rabbhaban

ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে সোর্সের চাঁদাবাজী, ধাওয়ায় পালালো দুই এএসআই


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ১১:১৬ পিএম, ১৭ আগস্ট ২০১৯, শনিবার
ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে সোর্সের চাঁদাবাজী, ধাওয়ায় পালালো দুই এএসআই

নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার সাবদী এলাকায় ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে চাঁদাবাজীর সময়ে জনতার গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন শামীম নামের এক যুবক যিনি পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত। ওই সময়ে শামীমকে সহযোগিতা করা পুলিশের দুইজন এএসআই দ্রুত পালিয়ে আসে। ১৭ আগস্ট শনিবার সন্ধ্যায় সাবদিতে ব্রহ্মপুত্র নদের পাড়ে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ঈদ উপলক্ষে বন্দরের সাবদী এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে অস্থায়ীভাবে অনেক দোকানপাট গড়ে উঠে। আর এসব দোকানপাট থেকে ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দিয়ে পুলিশের সোর্স শামীম প্রতিদিনই টাকা নিত। আর তাকে সহযোগিতা করতেন বন্দর থানা পুলিশের এএসআই আমিনুল ও আনোয়ার। প্রতিদিনের মতো এএসআই আমিনুল ও আনোয়ার এবং তাদের সোর্স শামীম এদিন বিকেলে সাবদী এলাকার বিভিন্ন দোকান থেকে টাকা তুলতে যান। এ আমিনুলের বিরুদ্ধে এর আগেও নারায়ণগঞ্জ শহরের বরফকল চৌরঙ্গী পার্ক সংলগ্ন দোকানে বড় ধরনের সংঘাতের নেপথ্য নায়ক ছিলেন।

শনিবার বিকেলে এলাকাবাসী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দানকারী পুলিশের সোর্স শামীম পরিচয় পত্র দেখতে চাইলে সে পরিচয় পত্র দিতে পারেনি। এতে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে শামীমকে গণধোলাই দিয়ে আটকে রাখে। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে এএসআই আমিনুল ও আনোয়ার দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে সটকে পড়েন। পরে বন্দর থানা পুলিশ গিয়ে শামীমকে উদ্ধার করে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

বন্দর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আজহারুল ইসলাম জানান, এলাকাবাসীর অভিযোগ মতে আমরা ঘটনাস্থল থেকে শামীম নামের একজনকে আটক করেছি। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় পুলিশের কোন সদস্য জড়িত কিনা তদন্ত করে দেখা হবে।

প্রসঙ্গত এর আগে ২০১৮ সালের ২৬ আগস্ট নারায়ণগঞ্জ শহরের খানপুর বরফকল খেয়াঘাট সংলগ্ন চৌরঙ্গী ফ্যান্টাসি পার্কের সামনে ডিবি পুলিশের সাথে ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষের ঘটনায় বন্দরের বর্তমান এএসআই আমিনুল জড়িত ছিলেন এবং প্রত্যাহার হয়েছিলেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর