rabbhaban

বন্দর শিশুবাগ স্কুলের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা


বন্দর করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:২৪ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বুধবার

অভিভাবকদের দাবির মুখে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ৯ বছর পরে নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপিঠ বন্দর শিশুবাগ স্কুলের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার ১১ সেপ্টেম্বর দুপুরে শিশুবাগ স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি কুতুব উদ্দিন খান আগামী ১৫ নভেম্বর নির্বাচনের দিন ধার্য্য করেন।

জানা গেছে, ১৯৭০ সালে বন্দর শিশুবাগ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে বিদ্যালয়টি নিয়মিত ম্যানেজিং কমিটি ও বেসরকারী বিদ্যালয়ের প্রবিধান বা নীতিমালা অনুসারে পরিচালিত হয়ে আসছিল। তবে ২০১০ সালে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনের পর থেকে মেয়াদর্ত্তীন হওয়ার পরেও পরবর্তীতে কোন নির্বাচনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। তৎকালে ম্যানেজিং কমিটি অভিভাবকদের স্বার্থকে অগ্রাহ্য করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল ও আজীবন স্বপদে থাকার জন্য রেজুলেশন করে নীতিমালা ভঙ্গ করে বিদ্যালয় পরিচালনা করে আসছিল যা সম্পূর্ণ বেআইনী ও অবৈধ। অভিভাবকদের ইচ্ছা ও আগ্রহ থাকা স্বত্বেও তারা নির্বাচন না দিয়ে অবৈধ ভাবে পরিচালনা করে আসছিল। তৎকালে ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্যের মধ্যে ৩ জন অভিভাবকদের সন্তান কেউ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করতো না।

পরে একজন অভিভাবকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ২০১৫ সালের ১২ আগষ্ট তৎকালীন বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উপস্থিতিতে গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ৩ সেপ্টেম্বর শিশুবাগ বিদ্যালয়ের বর্তমান ব্যবস্থাপনা কমিটিকে অবৈধ ঘোষণা করে স্কুলটি পরিচালনা ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে ৬ সদস্যের অ্যাডহক কমিটি গঠন করা হয়। যাতে বন্দর উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে আহবায়ক করে ও স্কুলটির অধ্যক্ষ রোখসানারা বেগমকে সদস্য সচিব করে কমিটি গঠন করা হয়। পরে অভিযুক্তরা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিবাদী করে আদালতে মামলা দায়ের করলেও আদালত মামলাটি খারিজ করে দেয়।

এদিকে ৬ সদস্য বিশিষ্ট এডহক কমিটি থাকলেও এখনো স্কুল নিয়ন্ত্রনে ছিলেন পূর্বতন ব্যবস্থাপনা কমিটি। ২০১৭ সালের ৬ এপ্রিল মোঃ শরীফ হোসেন চিশতি গং এর আনীত অভিযোগের বিষয়ে তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মোঃ ছরোয়ার হোসেন সরেজমিনে স্কুলটিতে তদন্তে যান। পরে মোঃ ছরোয়ার হোসেন বদলী হয়ে গেলে থমকে যায় তদন্তকাজ।

এদিকে ৩ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক বরাবরে স্কুলটির বিষয়ে অভিযোগ দিয়েছেন কয়েকজন অভিভাবক। কমিটির সেচ্ছাচারিতা বহুগুনে বৃদ্ধি পেয়েছেন উল্লেখ করে  দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া না হলে অভিভাবকদের ক্ষোভ গণঅসন্তোষে রূপ নিতে পারে বলে অভিযোগে উল্লেখ করেছেন অভিভাবকরা। অভিযোগের অনুলিপি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সচিব, নারায়ণগগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার এবং বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরেও প্রেরণ করা হয়।

শিশুবাগ বিদ্যালয়ের অভিভাবক শরিফ হাসান চিস্তি বন্দর প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের জানান, বন্দর শিশুবাগ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য কাজী জহির, সাইফুল ইসলাম শ্যামল, আতিকুর রহমান মাছুম এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি কুক্ষিগত করে রেখেছে। বর্তমানে উল্লেখিতদের কোন সন্তান এই বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত নেই। তারপরও তারা অদৃশ্য ক্ষমতার বলে নির্বাচন না দিয়ে একটানা ৯ বছর ধরে বিদ্যালয়ের পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে। অবশেষে সাধারণ অভিভাবকদের দাবি মুখে বন্দর শিশুবাগ বিদ্যালয়ের সভাপতি কুতুবউদ্দিন খান নির্বাচন দিতে বাধ্য হয়েছে।

শিশুবাগ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সদস্য সাইফুল ইসলাম শ্যামল সাংবাদিকদের জানান, এই সমস্ত স্কুলের সাধারণত নির্বাচন হয় না। তাই এই স্কুলে গত ৯ বছর ধরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি।

এ ব্যাপারে বন্দর শিশুবাগ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি কুতুব উদ্দিন খান সাংবাদিকদের জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়ে কোন বিভেদ সৃষ্টি করতে চাই না। আগামী ১৫ নভেম্বর নির্বাচনের দিন ধার্য করেছি। যারা নির্বাচনে বিজয়ী হবে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদেরকে নিয়ে কাজ করবে। এই নিয়ে আর যেন বিভেদ সৃষ্টি না হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
শিক্ষাঙ্গন এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর