতৃবৃন্দ মনে করি না। তাই আসন্ন নির্বাচনে ৪ আসনে আমরা নিজেদের দলের পরিচয়ে, হাতুড়ি মার্কায় নির্বাচন করবো বলে ঠিক করেছি। সেক্ষেত্রে আমাদের দল থেকে সম্পূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। জোটগত ভাবে যদি শেষ সময়ে সিদ্ধান্তের পরিবর্তন না করা হয় তবে ৪ আসনে আমাদের নিজেদের প্রার্থী চূড়ান্ত।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : সেক্ষেত্রে কাকে প্রার্থী করা হচ্ছে হাতুড়ি মার্কায়?
হিমাংশু সাহা: শেষ সময়ে সিদ্ধান্তের কোনো পরিবর্তন না হলে আমি নিজেই জেলার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে হাতুড়ি মার্কায় প্রার্থী হবো।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ: ২০১৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে সংগঠিত নির্বাচনের মূল্যায়নে কিছু বলুন...
হিমাংশু সাহা : নির্বাচনের মূল্যায়নে বলতে হয় নারায়ণগঞ্জে অনুষ্ঠিত প্রতিটি নির্বাচনই সুষ্ট হয়েছে। তবে ক্ষেত্র বিশেষে যে বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটেনি তা বলবো না। কিছু স্থানে অবশ্যই কেন্দ্র দখলের চেষ্টা চলেছে যা উপ নির্বাচনের সময় এক পুলিশ কর্মকর্তাও গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : এবারের নির্বাচনে আপনাদের কৌশল কেমন হবে?
হিমাংশু সাহা : আমরা নির্বাচনমুখী দল সে হিসেবেই নির্বাচনে যাচ্ছি। আমাদের ক্ষমতাদখলের কোনো উদ্দেশ্য নেই এখানে। আমরা মূলত জনগণের সামনে নিজেদের বার্তা পৌছে দেয়ার কৌশল হিসেবে নির্বাচনকে কাজে লাগাতে চাই।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : এবারের নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের ভোটারদের কেমন উপস্থিতি থাকবে বলে আশা করেন?
হিমাংশু সাহা : এবারের নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জের অন্তত ৩০ শতাংশের বেশী ভোটার অনুপস্থিত থাকবে। যারা ভোটকেন্দ্রে যাবেন তারাও থাকবে নীরব। বাকিটা সময়ের সাথে পরিবর্তনশীল।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।
হিমাংশু সাহা : আপনাকেও ধন্যবাদ।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সাক্ষাৎকার -এর সর্বশেষ