rabbhaban

আড়াইহাজারে চলছে গরু মোটাতাজা করণ


আড়াইহাজার করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৪:১৭ পিএম, ২০ জুলাই ২০১৯, শনিবার
আড়াইহাজারে চলছে গরু মোটাতাজা করণ

ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় স্বাভাবিক নিয়মেই চলছে কোরবানির পশু মোটাতাজা করণের কাজ। উপজেলার প্রতিটি গ্রামেই কম বেশী চলছে গরু মোটাতাজকরণের কাজ।

জানা গেছে, এবছর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ৬শ ১৩টি খামারে মোটাতাজা করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, অধিদফতরের হিসেবের বাইরেও শত শত গবাদি পশু এলাকায় মোটাতাজা করা হচ্ছে। উপজেলার কল্যান্দী গ্রামের বাসিন্দা মাহিন ডেইরী ফার্মের মালিক আবুল বাশার বলেন, তিনি এবছর ৮০টি বিভিন্ন সাইজের গরু স্বাভাবিক নিয়মে মোটাতাজা করছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি প্রতি বছরই কোন প্রকার নিষিদ্ধ ওষুধ ছাড়াই গরু মোটাতাজা করে হাটে বিক্রি করে থাকি। এতে লাভবানও হওয়া যায়। আমার মত আরো অনেকে এইভাবেই কোরবানির পশু মোটাতাজা করছেন।’

আবুল বাশার আরো বলেন, ‘আমি পশুকে ভাতের ঝাউ, ভূষি, খৈল ও কাঁচা ঘাস খাওয়াচ্ছেন। এতে তার গরুগুলো বেশ ভালো ভাবেই বেড়ে উঠছে।’ তিনি বিভিন্ন পরামর্শের জন্য উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন।

উপজেলা কাদিরদিয়া গ্রামের হানিফ জানান, তিনি প্রতিবছরই গরু মোটাতাজা করে থাকেন। এবছর তিনি ২৭টি গশু মোটাতাজা করছেন। তবে কোনো বড়ি বা ইনজেকশনের ব্যবহার ছাড়াই তিনি গরুগুলোকে বিক্রির জন্য উপযুক্ত করে গড়ে তুলছেন।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের ভেটেরিনারী সার্জন ডা. শামীম আহমেদ বলেন, পশুকে অতিরিক্ত স্টেরয়েডের মাধ্যমে মোটাতাজা করা হলে পশুর শরীরে পানি জমাট হবে, গিড়া ফুলে যাবে, লিভার ফলে যাবে, পশু’র ঘুম ঘুম ভাব হবে, চোখ দিয়ে অনবরত পানি ঝড়বে ও পশু বেশীক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারবে না।

তিনি আরও বলেন, স্টেরয়েড পশুর দেহে ব্যবহারের ফলে পশু তিন মাসের মধ্যেই দ্বিগুণ আকার ধারন করে থাকে। যার ফলে আড়াইহাজারের গরু ব্যবসায়ীরা এই সকল ওষুধ যাতে ব্যবহার না করেন সেই পরামর্শ দিয়ে থাকি।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. কাউছার বলেন, কোরবানির পশু মোটাতাজা করণের ক্ষেত্রে আমরা পশুকে কাঁচা ঘাস, ভূষি ও প্রচুর পরিমাণে বিশুদ্ধ পানি খাওয়ানোর পরামর্শ দিয়ে থাকি।

তিনি আরও বলেন, ‘বিশেষ ক্ষেত্রে ক্যাটেলফিড (দানাদার) খাবার খাওয়ানো যেতে পারে। কোরবানির পশু মোটাতাজা করণে স্টেরয়েড ব্যবহার দন্ডনীয় অপরাধ। নিষিদ্ধ ওষুধ ব্যবহার না করার জন্য আমরা এলাকায় ক্যাম্পেইন পরিচালনা করছি। স্থানীয় পশু’র হাটগুলোতেও বাড়তি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। তারপরও যদি কেউ এর ব্যত্যয় ঘটায় তাহলে তার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর