rabbhaban

শীতলক্ষ্যার তীরে ৩ ইটভাটার স্থাপনা চুল্লী গুড়িয়ে দিল বিআইডব্লিউটি


রূপগঞ্জ করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৩৪ পিএম, ০৪ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার
শীতলক্ষ্যার তীরে ৩ ইটভাটার স্থাপনা চুল্লী গুড়িয়ে দিল বিআইডব্লিউটি

নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের বেলদী এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীর পশ্চিম তীরের প্রায় ৪ একর জমি দখল করে গড়ে উঠা ৩টি অবৈধ ইটভাটার ৩০টি স্থাপনা ও ৩টি সুউচ্চ চুল্লী গুড়িয়ে দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ কতৃর্পক্ষ।

সোমবার ৪ নভেম্বর বেলা এগারোটা থেকে নৌ পরিবহন মন্ত্রনালয়ের যুগ্ম সচিব ও নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শাহ্ হাবিবুর রহমান হাকিমের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমান আদালত এ উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে।

বিকেল ৩ টা পর্যন্ত অভিযানে নদী ভরাট করে গড়ে উঠা বায়েজিদ হোসেনের মালিকানাধীন মা ব্রিকসের ৪টি দেয়ালসহ ১০টি স্থাপনা ও প্রায় দেড়শত ফুট উচু চুল্লী, রফিকুল ইসলামের মালিকানাধীন এমএবি ব্রিকসের ৪টি দেয়ালসহ ১০টি স্থাপনা ও প্রায় একশত ফুট উচু চুল্লী, হেলালউদ্দিনের মালিকানাধীন এমএইচবি ব্রিকসের ৪টি দেয়ালসহ ১০টি স্থাপনা ও প্রায় একশত ফুট উচু চুল্লী ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়। এসময় একটি ইটের ভাটার স্তূপীকৃত কয়লা ২ লাখ ২০ হাজার টাকায় নিলামে বিক্রি করা হয়।

উচ্ছেদ অভিযানে আরো উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক শেখ মাসুদ কামাল, সাইফুল হক খান, উপ-পরিচালক মো. শহীদুল্লাহ ও সহকারী পরিচালক এহতেশামুল পারভেজ সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট জানান, রুপগঞ্জ উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের বেলদী এলাকায় শীতলক্ষ্যা নদীর পশ্চিম তীরের কয়েক একর জমি দখল করে গড়ে উঠা ৩টি অবৈধ ইটভাটার ৩০টি স্থাপনা ও ৩ টি সুউচ্চ চুল্লী গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। উচ্চ আদালতের নির্দেশে নদী অবৈধ দখলমুক্ত অভিযান চলমান রয়েছে। নদী দখলদারদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

এদিকে ইটভাটার মালিক বায়েজিদ হোসেন ও রফিকুল ইসলাম দাবি করেন ইটভাটাগুলো তাদের পৈত্রিক সম্পত্তিতে স্থাপিত ছিল। কোন ধরনের নোটিশ ছাড়াই তাদের ইটভাটা ভেঙ্গে দেয়া হয়েছে। উচ্ছেদের কারণে তারা কয়েক কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর