rabbhaban

জৈনপুরী পীরের বিরুদ্ধে গ্যাস চুরির অভিযোগ, তিতাসে স্মারকলিপি


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:২০ পিএম, ২৬ মে ২০১৯, রবিবার
জৈনপুরী পীরের বিরুদ্ধে গ্যাস চুরির অভিযোগ, তিতাসে স্মারকলিপি

নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সিদ্ধিরগঞ্জের পাঠানটুলীতে অবস্থিত জৈনপুরী পীর হিসেবে পরিচিত এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বাড়িতে গত ১০ বছর ধরে গ্যাস চুরি চলছিল বলে অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।

অবৈধভাবে গ্যাস ব্যবহারের মাধ্যমে বাড়ি সংলগ্ন মাদরাসায় রান্নার পাশাপাশি প্রতিনিয়ত বিভিন্ন জলসা এবং ওয়াজ মাহফিলের নামে শত শত লোকের জন্য রান্না হতো। এতে করে ওই এলাকায় বৈধ গ্রাহকরাও ঠিকমতো গ্যাস পেত না। এছাড়া সম্প্রতি তিতাস গ্যাসের কর্মকর্তারা জৈনপুরী পীর এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে কয়েকটি অবৈধ চুলা ও সরঞ্জাম জব্দ করলেও এখনো তার বাড়িতে মাটির নিচে অবৈধ সংযোগের পাইপ বিদ্যমান বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। এজন্য জৈন পুরীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় সম্পদ প্রাকৃতিক গ্যাস চুরির  অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছে ভুক্তভোগী পাঠানটুলী এলাকাবাসী।

জৈনপুরীরর গ্যাস চুরির বিষয়টি দাপ্তরিক জরিমানার মাধ্যমে নিষ্পত্তি না করে বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের দাবীতে রোববার ২৬ মে সকালে নারায়ণগঞ্জ তিতাসের উপ-মহাব্যবস্থাপক বরাবর দুই শতাধিক এলাকাবাসীর স্বাক্ষরিত স্মারকলিপি জমা দেয়া হয়েছে।

স্মারকলিপির অনুলিপি বিদ্যুৎ জালানী, খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও সচিব, তিতাসের প্রধান কার্যালয়ের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, ধর্মে কোন বিধান নাই রাষ্ট্রীয় সম্পদ প্রাকৃতিক গ্যাস চুরি করা। একজন চিহ্নিত গ্যাস চোর কখনো মসজিদে বয়ান করতে পারে না। ধর্মের লেবাস লাগিয়ে রাষ্ট্রীয় সম্পদ গ্যাস চুরিসহ জৈনপুরীর সকল অপকর্মের বিচার চায এলাকাবাসী।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, গত ২ মে পাঠানটুলি নিবাসী জৈনপুরী এনায়েতুল্লাহ আব্ব্সাীর বাড়ীতে নারায়নগঞ্জ তিতাস গ্যাস অফিসের সেলস্ ম্যানেজারের নেতৃত্বে একটি দল অভিযান চালিয়ে  অবৈধ গ্যাস লাইন উদঘাটন করে। অভিযানে জৈনপুরীর বাড়ীতে একটি ডাবল চুলাযুক্ত বড় আকারের বার্নাও এবং দুই ইঞ্চি একটি পাইপের সাথে বড় আকারের আরো দুইটি বার্নার জব্দ কার হয়। গ্যাসের মেইন লাইন হতে দুইশত গজ দুরে দুইটি বড় বার্নারের সংযোগ স্থাপনকারী পাইপ এখনো মাটির নীচে বিদ্যমান। দীর্ঘ ১০ বছর যাবৎ এই অবৈধ গ্যাস লাইন সংযোগ দিয়ে তার মাদ্রাসার প্রায় তিন শতাধিক ছাত্রদের তিন বেলা রান্না, মাসে দুই বার জলসা ও ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করে হাজার হাজার মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করা হতো। এতে প্রচুর গ্যাস অবৈধ ভাবে খরচ হতো এবং এলাকার সাধারন জনগণ গ্যাস থেকে বঞ্চিত হতেন এবং ভালভাবে রান্না করতে পারতেন না। অথচ এলাকাবাসী ঠিকই নিয়মিত গ্যাস বিল পরিশোধ করতেন।

অপরদিকে এনায়েতউল্লা আব্বাসী রাষ্ট্রীয় সম্পদ প্রাকৃতিক গ্যাস চুরি করে তার ইচ্ছামতো অপব্যবহার করতেন যা সম্পূর্ণ বেআইনী এবং গুরুতর ক্রিমিনাল অফেন্স হিসাবে গন্য হবে। আমরা পাঠানটুলি এলাকাবাসরি পক্ষ থেকে এ ঘৃণিত ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং জৈনপুরীরর গ্যাস চুরির বিষয়টি দাপ্তরিক জরিমানার মাধ্যমে নিষ্পত্তি না করে বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।

খানে উল্লেখ্য যে,আপনাদের অভিযানটি শত শত গ্রামবাসী প্রত্যক্ষ করেছে এবং ছবি ও ভিডিও ফুটেজ এলাকাবাসীর নিকট রয়েছে।

উল্লেখ্য সিদ্ধিরগঞ্জের পাঠানটুলীর জৈনপুরী পীর এনায়েত উল্লাহ আব্বাসী গত কিছুদিন ধরেই নানা ঘটন অঘটনে আলোচিত। চলতি বছরের ২২ ফেব্রুয়ারী দুপুরে নারায়ণগঞ্জ শহরের নবীগঞ্জ ফেরিঘাট এলাকায় দু’টি লঞ্চে নাশকতার উদ্দেশ্যে গোপন বৈঠক চলাকালে জৈনপুরী হুজুর এনায়েতউল্লাহ আব্বাসীর বড় ভাই সৈয়দ ইমদাদ উল্লাহ আব্বাসীসহ জামায়াত ও শিবিরের ১০ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। ২৫ এপ্রিল রাত ১২টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জের পাঠানটুলী এলাকায় জৈনপুরী পীর এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর ছোট ভাই নেয়ামত উল্লাহ আব্বাসীর নেতৃত্বে আমির উদ্দিন, মঞ্জুর রহমান, হাসানুর রহমান, ইমরান হোসেন, ফয়সাল, কাউসার, চঞ্চল, রাব্বি, শিবলু, রোমান সহ অজ্ঞাত ১৫০ জন দলবদ্ধভাবে লাঠি, লোহার রড, বল্লম, শাবল, হ্যামার নিয়ে এইচ এন এপারেলস লিমিটেডের টিনশেড বিল্ডিংয়ের প্রিন্ট ফ্যাক্টরীর দেয়াল ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশ করে কারখানার ১০ লাখ টাকা ক্ষতিসাধন ছাড়াও কারখানার অভ্যন্তরে থাকা প্রিন্টিং কেমিক্যাল, প্রিন্টিং মেশিন, কিউরিং মেশিন, কার্টুন রোল সহ ১০ লাখ টাকা মূল্যের সামগ্রী লুটে নিয়ে যায়। এসময় হামলাকারীরা ফ্যাক্টরী ছেড়ে না গেলে কর্মকর্তা কর্মচারীদের প্রাণনাশের হুমকী দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এজাহারনামীয় আসামী আমির উদ্দিন, মঞ্জুর রহমান, হাসানুর রহমান, ইমরান হোসেনকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় নেয়ামত উল্লাহ আব্বাসীসহ ১১ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত দেড় শ’ জনের বিরুদ্ধে এইচ এন এপারেলস লিমিটেড নামের গার্মেন্টের কর্মকর্তা মো. মহিউদ্দিন বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এরপর এনায়েত উল্লাহ আব্বাসীর ছোট ভাই নেয়ামত উল্লাহ আব্বাসীর জঙ্গী স্টাইলে তোলা একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। ২৮ এপ্রিল রোববার রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি শাহীন শাহ পারভেজের নেতৃত্বে পাঠানটুলীতে নেয়ামত উল্লাহর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার বাড়ি থেকে খেলনা পিস্তল ও বন্দুক উদ্ধার করা হয়।

এছাড়া বিভিন্ন ওয়াজের অনুষ্ঠানে গণমাধ্যম কর্মীদের বিরুদ্ধে সমালোচনা করেও আলোচিত হন এনায়েত উল্লাহ আব্বাসী।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর