paradise

আমি নিজেও এমপি প্রার্থী হতে পারি : চন্দন শীল


সিটি করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৪২ পিএম, ১১ আগস্ট ২০১৮, শনিবার
আমি নিজেও এমপি প্রার্থী হতে পারি : চন্দন শীল

জাতীয় নির্বাচনের পরিস্থিতি নিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ভাবনা বিষয়ে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ডিবিসির ‘ইলেকশন এক্সপ্রেস : নারায়ণগঞ্জ-৪’ পর্বের অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি চন্দন শীল বক্তব্য রেখেছেন। বক্তব্যের এক পর্যায়ে তিনি বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে হয়তো আমি নিজেও প্রার্থী হতে পারি। কিন্তু সেটা মুখ্য না। মুখ্য হলো প্রধানমন্ত্রী কাকে মনোনয়ন দিবেন সেটা।’

চন্দন শীল একই সঙ্গে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি। ২০০১ সালের ১৬ জুন তিনি চাষাঢ়া আওয়ামী লীগ অফিসে বোমা হামলায় দুই পা হারান।

চন্দন শীল বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম ওসমান। তিনি ৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত এই আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি এই আসনের একজন শক্তিশালী প্রার্থী। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে যে তিনি সংসদ সদস্য হওয়ার পরে ৯৬ থেকে ২০০১ পর্যন্ত রেকর্ড পরিমাণে ২৬শ কোটি টাকার উন্নয়ন করেছিলেন। এবার সংসদ সদস্য হওয়ার পরও তিনি ঘোষণা দিয়েছিলেন সেই রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবেন। ইতোমধ্যে তিনি ৭ হাজার ২’শ কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড এ এলাকাতে করেছেন। আর সবচেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে যে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের কমিটি আছে, মহানগর আওয়ামীলীগের কমিটি আছে, বিভিন্ন ইউনিটের কমিটি আছে। নারায়ণগঞ্জের আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা শামীম ওসমানের নেতৃত্বে কাজ করে থাকেন এবং শামীম ওসমান হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের কান্ডারী, শুধু কান্ডারী না, নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী পরিবারের অহংকার।’

এক প্রশ্নের জবাবে চন্দন শীল বলেন, ‘আমি দ্বন্দ্বটা আমি মানছি না। এখানে প্রচুর প্রার্থী আছে, আওয়ামীলীগ একটা বিশাল সংগঠন। এখানে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা আছে প্রচুর প্রার্থী আছে। আমি নিজেও আশা করি আমি নিজেও প্রার্থী হতে পারি। কিন্তু সেটা এখানে মুখ্য বিষয় হবে না। আমাদের প্রিয় নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা  ইতোমধ্যেই আমাদের তৃণমূলের নেতৃবন্দকে নিয়ে বিশেষ বর্ধিত সভা করেছেন। সারা বাংলাদেশের যত আমাদের জনপ্রতিনিধি যারা আছে তাদেরকে নিয়ে তিনি বর্ধিত সভা করেছেন। নির্দেশ দিয়েছেন আমরা যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতি করি জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে রাজনীতি করি তাদের কাছে শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তই হচ্ছে চূড়ান্ত। নেত্রী আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রার্থী অনেকেই হবে কাজ করুন। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশের উন্নয়ন হয়। আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন হয়, আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশ এগিয়ে যায়, যার প্রমাণ জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে হয়েছে। আজকে সারা পৃথিবী জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসায় পঞ্চমুখ।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
rabbhaban
আজকের সবখবর