rabbhaban

এখনো মহিলা কলেজের সামনের সড়কে জলজট


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪০ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
এখনো মহিলা কলেজের সামনের সড়কে জলজট

নারায়ণগঞ্জের প্রধান তিনটি কলেজের মধ্যে ছাত্রীদের জন্য অন্যতম সরকারি মহিলা কলেজে। কিন্তু এ কলেজের শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ কমছে না। বৃষ্টি হলেই কলেজের প্রধান ফটকের সামনে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। এ জলাবদ্ধতা শুধু যে ছাত্রীদের দুর্ভোগ হয় তা নয় ঢাকা-পাগলা-পঞ্চবটি-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের যাত্রীরাও এর শিকার। কিন্তু এটা মেরামতে নেই কোন উদ্যোগ। ফলে দিনের পর দিন ভোগান্তি বেড়েই চলেছে।

১২ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার বিকেলে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, মহিলা কলেজের সামনে থেকে মাজারের গেট পর্যন্ত পানি জমে আছে। এ পানি পারিয়ে চলাচল করছে সাধারণ মানুষ। তাছাড়া এর মধ্যে দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে সিএনজি, টেম্পু ও রিকশাগুলো। গর্তে চাকা আটকে গেলে যেকোন দুর্ঘটনার শিকার হতে পারে। আর এ জলাবদ্ধতার কারণে এ রাস্তায় সৃষ্টি হচ্ছে যানজট। তাছাড়া যানজট না থাকলেও স্বাভাবিক ভাবে যানবাহন চলাচল করতে পারে না।

মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী সুস্মিতা সাহা বলেন, গ্রীষ্ম কি বর্ষা বার মাস এখানে জল জমে থাকে। এ নোংরা জলে ড্রেস নষ্ট হয়ে যায়। বাধ্য হয়ে এর উপর দিয়ে চলাচল করতে হয়। কলেজের বাইরের রাস্তা তাই কলেজ কর্তৃপক্ষও কোন উদ্যোগ নেয় না।

স্থানীয় চা পান বিক্রেতা গিরি দাস বলেন, সারা বছর বৃষ্টি হলেই এখানে পানি জমে থাকে। পানি জমে রাস্তা নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে যানবাহন চলাচল করতে গিয়ে এখানে ছোট বড় গর্ত হয়ে গেছে। এখান দিয়ে রিকশা বা টেম্পু চলতে গিয়ে আটকে যায়। অনেক সময় রিকশা সহ যাত্রী পড়ে গিয়ে আহত হয়েছে।

তিনি বলেন, এখানে পানি জমে থাকায় সব থেকে বেশি দুর্ভোগ পোহায় কলেজের ছাত্রীরা। তাদের ড্রেস সাদা। রিকশার জন্য ফটকের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা কিংবা রিকশা থেকে নাম গিয়ে নোংরা হয়ে যায়। কলেজ ছুটি হওয়ার পর যখন সবাই এক সঙ্গে ফটকের সামনে আসে তখনই বেশি সমস্যা হয়। অনেক ছাত্রী গর্তে পড়ে গেছে।

জুতার দোকানদার সজিব বলেন, এখানে ড্রেন নেই। তাই বৃষ্টি হলে পানি সরে যেতে পারে না। তাই পানি জমে থাকে। আর কয়েক ঘণ্টা জমে থাকলে নোংরা হয়ে যায়। এ নোংরা পারিয়ে মানুষ যাতায়াত করতে বাধ্য হয়।

তিনি আরো বলেন, এ পানির কারণে ক্রেতারা আসতে চায় না। বেচাকেনাও ভালো হয় না। এখানে যতগুলো দোকান আছে সবারই একই অবস্থা। পানির জন্য সবাই দুর্ভোগে। স্থানীয় কাউন্সিলরকে জানানো হয়েছে। কিন্তু কোন উদ্যোগ নেয় না। কারণ এ সড়কটা পড়েছে সড়ক ও জনপদের অধিনে। তাই একে অন্যের উপর ঠেলে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর