নারায়ণগঞ্জে নারী শিক্ষার উন্নয়নে আমেরিকা থেকে ছুটে আসলেন মুস্তারি


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৪৪ পিএম, ১৭ মার্চ ২০১৯, রবিবার
নারায়ণগঞ্জে নারী শিক্ষার উন্নয়নে আমেরিকা থেকে ছুটে আসলেন মুস্তারি

‘বাংলাদেশ সহ আরো অনেক দেশ আছে যেখানে শিক্ষার দিক থেকে মেয়েরা কিছুটা পিছিয়ে। মেধাবী হওয়া সত্ত্বেও তাঁরা অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে পড়ালেখায় বেশিদূর এগোতে পারে না। তাদেরকে ডেভেলপ করার জন্য, বোঝা না হয়ে তদের আত্মনির্ভর করে গড়ে তোলার জন্য এবং সার্বিকভাবে নিজ পায়ে দাঁড় করার জন্যই আমাদের একটি ছোট্ট প্রয়াস হচ্ছে এটি।’

রোববার ১৭ মার্চ কথাগুলো বলছিলেন আমেরিকান সংস্থা ‘মাই সলি ফাউন্ডেশন’ এর ফাউন্ডার আরিয়া মুস্তারি। এসময় তিনি নারায়ণগঞ্জ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলছিলেন।

আলাপকালে তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, মেয়েরা দুর্বল নয়। তাঁরা অনেক শক্তিশালি। কিন্তু তাঁরা এই শক্তিটা বুঝতে পারবে শিক্ষার মাধ্যমে। শিক্ষার আলো না পেলে তাঁরা নিজেদেরকে বোঝা ভাবতে শুরু করে। আমাদের ফাউন্ডেশনে মাধ্যমে তাঁদেরকে সহযোগিতা করা হয় যাতে তাঁরা শিক্ষা থেকে ঝড়ে না পরে।

এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশসহ বেশ কয়েকটি দেশ আছে যেখানে মেয়েরা শিক্ষার দিক থেকে পিছিয়ে আছে। এটা যে শুধু পরিবারিক কুসংস্কার এর জন্য তা নয়। অনেক সময় পরিবারের আর্থিক অবস্থা অতটা স্বচ্ছল থাকে না। তাই মেয়েদেরকে পড়াতে আগ্রহী হন না। ফলে তাদের অকালেই শিক্ষার আলো থেকে ঝরে পরতে হয়। আমাদের সংস্থার পক্ষ থেকে তাদেরকে আর্থিক সহযোগিতা করা হবে। এছাড়া বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। যারা খুব মেধাবী শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় দেবে তাদেরকে আমরা স্কলারশীপের মাধ্যমে উচ্চ শিক্ষার ব্যবস্থা করব।

‘‘আমেরিকা থেকে নানির পরামর্শে গতকাল বাংলাদেশে এসে আজ থেকেই কাজ শুরু করেছি। ঢাকায় তিনদিন কাজ করব, তিনদিন চট্টগ্রামে কাজ করব। এখানে শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের ও অভিভাবক সকলের সাথে কথা বলছি। সকলেই মেয়েদের শিক্ষা নিয়ে বেশে আগ্রহ দেখাচ্ছে। আশা করছি আমাদের কার্যক্রম সফল হবে।’’ বলেন আরিয়া মুস্তারি।

এসময় আরিয়া মুস্তারির নানি মাহমুদা শহীদ নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, যখন শুনতে পেলাম নাতনি এমন একটা সংগঠনের সাথে যুক্ত আছে যারা মেয়েদের শিক্ষার ও তাদেরকে নির্ভরশীল করে তুলতে সাহায্য করে তখন আর দেরি না করে তাকে বাংলাদেশে আসতে বলি। কারণ বাংলাদেশে এমন অনেক পরিবার আছে যারা অর্থের অভাবে মেয়েদের পড়াতে চায় না। যা আমাদের কাম্য নয়।

এসময় তিনি আরো বলেন, নারায়ণগঞ্জে আসার কারণ হচ্ছে এখানেই আমার বাড়ি। আমার মেয়ে এই স্কুল কেউ পড়ালেখা করেছে। তাই আর দেরি না করে এই স্কুলেই প্রথমে এসেছি। আল্লাহ আমাকে অনেক সম্পদ দিয়েছেন। কিন্তু তা আমার কোনো কাজে আসবে না। যদি না আমি দেশের জন্য কিছু করে যেতে না পারি। তাই কার্যক্রমটা আমি আমার জেলা থেকেই শুরু করলাম।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর