rabbhaban

জনবল সংকটে ধুঁকছে নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন


হাফসা আক্তার, স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:০১ পিএম, ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, রবিবার
জনবল সংকটে ধুঁকছে নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস স্টেশন

যে কোন দুর্ঘটনা মোকাবেলা করতে জনসাধারন সর্বপ্রথম ফায়ার সার্ভিসের সাহায্য প্রত্যাশা করে। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলেই সাধারন জনগণ অনেক ক্ষেত্রেই প্রথমে পুলিশকে খবর না দিয়ে ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়।

আর এদিকে নারায়ণগঞ্জ শিল্প নগরী হওয়ায় নারায়ণগঞ্জে দুর্ঘটনা ঘটার আশংকাও অনেক বেশি। ফলে নারায়ণগঞ্জের ফায়ার সার্ভিসের ইউনিটগুলোকে সবসময় সক্রিয় থাকতে হয়। তবে জনবল কম থাকায় অনেক ক্ষেত্রেই বিপাকে পড়তে হয় ইউনিটগুলোকে।

নারায়নগঞ্জ জেলায় ৪টি ফার্স্ট ক্লাস স্টেশন ও ৪টি সেকেন্ড ক্লাস স্টেশন রয়েছে। নারায়ণগঞ্জ জেলায় প্রায় ২২৮ জন জনবল থাকার কথা থাকলেও আছে প্রায় ১২৪ জনের জনবল। এই স্বল্পসংখ্যকদের দিয়ে পুরো জেলা সামলানো অনেক সময়েই সম্ভব নয়।

দেখা যায় বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে অন্য জায়গা থেকে ম্যানপাওয়ার আনতে হয়। ততক্ষনে নানা ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কারণ এই সামান্য সংখ্যক ম্যানপাওয়ার বড় ঘটনা সামাল দিতে পারে না। মন্ডলপাড়া ফায়ার স্টেশন শহরের একটি ফার্স্ট ক্লাস ফায়ার স্টেশন হওয়ায় এটির ম্যানপাওয়ার থাকার কথা ছিল ৩৫ জন। অথচ এই স্টেশনেই ম্যানপাওয়ার ২২ জন। সেকেন্ড ক্লাস স্টেশন গুলোতে দেখা যায় ২২ জন করে ম্যান পাওয়ার থাকার কথা থাকলেও রয়েছেন ম্যান পাওয়ার রয়েছে ৮ থেকে ১৬ জন।

‘আমরা নিজেদের ছুটি বাদ দিয়ে ডিউটি করি। বছরে একটা দিন বাড়িতে যাবো সেই ছুটিটাও পাই নাই। এই জনবল সংকটের কারণে আমাদের অনেকেই বাৎসরিক ছুটিটাও পায় না। আবার আমাদের কোনো কাজে যেতে হলে আশেপাশের স্টেশন থেকেও জনবল আনতে হয়।’ বলে আক্ষেপ করছিলেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মন্ডলপাড়া স্টেশনের একজন ফায়ারম্যান।

মন্ডলপাড়া ফায়ার স্টেশনের স্টেশন অফিসার সানাউল হক নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ‘আমাদের গাড়ি দেয়া হয়েছে ৬টা। এই একেকটা গাড়ি সামলাতে লাগে ৬ জন করে। তো আমাদের কমপক্ষে ৩৫ জন থাকা প্রয়োজন। অথচ আমাদের লোকই আছে মাত্র ২২ জন। লোকবল কম থাকার কারণে দেখা গত ৮ জুলাইতে যে ট্রলারডুবির ঘটনা ঘটে তার জন্য আমাদের পর্যাপ্ত লোকবল না থাকায় ঢাকা থেকে লোকবল আনতে হয়েছে। দেখা যায় এই জনবল সংকটের ফলে অনেক সময় ফায়ারম্যানরা ছুটিও পায়না ঠিক মতো। এমনকি আমি নিজেও অনেকবছর ধরে ঈদে ছুটি পাইনি। এরা ঠিক মতো রেস্ট টাও পায়না।’

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারি পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ আল আরেফীন বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মতো শিল্প নগরী হিসেবে জনবলের আরো প্রয়োজন ছিল। তবে সারা বাংলাদেশেই মাত্র ৮০০০ ফায়ারম্যান রয়েছে এবং তার মধ্যে মাত্র ২৫ জন ডুবুরি। আসলে নদী পথে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তার দায়ীত্ব নৌবাহিনীর। যদিও সেখানেও নৌবাহিনী থেকে ফায়ারম্যানদেরই বেশি দেখা যায়। তবে সারাদেশ ব্যাপি ফায়ারম্যান নিয়োগ চলছে।’

প্রায় কতদিনের মধ্যে এই জনবল সংকট সমাধান হতে পারে তা জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ‘একটু সময় তো লাগবে। তবে এই ব্যপারে ডিরেক্টর জেনারেলের সীদ্ধান্তই চূড়ান্ত সীদ্ধান্ত।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
rabbhaban
আজকের সবখবর