rabbhaban

কাজীদের বিরুদ্ধে মাসে বাল্য বিয়ে রেজিস্ট্রির অভিযোগ


সোনারগাঁ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৩৪ পিএম, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
কাজীদের বিরুদ্ধে মাসে বাল্য বিয়ে রেজিস্ট্রির অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের শম্ভুপুরা ইউনিয়নে প্রতি মাসে মোটা অংকের টাকা নিয়ে মাসে ৭-৮টি বিয়ে রেজিস্ট্রি করার অভিযোগ উঠেছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা। তারা জানিয়েছেন, সরকার বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে সভা সেমিনার করলেও অর্থ লোভী কাজিদের কারনে এ বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ করা সম্ভব হচ্ছে না।

জানা যায়, শম্ভুপুরা ইউনিয়নে ২ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে তার র্দূগা প্রসাদের বাড়িতে ভাটের চর এলাকার এক অপ্রাপ্ত বয়সের মেয়েকে দুঘঘাটা গ্রামের ফজর আলীর ছেলে মোফাজ্জলের সাথে বাল্য বিয়ের রেজিস্ট্রি করানো হয়। আগামী  শুক্রবার বরযাত্রী হয়ে ভাটের চর এলাকা থেকে ওই অপ্রাপ্ত বয়সের মেয়ে তুলে আনা হবে। প্রশাসনিক জটিলতা এড়ানোর জন্য গোপনে এ বিয়ে রেজিস্ট্রি হয়। গত ২১ আগষ্ট শম্ভুপুরা ইউনিয়নের কাজিরগাঁও গ্রামের কুদ্দুস মিয়ার ছেলে রোমানের সাথে একই গ্রামের জাকির হোসেনের মেয়ে জান্নাতুল ফোরদৌসীর বিবাহ রেজিস্ট্রি করা হয়। এ বিয়েও গোপনে তার বাড়িতে এনে ২৫ হাজার টাকা নিয়ে রেজিস্ট্রি করানো হয়।

তাহেরপুর হাজী লাল মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহাদ মিয়া জানান, বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে প্রশাসনের পাশাপাশি আমরা ব্যাপকভাবে কাজ করে যাচ্ছি। কাজীদের কারণে বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। রাতের আধারে টাকার বিনিময়ে কাজীরা বাল্য বিয়ে দিয়ে প্রশাসনের লক্ষ্য ভেঙ্গে করে দিচ্ছে।

অভিযুক্ত কাজী মামুনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে তার বাড়ি গিয়ে কথা বলার জন্য প্রস্তাব দেন।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, যে কাজীরা টাকার বিনিময়ে বাল্য বিয়ে পড়াবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, কোন ভাবেই বাল্য রেজিস্ট্রি করতে দেয়া যাবে না। বাল্য বিয়ের প্রমাণ পাওয়া গেলে ওই কাজীকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে জেল জরিমানা করা হবে। পাশাপাশি ওই কাজীর সনদ বালিত করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর