রোকেয়া স্কুল নিয়ে দুই গ্রুপের উত্তেজনা


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪৫ পিএম, ০৪ জুলাই ২০২০, শনিবার
রোকেয়া স্কুল নিয়ে দুই গ্রুপের উত্তেজনা

নারায়ণগঞ্জ শহরের মাসদাইরে অবস্থিত বেগম রোকেয়া খন্দকার স্কুলের প্রভাব বিস্তার নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের লোকজনদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষকে নিবৃত্ত করতে গিয়েও মৃদু লাঠিচার্জ করে। ৩ জুলাই শুক্রবার রাতে করোনাকালীন এ সময়ে দুই গ্রুপের এমন আচরণে স্থানীয়রাও হতবাক হয়ে গেছেন।

জানা গেছে, দীর্ঘ বছর ধরে রোকেয়া খন্দকার স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান হাবিব। তবে তার বিরুদ্ধেও আছে নানা অভিযোগ। সম্প্রতি এ স্কুলে একজন সাবেক ব্যাংকর বৃক্ষরোপনে উদ্ভুব্ধ করতে ছাদে বনায়নের পরামর্শ দিলেও সেটা গ্রহণ করেননি হাবিব। বরং এ উদ্যোগকে তিনি নেতিবাচক হিসেবে উল্লেখ করে বলেছিলেন, ‘উলুবনে মুক্ত ছড়ানোর প্রয়োজন নাই।’ এছাড়াও হাবিবের বিরুদ্ধে দিন দিন অভিযোগ বাড়ছে।

এ অবস্থায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা সেলিম খন্দকার, নিজাম, আহসান সহ আরো কয়েকজন এসব নিয়ে প্রতিবাদ করেন। এ নিয়ে সম্প্রতি তাদের মধ্যে অনাকাংখিত ঘটনা ঘটে। শুক্রবার রাতে এ নিয়ে উভয় পক্ষ স্কুলের ভেতরে অবস্থান নেয়। দুই পক্ষের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে লিপ্ত হয়।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মাসদাইর এলাকায় ১৯৯৫ সালে ২৭শতাংশ একটি জমি মা বেগম রোকেয়া খন্দকার পৌর উচ্চ বিদ্যালয়ের নামে ক্রয় করেছিলেন ওই সময় পরিচালনা পর্ষদ সভাপতি ও বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। তৎকালীন নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা থেকে ৪লাখ ৫হাজার টাকা মূল্যে ২৭শতাংশের জমিটি ক্রয় করেন তৈমূর যে জমিটির পুরোটাই ছিল গর্ত। যেখানে আরো কয়েক লাখ টাকা খরচ করে সেখানে বালু ভরাট করে সমতল জমি তৈরি করা হয়। আজ যেখানে একটি প্রতিষ্ঠিত উচ্চ বিদ্যালয় গড়ে ওঠেছে। বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের নিয়ম অনুযায়ী পরিচালনা পর্ষদে থাকবে প্রতিষ্ঠাতা ও দাতা সদস্য। তবে ২০১৬ সালের আগস্টে সেই নিয়ম তোয়াক্তা না করে প্রতিষ্ঠাতা ও দাতাকে বাদ দিয়েই বিদ্যালয়টি রাজনীতিকরণের মাধ্যমে পরিচালিত হয় বলে অভিযোগ ওঠেছে। যেখানে তৈমূর আলমের নাম বাতিল দেখানো হয়েছে। পরে অবশ্য তৈমূরের নাম যুক্ত করা হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর