প্রধানমন্ত্রীর বার্তা নিয়ে জনতার দুয়ারে আনোয়ার

স্পেশাল করেসপনডেন্ট || নিউজ নারায়ণগঞ্জ ০৮:৪৮ পিএম, ২ অক্টোবর ২০১৯ বুধবার

প্রধানমন্ত্রীর বার্তা নিয়ে জনতার দুয়ারে আনোয়ার

আওয়ামীলীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বার্তা নিয়ে জনগণের দুয়ারে দুয়ারে ছুটছেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন। তিনি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর শপথের দিন পায়ে ধরে সালাম শেষে প্রধানমন্ত্রীর দিক নিদের্শনা চান। এ সময় তাকে আগামী নির্বাচনগুলোতে নৌকার ভোট বৃদ্ধি ও সরকারের অবদান ও জেলা পরিষদের মাধ্যমে মানুষের দুয়ারে দুয়ারে উন্নয়নের সংবাদ পৌছে দেয়ার নিদের্শ দেন। সে থেকে আনোয়ার হোসেন জেলাব্যাপী উন্নয়নের সংবাদ নিয়ে মানুষের মানুষের দুয়ারে ছুটে চলছেন।

জানা যায়, দেশের সকল জেলা পরিষদকে জেলার সিনিয়র নেতাদের প্রশাসকের মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু হয়। এর ঠিক ৫ বছর পর পুনরায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানদের নিয়ে জেলা পরিষদকে নতুন পরিষদের মাধ্যমে জনগণের উন্নয়নের কাজ শুরু করেন। এতে নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। এরপর থেকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ও ৫টি উপজেলায় জেলা পরিষদের মাধ্যমে উন্নয়নের ছোয়া লাগানো কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে তিনি মসজিদ, মন্দির, কবরস্থান, রাস্তা, ড্রেন, শহীদ মিনার নির্মাণ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার সেট, লাইব্রেরী, সংগঠনের মধ্যে অর্থ বিতরণ সহ বিভিন্ন কাজে জেলা পরিষদ ইতিমধ্যে কয়েক কোটি টাকা ব্যয় করেছেন।

আনোয়ার হোসেন মানুষের কাছে গিয়ে বক্তব্যে বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিুবর রহমান কারণে বাংলাদেশ আজ স্বাধীন দেশ হিসেবে বিশে^র কাছে পরিচিত। তাকে ৭৫ সালে স্ব পরিবারের হত্যা করে স্বাধীনতার ইতিহাসকে নষ্ট করতে চেয়ে ছিল। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতা আসার পর ফের দেশের জনগণ নিশ্চিন্ত হয়ে জীবন যাপন করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আজ মধ্যম আর্থিক দেশ হিসেবে বিশে^ পরিচয় করে তুলেছেন। পদ্মা সেতু নিজস্ব অর্থায়নে নির্মাণ করে আজ উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে। দুই লেনের রাস্তাগুলো এখন চার লেনে পরিণত করেছে। বিভিন্ন সেতুগুলো পুনরায় নির্মাণ করে যানজট শেষে মুক্ত করছেন। তার পাশাপাশি ঢাকা আশেপাশে জেলাগুলোতে ফ্লাইওভার নির্মাণ করে জনগণের সুবিধা করে তুলেছে। মানুষ এখন উচ্চ শিক্ষিত লাভ করছেন, বেশি বেতনের চাকরি করছে, জন প্রতিনিধিদের কাছে কোন দাবি উঠলে সরকার তা করে দিচ্ছে। দেশে শতভাগ বিদ্যুৎ সংযোগ করে দিয়েছে শেখ হাসিনা সরকার। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উন্নত করার লক্ষ্যে বিনামূল্যে বই বিতরণ, স্কুল ব্যাগ, খাতা, কলম, পেন্সিল সহ কোন টাকা পয়সা ছাড়া ভর্তি সুযোগ করে দিচ্ছে। সরকার ক্ষমতায় আসার পর ২০২১ ও ২০৪১ ভিশন বাস্তবায়নে জনগণের কাছে চিন্তা ভাবনা তুলে ধরেছেন আওয়ামীলীগ সরকার। পৌরসভাগুলোতে করা হয়েছে সিটি কর্পোরেশন রূপে, ইউনিয়নগুলোতে উন্নত করে পৌরসভা রূপে এনে জনগণের কল্যাণে কাজ করাচ্ছে। শতাধিক বছরের আগে থাকা জেলা পরিষদকে নতুন রূপে এনে জনগণের কল্যাণে বাড়ি বাড়িতে গিয়ে উন্নয়ন তুলে দিচ্ছেন।

আনোয়ার হোসেন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে আমি নারায়ণগঞ্জে ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে রাজনীতি করি। সেখান থেকে ছাত্রজীবনে শহর ছাত্রলীগের সভাপতি, পরে তোলারাম কলেজের ভিপি, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পরে মহানগর আওয়ামীলীগের পদোন্নতি হয়ে আজ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা পর শহরে প্রথম মিছিল বের করে ছিলাম। এতে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি সব সময়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন আওয়ামীলীগের নেতৃত্বে আসে, তখন থেকে আওয়ামীলীগের পিছনে ফিরে দেখতে হয়নি। তখন থেকে আওয়ামীলীগের নাম ব্যবহার করে বহু দূর এগিয়ে চলেছে, তার এখনো দলকে পুঁজি করে নিজের বাড়ী গাড়ী ব্যাংক রিজার্ভ করেছে। আওয়ামীলীগের সভাপতি হয়েও এখনো আমার কোন বাহিনী নেই। আমাকে অনেক এমপিরা বলেন, আমি তাদের গুরু। আওয়ামীলীগের মুরব্বী হিসেবে অনেকে বলে থাকেন, কিন্তু শেখ হাসিনার মত আওয়ামীলীগ অনেকে ভালোবাসতে দেখি না।

আওয়ামীলীগের শুদ্ধি অভিযান চালিয়েছে স্বয়ং সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চাঁদাবাজি অভিযোগ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে। যাহা ছাত্রলীগের জন্য ইতিহাস, যুবলীগের শুদ্ধি অভিযান ইঙ্গিত দিয়েছে। এর সাথে সাথে তাদের কেন্দ্রীয় নেতাদের ছাড় দেয়নি নেত্রী। ক্ষমতা কারো জন্য দীর্ঘ দিন থাকে না, এটা আল্লাহ দেয়ার একটি কুদরত। কেউ সারা বছর কাজ করেও কর্মী থেকে নেতা হতে পারে না। অনেকে কর্মী না হয়েও নেতা বনে যায়, এগুলো থেকে পরিহার করতে হবে।

সারাজীবন ছাত্রলীগ থেকে আওয়ামীলীগ করে এখন প্রায় ৬৫ বছর চলছে, নেত্রী আমাকে ফোনে মাধ্যমে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোয়ন দিয়েছেন। আমি আসলে হতে চেয়েছিলাম, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র। কারণ, আমি সিটি কর্পোরেশনের এলাকায় থাকি, এখানকার রাজনীতি করি, মেয়র মনোয়ন চাইতে পারি। দলের সভানেত্রী আমার থেকে যোগ্য তাকে ভেবে, তাকে নিয়ে পুনরায় মেয়র নির্বাচিত করেছেন। আমাকেও প্রধানমন্ত্রী ফোনে বলেছিলেন, এখন তুমি জনগণের উন্নয়নের কাজ কর। তাই তোমাকে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে মনোয়ন দিলাম। আমি তখনই বলে ছিলাম, নেত্রী আমাকে ভোট দিবো কে? তিনি উত্তরে বলেছিলেন, আমার মন বলছে তুমি জয়ী হবে। ঠিক তার কথা মত আমি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে আজ তার নিদের্শনায় জনগণের উন্নয়নে দূয়ারে দূয়ারে ছুটে যাচ্ছি। এই সরকার উন্নয়নের বার্তা প্রতিটি নাগরিকের কাছে তুলে ধরছি, তারা বুঝতে পেয়েছে, শেখ হাসিনার সরকার ছাড়া এই দেশ কখনো বিশে^র সাথে পাল্লা দিতে পারবে না।


বিভাগ : সাক্ষাৎকার


নিউজ নারায়ণগঞ্জ এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

আরো খবর
এই বিভাগের আরও