rabbhaban

হাসপাতালে ভর্তি কাসেমীর শয্যাপাশে এসপি


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৭:১৪ পিএম, ২৮ ডিসেম্বর ২০১৮, শুক্রবার
হাসপাতালে ভর্তি কাসেমীর শয্যাপাশে এসপি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা কমিটির সভাপতি মুফতী মনির হোসেন কাসেমীকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হারুন অর রশিদ। শুক্রবার বিকেলে তিনি অসুস্থ কাসেমীকে দেখতে হাসপাতালে যান। এসময় পুলিশ সুপার তার শারিরীক অবস্থার খোঁজখবর নেন এবং তার সুস্থতা কামনাসহ নির্বাচনের দিন তাকে সার্বিক নিরাপত্তা প্রদানেরও আশ্বাস দেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার পরিদর্শ সাজ্জাদ রুমন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

উল্লেখ্য গত ২৭ ডিসেম্বর নির্বাচনী প্রচারণার শেষ দিনে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মুফতী মনির হোসেন কাসেমী ঢাকা ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হন। তবে তার শারিরীক অসুস্থতা সম্পর্কে রয়েছে ধোয়াশা।

এর আগে গত ২৪ ডিসেম্বর বিকেল ৩টার দিকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের রূপায়ন আবাসিক এলাকার সামনে নারায়ণগঞ্জ-৪ (সিদ্ধিরগঞ্জ-ফতুল্লা) আসনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মনির হোসেন কাসেমীর উপর হামলার অভিযোগ ওঠে। পরে তিনি সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী শামীম ওসমানের ঘনিষ্টজন মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহ নিজামের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন এবং তার বিরুদ্ধে হত্যার হুমকীর অভিযোগ তোলেন। যদিও শাহ নিজাম এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

২৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ শহরের চাষাঢ়ায় রাইফেল ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য শামীম ওসমান অভিযোগ করেন পাকিস্তানের নাগরিক নারায়ণগঞ্জে গোপন বৈঠক করছে। ২০০১ সালের ১৬ জুন চাষাঢ়া আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলার সেই ঘটনা স্মরণ করে বলেন, ‘যেহেতু আমরা ১৬ জুনে টার্গেট ছিলাম সেহেতু আমার ধারণা এবারও আমি টার্গেট।’ তিনি বলেন, আগামী ২ থেকে ৩ দিন নারায়ণগঞ্জে কিছু একটা ঘটতে পারে। কারণ ইতোমধ্যে পাকিস্তানের নাগরিক নারায়ণগঞ্জ এসে গোপন বৈঠক করে। নাম্বারবিহীন গাড়িতে করে ওই বৈঠক হচ্ছে। এটা খুব আতংকের। এবার বাংলাদেশ নির্বাচন বন্ধ করার জন্য আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের একজন অংশীদার এবং আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী তারেক জিয়ার নেতৃত্বে সেই পাকিস্তানি আইএসআই নেটওয়ার্ক একটি প্রক্রিয়া চালিয়ে একটি ঘটনা ঘটনানোর চেষ্টা করবে। সেটা হয়তো খুব দ্রুততার সঙ্গে ঘটানোর চেষ্টা করা হবে। আমাদের গত কয়েকদিনের তথ্যানুসারে পাকিস্তান এম্বাসি ও পাকিস্তানি নাগরিক নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় আনাগোনা করছে। এবং বিভিন্ন স্থানে তারা গোপন বৈঠক করেছেন। সেই বৈঠকের মাধ্যমে কোমলমতী মুসলমান মাদ্রাসার ছাত্রদের ব্যবহার করে বড় ধরনের ঘটনা আরো অনেক জায়গায় ঘটানোর চেষ্টা করবে। তার মধ্যে একটি জায়গা হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ। 

শামীম ওসমানের ওই সংবাদ সম্মেলনের পর থেকেই নারায়ণগঞ্জে কাসেমীর আনাগোনা বন্ধ হয়ে গেছে বললেই চলে। বর্তমানে তিনি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এছাড়া এর আগে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাকে বয়কট করেছে বললেই চলে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর