২৯ কার্তিক ১৪২৫, মঙ্গলবার ১৩ নভেম্বর ২০১৮ , ১:৪০ অপরাহ্ণ

UMo

সংলাপ নিয়ে যা বললেন নারায়ণগঞ্জের বিএনপি নেতারা


সাবিত আল হাসান, স্টাফ করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ

প্রকাশিত : ০৯:০৩ পিএম, ২ নভেম্বর ২০১৮ শুক্রবার


সংলাপ নিয়ে যা বললেন নারায়ণগঞ্জের বিএনপি নেতারা

দীর্ঘদিনের আকাংখিত সংলাপ নিয়ে আশার আলো দেখলেও সবশেষে তা গুড়েবালিতে পরিণত হয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীদের কাছে। ১ নভেম্বর গণভবনে টানা ৩ ঘণ্টার আলোচনায় বের হয়নি আশানুরূপ ফলাফল। ঐক্যফ্রন্টের অধিকাংশ দাবী গুলোকে আদালতের ব্যাপার ও সংবিধান সম্মত নয় বলে জানিয়েছে ১৪ দল। পুরো সংলাপের ফলাফলে সন্তুষ্ট হতে পারেনি জেলার বিএনপির নেতৃবৃন্দও। এ নিয়ে হতাশা বিরাজ করছে জেলার বিএনপির মনোনায়ন প্রত্যাশীদের মাঝেও। বড় কোন ফল না পাওয়ায় নিজেদের প্রচার প্রচারণা ও নির্বাচনের ফলাফল নিয়ে সন্দিহান রয়েই গেছে।

সংলাপের ফলাফল সম্পর্কে কেউ কেউ অগ্রিম ভবিষ্যৎ বানী করেছেন আগেই। এতকিছুর মাঝেও স্বাভাবিক উপায়ে আবারো রাজনীতির মাঠে নামতে চাচ্ছিলেন সকলেই। কিন্তু বিএনপি মহাসচিবের অসন্তোষ প্রকাশ ও ড. কামালের আশাবাদ নিয়ে বির্তক থাকায় সেই পূর্বের অবস্থাতেই ফিরে যাচ্ছে তারা। পুরো ব্যপারটিকে আওয়ামীলীগের পুর্ব পরিকল্পিত ও লোকদেখানো সংলাপ বলে দাবী করছেন জেলা বিএনপির অধিকাংশ নেতৃবৃন্দ।

এ ব্যাপারে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, পুরো জাতি এই সংলাপের মাধ্যমে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা চেয়েছিল। কিন্তু তারা তাদের পুরানো সংবিধান আর আদালতের অজুহাত সামনে এনে এড়িয়ে গেছেন। আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সংবিধান পরিবর্তন সম্ভব ছিল। কিন্তু তাদের আদৌ কোন সদিচ্ছা নেই। পুরো ব্যাপারটি ছিল আশ্বাস আর সময় ক্ষেপণ।

নারায়ণগঞ্জ জেলা যুবদলের সভাপতি শহিদুল আলম টিটু নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, আমরা এই সংলাপের ব্যাপারে আমাদের মহাসচিবের কথা ধরেই বলতে চাই যে আমরা হতাশ। আমাদের যেই কাংখিত চাওয়া ছিল তার কোনটিই পূরণ হয়নি। বরং তারা তাদের অবস্থান ঠিক রেখে লোক দেখানো সংলাপ চালিয়ে গেছে। আমরা মনে করি এসব আলোচনা আমাদের কোন সুরাহা দিতে পারবে না। আন্দোলনের মাধ্যমেই দাবী আদায় করে নিতে হবে এবং তার জন্য আমরা সদা প্রস্তুত।

টিটুর সুরেই কথা বলেন মহানগর যুবদলের সভাপতি ও ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। তিনি বলেন, যত সংলাপই হোক উনি (প্রধানমন্ত্রী) তার গদি ছাড়বে বলে মনে হয় না। সংলাপের মাধ্যমে যে আদৌ কোন সমাধান আসবে না তা আমরা আগেই ধারণা করেছিলাম। ড. কামাল পজেটিভ ইঙ্গিত দিয়েছেন সংলাপ নিয়ে এই কথা নিয়েও আমাদের সন্দেহ রয়েছে। আমরা অনেক ভিডিও ও নিউজ মিলিয়ে জেনেছি তিনি এমন কোন কথা বলেননি। আমরা কোন প্রকার সহিংসতা ছাড়াই আলোচনায় বিশ্বাসী তার প্রমানের জন্যেই এই সংলাপ। নেত্রীকে মুক্ত করার জন্য আন্দোলনের বিকল্প নেই। হাতে সময়ও খুবই অল্প সমাধানের জন্য। নতুন করে আলোচনা কোন সমাধান দিবে না।

জেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, সরকারের কোন কথা বিশ্বাসযোগ্য নয়। তারা মুখে বলে একটা করে আরেকটা। আজকেও তাদের নিয়ন্ত্রিত বাহিনী গ্রেফতার চালিয়েছে। তাহলে কি করে তাদের সংলাপের কথা বিশ্বাস করবে মানুষ? পুরো সংলাপটি ছিল বিচার মানি তালগাছ আমার। যদি আবারো সংলাপের আহ্বান করে তবে আমি মনে করি বিএনপি সেই সংলাপ বর্জন করবে।

মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি শাহেদ আহমেদ খানিকটা ভিন্ন সুরে নিউজ নারায়ণগঞ্জকে জানান, আমরা সন্তুষ্ট নই তবে এখনও আশা রাখছি সরকারের বোধোদয় হবে। আবারো সংলাপের ডাক আসতে পারে। তাছাড়া এখনও সময় শেষ হয়নি বলেও জানান তিনি। তবে কোন ভাবেই সরকার দফাগুলো মেনে না নিলে আন্দোলনে যাবার জন্য প্রস্তুত বলেও জানান তিনি।

rabbhaban

নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
Shirt Piece

সাক্ষাৎকার -এর সর্বশেষ