rabbhaban

হাসপাতালের ভেতরে মঞ্চ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪২ পিএম, ৩০ আগস্ট ২০১৯, শুক্রবার
হাসপাতালের ভেতরে মঞ্চ

অসুস্থ রোগীদের সামনে উচ্চ স্বরে শব্দ না করতে চিকিৎসকরাই বারণ করে থাকেন। ডেঙ্গু ও ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত রোগীদের কারণে হাসপাতালটিতে শয্যা না পেয়ে ফিরতে হচ্ছে অনেক রোগীকে। অথচ তিনশত শয্যাশায়ী রোগীদের পাশেই শোক দিবসের অনুষ্ঠানের নামে শোডাউনের আয়োজন করতে যাচ্ছে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ। যা নিয়ে উঠেছে সরব সমালোচনার ঝড়। যেখানে তৈরী করা হয়েছে বিশাল মঞ্চ ত্রবং সাউন্ড সিষ্টেমের ব্যবস্থা।

জানা গেছে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার আয়োজনে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের অভ্যন্তরে আউটডোর বিভাগের সামনে শনিবার ৩১ আগষ্ট দুপুর ২টায় আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা ও সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের আওয়ামীলীগ দলীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান ও মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, হাসপাতালটির প্রবেশ ফটকের পাশে একটি ব্যানারে অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হওয়ার জন্য দৃষ্টি আকর্ষণ করে একটি ব্যানার সাটানো রয়েছে। যাতে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথির নাম লেখা রয়েছে। এছাড়া ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের অভ্যন্তরে আউটডোর বিভাগের সামনে বাশ গেথে বিশালাকারের মঞ্চ প্রস্তুত করা হচ্ছে। এর উপর তিরপাল সাটানোর কাজ চলছে। ডেকোরেটর কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মঞ্চে একাধিক সাউন্ড সিস্টেম ও মাইকও লাগানো হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, চলতি বছরের ৩০ এপ্রিল কেন্দ্রীয় সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ এম ইকবাল আর্সলান ও মহাসচিব অধ্যাপক ডাঃ এম.এ. আজিজ এর আদেশক্রমে কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক ডাঃ মোঃ এহসান উদ্দিন খান স্বাক্ষরিত বিশেষ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ডাঃ চৌধুরী মোঃ ইকবাল বাহার কে সভাপতি এবং ডাঃ বিধান চন্দ্র পোদ্দার কে সাধারণ সম্পাদক হিসাবে নারায়ণগঞ্জ জেলা শাখার নবগঠিত কমিটি অনুমোদন করা হয়। যদিও এর পাশাপাশি অপর একটি কমিটিও কেন্দ্র থেকে ঘোষণা দেয়া হয়।

এদিকে ইকবাল আর্সলান ও এমএ আজিজ ঘোষিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডাঃ বিধান চন্দ্র পোদ্দার নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে রয়েছেন। অভিযোগ রয়েছে ক্ষমতার দাপটে হাসপাতালে তিনি বিভিন্ন কাযক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এমনকি হাসপাতালে ডিউটি করার বিষয়টি তার মনগড়া মত পালন করে থাকে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা যখন কমে আসছে তখনই আবার নতুন করে বৃদ্ধি পেয়েছে শিশু রোগীর সংখ্যা। তবে সেটা ডেঙ্গু নয় ঠান্ডা, জ্বর, নিউমোনিয়া সহ অন্যান্য রোগে আক্রান্ত। আর হঠাৎ করে রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় হিমশিম খেতে হচ্ছে খানপুরের ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে। পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকা সহ অনেক শিশুকে ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। তবে কর্তৃপক্ষের দাবি নতুন ভবন নির্মাণাধীন থাকায় এ ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। যা ভবন না হওয়া পর্যন্ত শেষ হবে না। তারা চিকিৎসায় কোন প্রকার ত্রুটি রাখছেন না।

এদিকে চিকিৎসকরাই যেখানে রোগীদের সামনে উচ্চ স্বরে কথা বলতে বারণ করেন সেখানে হাসপাতালের অভ্যন্তরে উচ্চ ভলিউমের সাউন্ডসিস্টেমের মাধ্যমে কর্মসূচীতে রোগীরা মারাত্মক শব্দ দূষণে ভুগবেন বলেই মনে করছেন সচেতন মহল। চিকিৎসক নেতাদের এহেন কান্ডের কারণে সর্বত্র উঠেছে সমালোচনার ঝড়।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ যেহেতু চিকিৎসকদের সংগঠন। তারা এত সচেতন ব্যক্তি হয়ে কি করে হাসপাতালের ভিতরে এই ধরনের অনুষ্ঠান করার জন্য সিদ্ধান্ত নিলেন এ ধরনের মন্তব্য করেছেন সচেতন মহল। অথচ শহরের বিভিন্ন স্থানে অন্ষ্ঠুান করার পযাপ্ত ব্যবস্থা থাকলেও তারা কেন ব্যবস্থা নেয়নি একাধিক রোগী সহ স্বজনরা অভিযোগ করেন। এ ব্যাপারে হাসপাতালের সুপার ডাঃ আবু জাহেরের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর