rabbhaban

লাশের মিছিলে বাড়ছে খুন


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:২৪ পিএম, ২১ মার্চ ২০১৯, বৃহস্পতিবার
লাশের মিছিলে বাড়ছে খুন

নারায়ণগঞ্জে গুম খুনের ঘটনায় রহস্যজনক ও লোমহর্ষক ঘটনার তথ্য বেরিয়ে আসছে। এছাড়া লাশ উদ্ধারের ঘটনাগুলোর তদন্তে খুনের মত পৈশাচিত ঘটনার মুখোশ উন্মোচিত হচ্ছে। এতে করে মায়ের বুক খালি করে লাশের মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে।

১৪ মার্চ থেকে ২১ মার্চ পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে খুন ও লাশ উদ্ধারের ঘটনার সচিত্র তুলে ধরা হল। এ সপ্তাহে ১টি খুন ও ৩টি লাশ উদ্ধারের ঘটনা ঘটেছে।

১৭ মার্চ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলায় আল-আমিন (৩২) নামে পুলিশ সোর্সের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। রোববার সকালে উপজেলা পৌরসভার লাহাপাড়া এলাকার একটি লিচু বাগান থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এলাকাবাসী জানায় সোর্স আল আমিন সোনারগাঁ থানার এসআই শামিম ও আবুল কালাম আজাদের সোর্স হিসেবে কাজ করত।

সোনারগাঁ থানা পুলিশ জানায়, উপজেলার পৌরসভার লাহাপাড়া এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে আল-আমিন সোনারগাঁ থানা পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করতো। এছাড়া সে মাদকাসক্ত ছিল। রবিবার সকালে এলাকাবাসী তার বাড়ির পাশের সেনারবাগ লিচু বাগানে একটি গাছের সাথে গলায় বেল্ট পেচানো অবস্থায় তার লাশ দেখতে পায় আশপাশের লোকজন। এসময় তারা পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ গাছের নিচ থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেলা মর্গে প্রেরণ করে। পুলিশের ধারণা কেউ তাকে গলায় দড়ি পেচিয়ে হত্যা করে লাশ গাছের সাথে ঝুলিয়ে রেখেছে। এ ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

১৩ মার্চ রূপগঞ্জে ভোলাব ইউনিয়নের টাওড়া এলাকায় রাজনৈতিক প্রতিহিংসার জেরে স্থানীয় ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা সোহেল মিয়া (২৭) ছাত্রলীগ নেতার পায়ের রগ কেটে ও পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নিহত সোহেল মিয়া ভোলাব ইউনিয়ন ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। তিনি টাওড়া এলাকার মজিবুর রহমানের ছেলে।

নিহত সোহেল মিয়ার বাবা মজিবুর রহমান জানান, গত বুধবার রাত ৯টার দিকে সোহেল মিয়া ও তার বন্ধু সিরাজ মিয়া টাওড়া বাজার থেকে নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন। আদর্শ বিদ্যাপীঠ নামের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে আসামাত্র ভোলাব ইউনিয়ন ১নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শরীফের নেতৃত্বে লোকমান, কামাল, সাদ্দত আলী সহ ৫/৭ জন জন মিলে সোহেল মিয়াকে জোরপূর্বক উঠিয়ে বিলের দিকে নিয়ে গিয়ে দুই পায়ের রগ কেটে দেয়। এছাড়া পিটিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশ থেতলে দিয়ে রাস্তার পাশে ফেলে রাখে। এসময় সোহেলের বাবা মজিবুর রহমান দৌড়ে গিয়ে দেখতে পান ইউপি সদস্য শরীফ, লোকমান, কামাল, সাদ্দত আলীসহ আরো কয়েকজন সোহেলকে ফেলে রেখে পালিয়ে যাচ্ছে। পরে সোহেলকে মুমুর্ষ অবস্থায় প্রথমে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিৎসার জন্য ও পরে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠায় চিকিৎসকরা কিন্তু হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যায় সোহেল।

১৪ মার্চ বন্দর উপজেলায় পূর্ব কেওঢালা পুকুনিয়াবাড়ী এলাকায় ভাড়া বাসা থেকে লিপি আক্তার (৩০) নামের গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এলাকাবাসী জানান, লিপি আক্তারের প্রথম বিয়ের পর ৭ বছরের এক ছেলে সন্তানসহ তালাক দেন মাঈনউদ্দিনকে। ছেলে জুবায়েরকে সঙ্গে নিয়ে পারিবারিক ভাবে দ্বিতীয় বিয়ের পিড়িতে বসে লিপি। বিয়ের পর থেকে স্বামী পরশ আলীকে নিয়ে বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউপির পূর্ব কেওঢালা পুকুনিয়াবাড়ি আনোয়ার হোসেনের ভাড়া বাড়িতে এক বছর যাবত বসবাস করছেন। বৃহস্পতি দুপুরে সাবেক শাশুড়ি নাতিকে দেখতে আসেন ভাড়াটিয়া বাড়িতে। দেখতে আসাকে কেন্দ্র করে লিপি আক্তারের মায়ের সঙ্গে ঝগড়া হয়। পরে লিলি আক্তার ভাড়া বাসার কক্ষের ভেতর থেকে দরজা লাগিয়ে ঘরের আড়ার সঙ্গে রশি দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। জানালা দিয়ে লিপি আক্তারের লাশ ঝুলতে দেখে এলাকাবাসী পুলিশকে খবর দেয়।

১৫ মার্চ ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনারগাঁয়ের পিরোজপুর ইউনিয়নের আষাঢ়িয়ার চর ব্রীজের নীচ থেকে তোফাজ্জল হোসেন বাবুল নামের এক সৌদী প্রবাসীর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত বাবুলের ফুফাতো ভাই মিলন জানান, দীর্ঘ এক বছর পর বৃহস্পতিবার রাতে সৌদি-আরব থেকে তোফাজ্জল হোসেন বাবুল দেশে ফিরেছেন। বাবুলের দুই মেয়েসহ তার স্ত্রী মুন্নি আক্তার তাকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রিসিভ করে নিজ বাড়ি নোয়াখালীর উদ্দেশ্যে রওনা হন। পথে মহাসড়কের আষাঢ়িয়ার চর ব্রীজের কাছে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিলে সে গাড়ি থেকে নেমে যান। দীর্ঘ সময় ফিরে না আসায় খোঁজাখুজি করে স্ত্রী ও মেয়েরা বাড়িতে চলে যান। সকালে ব্রীজের নীচে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয় এলাকাবাসী।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ‘লাশ আর লাশ, লাশের মিছিলে প্রতিনিয়ত খুনের ঘটনার তথ্য উন্মোচিত হচ্ছে। এক একটি লাশ উদ্ধারের ঘটনায় নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য রেরিয়ে আসছে। আর তাতে করে স্বজনহারাদের আহাজারিতে আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে। এসব ঘটনায় অপরাধীরা ধরা পড়লেও অনেক সময় আইনের ফাঁক দিয়ে অনেক অপরাধীরা অধরা থেকে যায়। এতে করে নতুন নতুন খুনের ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা সৃষ্টি হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর