rabbhaban

ঝুঁকিপূর্ণ হাবিব কমপ্লেক্স, দুর্ঘটনার আশঙ্কায়ও চলছে ঘষামাজা


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:০৮ পিএম, ১৬ জুন ২০১৯, রবিবার
ঝুঁকিপূর্ণ হাবিব কমপ্লেক্স, দুর্ঘটনার আশঙ্কায়ও চলছে ঘষামাজা

নারায়ণগঞ্জের ২ নং রেলগেট এলাকায় অবস্থিত হাবিব কমপ্লেক্সের ৬ তলার উপর থেকে বর্ধিত ৮ তলা পর্যন্ত পুরোটাই একেবারে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ভবনটির সিড়িও একেবারেই নাজুক অবস্থায় রয়েছে। যেকোন সময় এটি ভেঙ্গে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

রোববার (১৬ জুন) সরেজমিনে দেখা যায়, ঝুঁকিপূর্ণ ভবনটিকে নতুনরূপে সিমেন্টের আস্তর ও রঙ দিয়ে ঘষামাজা করে নতুন করতে কাজ করা হচ্ছে। এ কাজের জন্য সড়কের একটি অংশও বন্ধ করা হয়।

ভবনটির গ্রাউন্ডফ্লোরে রয়েছে বিভিন্ন দোকান, গার্মেন্টের ও জুটের গোডাউন। ভবনের প্রথম তলায় রয়েছে মোবাইল মার্কেট, কাপড়ের দোকান ও বিভিন্ন কারখানার দোকান। দ্বিতীয় তলায়ও রয়েছে মার্কেট। এ ছাড়া প্রতিটি ফ্লোরেই রয়েছে গার্মেন্ট ও কারখানা। ৫ম তলার পর থেকে রয়েছে আবাসিক ফ্ল্যাট বাসা।

এ ভবনে ফায়ার এক্সিটও নেই, নেই অগ্নিনির্বাপনের কোন ব্যবস্থা। ফায়ার সার্ভিস থেকে ভবনটি অগ্নি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা আছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, মার্কেটটিতে সড়কের পাশে বাঁশের খুটি দিয়ে বেঁধে সেখানে চলছে ভবনটি ঘষামাজার কাজ। এতে ভেঙ্গে যাওয়া সিড়ি ও দেয়ালে সিমেন্টের আস্তর ও রঙ দিয়ে চলছে ভবনটিকে চকচকে করার কাজ।

জানা যায়, ভবনটির রাজউকের অনুমতি রয়েছে ৬ তলা পর্যন্ত। পরবর্তীতে ৮ তলা পর্যন্ত অলিখিত মৌখিক অনুমতি দিয়ে বর্ধিত করার কথা বলে ভবন মালিক ৮ তলা পর্যন্ত ভবনটি বর্ধিত করেন। এদিকে ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে উল্লেখ্য করে বিকেএমইএ এটির বর্ধিতাংশ ভেঙ্গে ফেলতে চিঠিও দিয়েছিল। যদিও মালিক পক্ষের দাবি ভবনটির ৯ তলা পর্যন্ত রাজউকের অনুমতি রয়েছে।

ভবনের দোকান মালিকদের সুত্রে জানা যায়, ভবনটিতে প্রতিদিন সকাল থেকে হাজারো মানুষ কেনাকাটা ও ব্যবসা-বানিজ্যের কাজে আসেন। এছাড়া ভবনটিতে মানুষ বসবাস করেন। এতো ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে এভাবে ঘষামাজা করায় যেকোন সময় এটি ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, হতে পারে প্রাণহানি।

ভবনটির মালিক আওয়াল জানান, এখানে সমস্যা আছে কিছুটা। সিড়িটা একটু ছোট আমরা বড় করে দেব। এখানে মালিক ১০ জন। এ ছাড়াও আরো মালিক আছে ফ্লোরে ফ্লোরে। আমরা একসাথে বসে আলোচনা করে এখানে যত সমস্যা আছে সমাধান করে দেব।

তিনি জানান, ভবনটির রাজউকের অনুমতি আছে ৯ তলার আমরা ১ তলা কম করেছি। পাশের রিভারভিউ মার্কেটের ৯ তলা থাকলেও তারা ১১ তলা করেছে আমরা সেটি করিনি। দেয়ালে আস্তরসহ সিড়ি বড় করার কাজ করছি। এ ছাড়া ফায়ার এক্সিটসহ যতগুলো ব্যবস্থা এখানে নেই সেগুলোও আমরা সংযোজন করবো।

তিনি দৃঢ়ভাবে বলেন, এখানে ঝুঁকি নেই আমরা এখানে ১৩ তলার ফাউন্ডেশন দিয়ে ভবনটি নির্মাণ করেছি।

এদিকে ভবনটিকে ও এখানে কাজে আসা ও বসবাসরত বাসিন্দাদের আশু দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা করতে সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন স্থানীয়রা।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর