সোনারগাঁয়ে নির্বাচন স্থগিতাদেশ মামলায় স্কুলের উন্নয়ন ব্যাহত


সোনারগাঁ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৩৪ পিএম, ১২ নভেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
সোনারগাঁয়ে নির্বাচন স্থগিতাদেশ মামলায় স্কুলের উন্নয়ন ব্যাহত

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউনিয়নের মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে স্বুল পরিচালনা কমিটির নির্বাচন স্থগিতাদেশ চেয়ে রিট পিটিশন দায়ের করায় স্কুলের উন্নয়ন ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ২০১৬ সালের জানুয়ারী মাসে এ স্কুলের কম্পিউটার বিষয়ের প্রাক্তন শিক্ষক মো. আল মামুন হাইকোর্টে এ রিট পিটিশন মামলা দায়ের করেন।

অভিযোগ উঠেছে, নতুন স্কুল পরিচালনা কমিটি আসলেই তার পদ শূন্য ঘোষণা করে এনটিআরসিএ অফিসে শিক্ষক চাহিদা পাঠাবেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক। এ কারনে ওই শিক্ষকের পদে কোন শিক্ষক নিয়োগ দিতে না পারে এ কৌশল নিয়ে এ মামলা করেছেন বলে অভিযোগ উঠে। মামলার কারণে ওই স্কুলে পরিচালনা কমিটি না থাকায় এ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে স্কুলের প্রধান শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে আছে। তাছাড়া শূণ্য পদের শিক্ষকও পরিচালনা কমিটি না থাকায় এ স্কুলে কোন শিক্ষক এনটিআরসিএর মাধ্যমে আবেদন করেনি।

জানা যায়, উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে দ্বন্দের কারণে মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিষয়ের প্রাক্তন শিক্ষক মো. আল মামুন নির্বাচন স্থগিতাদেশ চেয়ে হাইকোর্টে মামলা দায়ের করেন।

মামলায় বিবাদী করা হয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চে য়ারম্যান, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পরিদর্শক, নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা, সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, সোনারগাঁ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার, মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের তৎকালীন প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী মিয়াকে।

রিট পিটিশন দায়ের করার ফলে ওই স্কুলের গুরুত্বপূর্ন দুটি পদে কোন শিক্ষক নিয়ে দেয়া যাচ্ছে না। এতে করে ওই স্কুলের শিক্ষার্থীদের শিক্ষার মান উন্নয়ন ব্যহত হচ্ছে। এলাকাবাসীর দাবী দ্রুত ওই স্কুলের মামলা নিষ্পত্তি করে নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন কমিটি দায়িত্ব নিয়ে শিক্ষক নিয়োগের মাধ্যমে শিক্ষার মান উন্নয়ন করা দরকার। বর্তমানে ওই স্কুল পরিচালনার জন্য নারায়ণগঞ্জ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. শরিফুল ইসলাম দায়িত্ব নিয়েছেন।

মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জানান, মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে বর্তমানে ৯জন শিক্ষক দিয়ে স্কুলের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এছাড়াও ৯ জন শিক্ষক ননএমপিওভূক্ত রয়েছেন। এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের মধ্যে ৩জন শিক্ষক স্কুল থেকে অন্য পেশায় চলে যায়। ফলে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে।

মহজমপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. সাহাজউদ্দিন মিয়া জানান, ২০১৬ সালে রিট পিটিশন মামলার কারনে স্কুলের পরিচালনা পরিষদের নির্বাচন সম্ভব হচ্ছে না। ফলে স্কুলের প্রধান শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। একটি রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য যেমন সরকার গঠন করতে হয়, তেমনি একটি স্কুল পরিচলনার জন্য নির্বাচিত কমিটির প্রয়োজন। কমিটি না থাকায় স্কুলে উন্নয়নও ব্যাহত হচ্ছে। এলাকাবাসীর সহযোগিতা নিয়ে সমস্যাগুলো সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

রিটকারী প্রাক্তন কম্পিউটার শিক্ষক মো. আল মামুনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নির্বাচনের পরিবেশ না থাকার কারনে নির্বাচনের স্থগিতাদেশ চেয়ে আদালতে রিট করা হয়েছে। তবে আমার পদে শিক্ষক নিয়োগে বাঁধা অভিযোগ সত্য নয়। বিষয়টি আইনগত বিষয়। নিষ্পত্তি হলে হলে আদালতের মাধ্যমেই হতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. শরিফুল ইসলাম বলেন, একটি মামলার কারণে নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত কমিটি অনুমোদন দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ স্কুল পরিচালনা দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর