৪ কার্তিক ১৪২৫, শনিবার ২০ অক্টোবর ২০১৮ , ২:৫০ পূর্বাহ্ণ

UMo

সাক্ষাৎকার

আমি রূপগঞ্জে প্রার্থী হবো : আবদুল হাই (ভিডিও)


স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:০৮ পিএম, ৬ অক্টোবর ২০১৮ শনিবার


আমি রূপগঞ্জে প্রার্থী হবো : আবদুল হাই (ভিডিও)

আবদুল হাই নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি। ছিলেন জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক। তৃণমূল থেকে উঠে আসা এ রাজনীতিক বিভিন্ন সময়ে দায়িত্ব পালন করেছেন ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে। জেলার আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছেও তিনি সর্বজন শ্রদ্ধেয়। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনি এখন রূপগঞ্জ এলাকাতে নিয়মিত গণসংযোগ করছেন। নিউজ নারায়ণগঞ্জকে দেওয়া সাম্প্রতিক প্রেক্ষাপটে তিনি জানিয়েছেন দল, নির্বাচন, সাংগঠনিক পরিস্থিতি ও সামনের মনোনয়ন নিয়েও। সেই ফাঁকে এটাও নিশ্চিত করেছেন আগামী তিনি হতে যাচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ-১ তথা রূপগঞ্জ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী। স্টাফ করেসপনডেন্ট সাবিত আল হাসান ৬ অক্টোবর শনিবার নিউজ নারায়ণগঞ্জে ফেসবুক লাইভে  গ্রহণ করেছেন ওই সাক্ষাৎকারটি। সেখান থেকে নেওয়া চম্বুক অংশ নিচে তুলে ধরা হলো।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : দীর্ঘ রাজনৈতিক ক্যারিয়ারে নিজেকে কতটুকু সফল মনে করছেন ?
আবদুল হাই : আমি নিজেকে দলের জন্য স্বার্থক মনে করি। তবে একটিই দুঃখ আমরা আমাদের জাতির জনক কে ধরে রাখতে পারিনি। ৭৫ এর নির্মম হত্যাকান্ডে আমরা হারিয়েছি আমাদের স্বাধীনতার ঘোষককে। যেহেতু সেনাবাহিনীর একটি বিপথগামী অংশ এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছিল। সেহেতু এটি আমাদের একটি জাতিগত ব্যর্থতা এবং এর দায় আমাদের উপরেই বর্তায়। আমরা এমন একজন মহামানব এমন একজন পুরুষকে আমরা হারিয়েছি যা আগামী কয়েকশ বছরে আমাদের মাঝে আসবে কিনা তা সন্দেহ প্রকাশ করছি। এরপর ১৯৮১ সালে দলের দুঃসময়ে আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দলীয় ঐক্যের স্বার্থে তাকে আওয়ামীলীগের সভানেত্রী করা হয়। এই আওয়ামীলীগ করার কারণে শেখ হাসিনাকে বহু আঘাত প্রতিঘাত সহ্য করতে হয়েছে। একাধিকবার মৃত্যুর মুখোমুখি থেকে ফিরে এসেছে তিনি। নেত্রী আমাকে জেলা পরিষদের প্রশাসকের দায়িত্ব দিয়েছিলেন। তার এই আস্থার জায়গার সৎ ব্যবহার করে দীর্ঘ ৫ বছর নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করেছি যাতে করে আমার কাজ নিয়ে কেউ প্রশ্ন তুলতে না পারে। এরপর ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবর তিনি আমাকে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব দেন। সুতরাং আমি নিজেকে সফল মনে করছি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : এত সফলতার মাঝে কোন ব্যর্থতা আছে বলে মনে করেন কি ?
আবদুল হাই : ব্যর্থতা বলতে একটাই কথা চলে আসে সেটা হচ্ছে ৭৫ এ বঙ্গবন্ধুকে হারানো। এটাই আমাদের ব্যর্থতা। এছাড়া আওয়ামীলীগের দীর্ঘ পথচলায় কোন ভুল সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে মনে হয় না।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সার্বিক অবস্থা কিরূপ ?
আবদুল হাই : নির্বাচন নিয়ে আমরা মোটামুটি প্রস্তুত আছি। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রায়ই আমাকে নির্দেশনা পাঠান। আমরা তাদের পরামর্শ মোতাবেক কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গঠন করে দেয়া সেই কাজটি আমরা করে দিয়েছি। এটি একটি বিরাট দায়িত্ব পূর্ণ কাজ। সেখানে সদস্যদের যাচাই বাছাই করে তালিকা তৈরী করেছি যাতে আমরা কেন্দ্রকে জানাতে পারি এতজন সদস্য আমরা করেছি। এটি একটি বিশাল দল, এটা কোন জাসদ,বাসদ বা ওয়ার্কাস পার্টির মত দল নয়।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : বর্তমানে নারায়ণগঞ্জ ৫ আসনে নৌকার দাবিতে বেশ কয়েকটি মুখ দেখা গিয়েছিল, ক্রমান্বয়ে তা ক্ষীণ হয়ে আসার কারণ কি ?
আবদুল হাই : কথাটি পরিপূর্ণ সত্য নয়। ২০১৭ সালের মার্চে আমাদের মাননীয় কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী ও ব্যারিস্টার নওফেল তাদের উপস্থিতিতে আমি বলেছিলাম যেহেতু নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের জন্মস্থান সুতরাং ৫টি আসনেই নৌকা প্রতীক দেয়া হোক। আমরা আশা করব আমাদের দাবী আপনারা প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌছে দিবে। এটি আমাদের আবেদন নেত্রীর কাছে। এখন যেহেতু জোট আছে সেক্ষেত্রে জোটের হিসেবে কিভাবে আসন বন্টন করবেন তা নেত্রীর নিজস্ব ব্যাপার। তবে দলের কর্মী হিসেবে আমরা নৌকা চাইতেই পারি। আমার ঘোষণার পরেই জেলার সেক্রেটারি, মহানগরের প্রেসিডেন্ট সেক্রেটারি সহ একাধিক মুখ এই দাবী তুলেছে। সেদিক থেকে মনে করি আমাদের দাবী যৌক্তিক এবং সে কারনেই সবাই একমত হয়েছেন। আমরা সেই দাবী থেকে কেউ সরেনি।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : ৬টি শূন্য পদ নিয়ে যে বাগযুদ্ধ হয়েছিল মেয়রের সাথে, সেটির ফলে বর্তমানে দূরত্ব রয়েছে কি?
আবদুল হাই : এখন আর দ্বৈরথ নেই। অচিরেই সেগুলো সবার সম্মতি নিয়ে পূরণ করা হবে।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : একাধিক প্রার্থীর ফলে বিভেদের শঙ্কা আছে কি ?
আবদুল হাই : আমি তা মনে করি না, এক এলাকায় একাধিক যোগ্য প্রার্থী থাকতেই পারে। কিন্তু যখন মনোনায়ন ডিক্লেয়ার হয়ে যাবে তখন তার পক্ষেই কাজ করতে হবে। নৌকা ভাগ করা যাবে না। দলের সাধারণ সম্পাদক ও বলেছেন, বিদ্রোহী প্রার্থী হবে তাদের বহিস্কার করা হবে। আমরা এই ঘোষণার সাথে একমত।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জে পৃথক গ্রুপের আশ্রয়ে থেকে যারা নমিনেশন বাগিয়ে নিতে চাচ্ছে সে সম্পর্কে আপনার মত কি?
আবদুল হাই : বলয় কোন ফ্যাক্টর নয়। আজকে পত্রিকায় এসেছে যে শোডাউন, মিছিল মিটিং ও গাছে প্লেকার্ড ফেস্টুন লাগিয়ে মনোনায়ন পাওয়া যাবে না। তারা বিভিন্ন সংস্থার রিপোর্ট হাতে নিয়ে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা, মানুষের কাছে জনপ্রিয়তা জড়িপ করে যোগ্য ব্যাক্তিকেই মনোনায়ন দিবেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : আপনার নির্বাচনী আসন রূপগঞ্জ নিয়ে আপনার ভবিষ্যৎ চিন্তা কি?
আবদুল হাই : রূপগঞ্জবাসীর কাছে আমার মেসেজ হলো আগামী সংসদ নির্বাচনে আমি রূপগঞ্জ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী। সে হিসেবে আমি গণসংযোগ করে যাচ্ছি। আমার সাথে উপজেলার সাধারণ সম্পাদক সহ উপজেলার চেয়ারম্যানরা রয়েছেন। তাদের নিয়ে নিয়মিত গণসংযোগ করে যাচ্ছি। যে কয়টি শর্ত দেয়া হয়েছে আশা করি তার একটিতেও আমাকে মাইনাস করার সুযোগ এই। আশা করি সেই বিবেচনায় নেত্রী আমাকে মনোনায়ন দিবেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ : আপনাকে ধন্যবাদ।
আবদুল হাই : আপনাকে ধন্যবাদ।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সাক্ষাৎকার -এর সর্বশেষ