rabbhaban

ডিম ভেজে না দেওয়ায় বোস কেবিনে তাণ্ডব


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:১৪ পিএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার
ডিম ভেজে না দেওয়ায় বোস কেবিনে তাণ্ডব

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী বোস কেবিন রেস্তোরায় তান্ডব চালিয়েছেন উৎসব পরিবহনের পরিচালক শহিদুল্লহার বাহিনীর সদস্যরা। এসময় তারা বোস কেবিন রেস্তোরা বন্ধ করে দেওয়ার হুমকিও দেয়া হয়। ফলে সকালের নাস্তা করতে আসা অর্ধশতাধিক মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। পরে স্থানীয়দের সহায়তায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

১৭ নভেম্বর শনিবার সকাল ১১টায় দুই ডিম ভেজে না দেওয়াকে কেন্দ্র করে ওই ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় রীতিমতো নাস্তাকরতে আশা সাধারণ মানুষের মধ্যে ভীতির সৃষ্টি হয়। তারা এ কর্মকান্ডকে ‘সন্ত্রাসী কর্মকান্ড’ হিসেবে আখ্যায়িত করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রতিদিন ভোর থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের খাবার ও চা বিক্রি হয় বোস কেবিন নামে প্রাচীন এ রেস্তোরায়। ফলে সকাল থেকে রাত অবধি রাজনীতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সহ বিভিন্ন শ্রেনির পেশার লোকজনের পদচারণায় মুখোরীত থাকে বোস কেবিন। প্রতিদিনের মতো শনিবার সকাল পৌনে ১১টায় বোস কেবিনে বাইরে থেকে দুটি ডিম নিয়ে আসেন উৎসব পরিবহনের এক বাসের হেলপার (নাম জানা যায়নি)। পরে বোস কেবিনের কর্মকর্তাকে ডিম দুটি ভেজে দেওয়ার জন্য বললে তাতে অস্বীকৃতি জানায় বোস কেবিনের মালিক তারক বোস।

তখন হেলপার হুমকি ধমকি দিয়ে বলেন,‘এ ডিম উৎসব পরিবহনের মালিক শহিদুল্লাহ খাবেন’। কিন্তু তাতেও অস্বীকার করলে ওই হেলপার মোবাইলে জানালে (অজ্ঞাত) ২০ থেকে ২৫জন বাসের শ্রমিক বোস কেবিনে এসে হুমকি ধমকি দিতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে বোস কেবিনের মালিক ও কর্মচারীদের ধরে নেওয়ার জন্য দোকানের ভিতরে তা-ব শুরু করে। শুধু তাই নয় দোকানের সাটার নামিয়ে তালা দেওয়ার জন্যও উপক্রম হয়। আর তখনই দোকানে আসা অর্ধশতাধিক ক্রেতা নাস্তা ফেলে বাইরে বের হয়ে আসতে বাধ্য হয়।

ঘটনার সময় নাস্তা খেতে আসা নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগে সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য জাহাঙ্গীর আলম, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি আনিসুর রহমান দিপু, কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও বন্ধন পরিবহনের পরিচালক আইয়ুব আলী সহ অর্ধশতাধিক উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামীলীগের নেতারা জানান, উৎসব পরিবহনের পরিচালক শহিদুল্লাহ দীর্ঘ দিন ধরে পরিবহন সেক্টর নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। তারই বাহিনী এ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে শহিদুল্লার মোবাইলে ফোন দেয় জাহাঙ্গীর আলম। পরে শহিদুল্লাহ তার নেতাকর্মীদের চলে যেতে পরে ডিম নিয়ে ফেরত যায় সন্ত্রাসীরা।

বোস কেবিনের মালিক প্রয়অত ভুলুবাবুর নাতি বর্তমান কর্ণদার তারক বোস ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, কি ঘটনা হয়েছে সেটা সকলে দেখেছেন। এগুলো সম্পর্কে আর কিছু বলার নেই।

তবে উৎসব পরিবহনের পরিচালক শহিদুল্লাহর মোবাইলে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

প্রসঙ্গত ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে ৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৭১’র মুক্তিযুদ্ধ সহ স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে বোস কেবিনের উপর কোন হামলার ঘটনা ঘটেনি। এছাড়াও দেশের ও দেশের বাইরের অসংখ্য গুণীব্যক্তিরা এখানে এসে চা পান করেছেন। এখনও নারায়ণগঞ্জের প্রবীন ও নবীন সকল বয়সী রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক সংগঠনের ব্যক্তিরা এখানে চা পান করেন, আড্ডা দেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর