rabbhaban

৫টি গরুর চামড়ার দামও একটি জুতার দামের সমান নয়


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৫:২৬ পিএম, ১৩ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার
৫টি গরুর চামড়ার দামও একটি জুতার দামের সমান নয়

বড় আকারের গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ৬শ’ টাকায়। তবে ছোট আকারের গরুর চামড়া মিলেছে মাত্র ১০০ টাকা। পানির দামের চেয়েও কম দামে বিক্রি হচ্ছে ছাগলের চামড়া। ৪০ বছরের মধ্যে এবার সবচেয়ে কম দামে চামড়া কেনাবেচা হচ্ছে। ট্যানারি-মালিকদের নির্ধারণ করে দেওয়া দরের এক-তৃতীয়াংশ দামও মিলছে না চামড়ার। সিন্ডিকেট করে এবার একরকম পানির দামে কোরবানির পশুর চামড়া কিনে নিয়েছে ব্যবসায়ীরা। এমনকি সরকারের বেঁধে দেওয়া মূল্যও দেওয়া হয়নি কোথাও। জুতা প্রস্তুতকারক ও চামড়া ব্যবসায়ীদের তথ্য থেকে দেখা যায়, বর্তমান বাজারে এক জোড়া ভালো মানের চামড়ার জুতার যে দাম, ৫টি গরুর চামড়ার দামও তা নয়।

জানা গেছে, গতবার প্রতি বর্গফুট লবণযুক্ত গরুর চামড়া ঢাকায় ৪৫ থেকে ৫০ এবং ঢাকার বাইরে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দর নির্ধারণ করে দেওয়া হয়। প্রতি বর্গফুট খাসির চামড়ার দাম নির্ধারিত হয় ১৮ থেকে ২০ এবং ছাগলের চামড়া ১৩ থেকে ১৫ টাকা। এই দরে ৩০ থেকে ৩৫ বর্গফুটের লবণযুক্ত বড় গরুর চামড়া ১ হাজার ৫০০ থেকে ১ হাজার ৭৫০ টাকায় ট্যানারি-মালিকদের কেনার কথা। কোরবানির পশুর চামড়ার দাম গত বছরের হার অপরিবর্তিত রেখেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

প্রতিটি চামড়া সংরক্ষণে লবণ, গুদাম ভাড়া, শ্রমিকের মজুরি, পরিবহনসহ মোট ব্যয় ১৫০ থেকে ২০০ টাকা এবং ১০০ টাকা মুনাফা ধরলেও ১ হাজার ২০০ থেকে দেড় হাজার টাকায় মাঠপর্যায়ে কেনাবেচা হওয়ার কথা। অথচ এবছর রাজধানীর হাজারীবাগে ৭০ হাজার থেকে লাখ টাকার ওপরে কেনা গরুর চামড়া বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকায়। ৪০ হাজার থেকে ৬০ হাজার টাকার গরুর চামড়া বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। পানির দামের চেয়েও কম দামে বিক্রি হচ্ছে ছাগলের চামড়া। ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার টাকার ছাগলের চামড়া বিক্রি হচ্ছে ১৫ থেকে ২০ টাকায়।

স্থানীয় ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা জানান, ৪০ বছরের মধ্যে এবার সবচেয়ে কম দামে চামড়া কেনাবেচা হচ্ছে। ট্যানারি-মালিকদের নির্ধারণ করে দেওয়া দরের এক-তৃতীয়াংশ দামও মিলছে না চামড়ার। অনেক এলাকায় চামড়ার ক্রেতাই পাওয়া যাচ্ছে না। কম দরে চামড়া বিক্রি হওয়ায় দরিদ্র প্রতিবেশী, এতিমখানা, মাদ্রাসা প্রাপ্য অর্থ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

শহরেরর আমলাপাড়া এলাকার বাসিন্দা আবুল হোসেন জানান, এলাকার যারা কোরবানি দিয়েছেন, তাদের বেশির ভাগ চামড়া মাদরাসা এতিমখানায় দিয়েছে। এবার মৌসুমি ব্যবসায়ী নেই। মাদ্রাসা এতিমখানায় জমা হওয়া চামড়া বিক্রি করে অনেক কম পাওয়া গেছে। তার ভাষ্য, ৫টা গরুর চামড়ার দামও একটি ভাল জুতার দামের সমান নয়।

নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়ায় অবস্থিত দারুল উলুম বাগে জান্নাত মাদরাসার কালেকটর মহিউদ্দিন জানান, এ বছর রাজধানীতে গিয়ে বড় আকারের চামড়ার দর পেয়েছেন গড়ে ৬৫০ টাকা। কিন্তু ছোট আকারের চামড়ার দর পেয়েছেন প্রতি পিছ মাত্র ১০০ টাকা। খাসি ছাগলের চামড়া প্রতি পিছ ৩০ টাকা দরে ও গরুর মাথার চামড়া ২২ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। ঈদের দ্বিতীয় দিন গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ৫০০ টাকা দরে। অথচ গত বছরও ঈদের দিন বড় ছোট সকল ধরনের গরুর চামড়া গড়ে ১০০০ টাকা দরে বিক্রি করতে পেরেছিলেন।

দারুল উলুম বাগে জান্নাত মাদরাসার পরিচালনা পর্ষদের সদস্য শরীফ আহাম্মদ জানান, সাধারণ মানুষের দানের পাশাপাশি যাকাত, ফিতরা ও কুরবানির সময় দান করা চামড়া বিক্রির আয়ের ওপরই নির্ভরশীল অধিকাংশ মাদরাসার পরিচালনা ব্যয়। কয়েক বছর আগেও কুরবানীর পশুর চামড়া বিক্রির অর্থে মাদরাসার কয়েক মাসের খরচ উঠতো। কিন্তু কয়েক বছর ধরে কুরবানীর পশুর চামড়ার অব্যাহত দরপতন ও সিন্ডিকেটের কারণে কুরবানীর চামড়া বিক্রির আয় তলানীতে গিয়ে ঠেকেছে। এবছরতো কুরবানীর পশুর চামড়া বিক্রির আয় দিয়ে মাদরাসার এক মাসের খরচও উঠবেনা।

ট্যানারি মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশন বলছে, তারা চামড়া সংগ্রহ করবে আরও ১০ থেকে ১২ দিন পর। ওই সময় পর্যন্ত ব্যবসায়ীরা যদি চামড়া সংরক্ষণ করতে পারেন, তাহলে সরকার –নির্ধারিত দামে চামড়া বিক্রি করতে পারবেন।

সংশ্লিষ্ট কেউ কেউ বলছেন, আর্থিক সংকটে আড়তদারেরা চামড়া কিনতে পারছেন না। আবার ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, সিন্ডিকেট করে চামড়ার দাম একবারেই কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে এ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা বলছেন, চামড়ার দাম নিয়ে অন্তরালে কেউ কেউ নোংরা খেলা খেলে নিজেরা লাভবান হওয়ার চেষ্টা করছেন।

চামড়ার বাজারমূল্যে নজিরবিহীন ধস দেখে অনেকেই পানির চেয়েও এবার পশুর চামড়ার দাম কম বলে মন্তব্য করেছেন। পশুর চামড়া বিক্রির জন্য অনেক স্থানে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের খুঁজে পাওয়া যায়নি। কোনো কোনো এলাকায় গরুর চামড়া ২৫০ থেকে ৩০০ টাকাতেও কেনাবেচা হয়েছে। গরুর চামড়ার সঙ্গে ছাগলের চামড়া ফ্রি দিতে হয়েছে কোথাও কোথাও। কোরবানির পশুর চামড়া নিয়ে ভোগান্তির চিত্র ছিল সর্বত্র।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর