নারায়ণগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের সামনেই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪৩ পিএম, ৩১ জুলাই ২০১৯, বুধবার
নারায়ণগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের সামনেই অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ

‘নিজ আঙ্গিনা পরিষ্কার রাখি, সবাই মিলে সুস্থ থাকি’ প্রতিপাদ্য বিষয়ে দেশব্যাপী এক যোগে পালিত হচ্ছে মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা সপ্তাহ। এ উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জে জেলা প্রশাসন ও সিটি করপোরেশনসহ বিভিন্ন সরকারী সংস্থার উদ্যোগে মশক নিধন ও পরিচ্ছন্নতা সপ্তাহ পালিত হচ্ছে। তবে নারায়ণগঞ্জে আদালতপাড়া এলাকায় অবস্থিত স্বাস্থ্য বিভাগের অর্থাৎ জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের সামনেই বিরাজ করছে অস্বাস্থ্যকর ও অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ। যেখানে রয়েছে দু’টি আদালত সহ জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও সিভিল সার্জনসহ সরকারী ৭টি গুরুত্বপূর্ণ বিভাগের জেলা কার্যালয়।

জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জের হাসপাতালগুলোতে বেড়ে চলেছে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। ২ দিনের ব্যবধানে নারায়ণগঞ্জের দু’টি সরকারি হাসপাতালে ১৯ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছে। এছাড়া ১৫ দিনের ব্যবধানে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে নারায়ণগঞ্জের বাসিন্দা ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে একজন নারায়ণগঞ্জের একটি বেসরকারী ক্লিনিকে আর অপর ২জন রাজধানীর ২টি হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন। যেকারণে সারাদেশের ন্যায় নারায়ণগঞ্জেও বিরাজ করছে ডেঙ্গু আতঙ্ক।

মঙ্গলবার বিকেলে সরেজমিনে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পেছনের দিকে জেলা সিভিল সার্জন অফিসের সামনে গিয়ে দেখা যায় ড্রেনের মধ্যে নোংরা পানি জমে রয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন অফিস ও গণপূর্তের অফিসের সামনে বিরাজ করছে জলাবদ্ধতা। পুলিশ সুপার ও সিভিল সার্জনের বাসভবনের সামনে পানি না মাড়িয়ে যাওয়ার উপায় নেই। ড্রেনগুলোতে বিরাজ করছে নোংরা পানি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের ফতুল্লার চাঁদমারী এলাকায় একটি বাউন্ডারী দেয়ার ভেতরে অবস্থিত দু’টি আদালতসহ সরকারের ৭টি গুরুত্বপূর্ণ সংস্থার জেলা কার্যালয়। এগুলো হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত, চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত, নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপারের কার্যালয়, নারায়ণগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জনের কার্যালয়, গণপূর্তের নারায়ণগঞ্জ নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয়, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) এর কার্যালয়, জেলা হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তার কার্যালয়। এছাড়াও রয়েছে জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যালয় যেটি নির্মানাধীন রয়েছে। রয়েছে সার্কিট হাউস, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন ও গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলীর বাসভবন। ফলে নর্দমার পানিতে গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বিরাজ করছে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ।

এ বিষয়ে জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোঃ ইমতিয়াজ বলেন, ড্রেনগুলোতে নোংরা পানি জমে থাকা ও জলাবদ্ধতার বিষয়ে আমাদের কিছু করনীয় নেই। জেলা আইনজীবী সমিতির ভবন নির্মাণের পাইলিং এর মাটিতে ড্রেন ভরে গিয়ে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। আমি বিষয়টি নিয়ে গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলীর সঙ্গে আলোচনা করেছি। তিনি আরেকটি ড্রেন নির্মাণ করে দেয়ার বিষয়ে সম্মত হয়েছেন। তখন আর সেখানে জলাবদ্ধতা থাকবেনা বলে আশা করছি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর