rabbhaban

শহরের অভিজাত রেস্টুরেন্টের নিম্নমানের পরিবেশনা


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:১৩ পিএম, ১০ মে ২০১৯, শুক্রবার
শহরের অভিজাত রেস্টুরেন্টের নিম্নমানের পরিবেশনা ফাইল ফটো

নারায়ণগঞ্জের অভিজাত শ্রেনীর রেস্টুরেন্ট এবং সুপারশপগুলোকে কিছুদিন পর পর নিন্মমানের পন্য বিক্রির অভিযোগে জরিমানা করা হলেও কাংখিত সুফল মিলছে না। ভোক্তাদের সুরক্ষা দিতে ভেজাল বিরোধী অভিযান চালিয়ে পঁচা বাসি ও নিন্মমানের পন্য জব্দ করলেও পুনরায় একই অপরাধ ঘটিয়ে চলছে এসকল অভিজাত প্রতিষ্ঠানগুলো। আর এতে করে খাদ্যপন্যের উপর আস্থা রাখতে পারছেন না ভোক্তারা।

এবারের রমজানের শুরু থেকেই ভেজাল বিরোধী অভিযানে সক্রিয় রয়েছে প্রশাসন। রমজানের পূর্বেই পঁচা খেজুরের বিশাল স্টক জব্দ করে আলোচনায় চলে আসে অসাধু ব্যাবসায়ীদের কারসাজি। রমজানকে কেন্দ্র করে বিপুল পরিমাণ পঁচা ও ভেজাল দ্রব্য বাজারজাত করার জন্য উঠে পরে লাগা একদল চক্রকে ঠেকাতেও প্রায় নিত্যদিনেই অভিযান পরিচালনা করছে প্রশাসন। আর এর মাধ্যমেই শহরের নামীদামী ও অভিজাত রেস্টুরেন্টগুলোর থলের বেড়াল বেরিয়ে আসছে।

শহরের বাজার পর্যালোচনা করে দেখা যায়, সারা বছর এবং ইফতারের মুখরোচক খাবারের পছন্দে ক্রেতারা অধিকাংশ সময়েই সুগন্ধা, সুমাইয়া, বৈশাখী, প্যারিস বাগেট, বনফুল সহ বিভিন্ন অভিজাত বেকারী ও রেস্টুরেন্টের খাবারের প্রতি ঝুঁকে থাকে। আর এই সুযোগেই অতি মুনাফার লোভে খাবারে ভেজাল মিশ্রিত করে ভোক্তাদের পরিবেশন করে আসছে এসকল প্রতিষ্ঠান গুলো। একই সাথে শহরের সুপার শপ ‘স্বপ্ন’ বিভিন্ন পচা খাদ্য পন্য বাজারজাত করে ক্রেতাদের ঠকিয়ে আসছিলো। মূলত বিভিন্ন পন্য বাজার মূল্যের চাইতে কমদামে ছাড় দিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতো ‘স্বপ্ন’। 

এসকল কারসাজি রোধে ভেজাল বিরোধী ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ভ্রাম্যমান আদালত। রোজার প্রথম দিনেই ৩ টি প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করেন নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাহিদা বারিক।

এসময় খাবার ঢেকে না রাখা এবং মূল্য তালিকা না রাখায় ভ্রাম্যমান আদালত শহরের সুগন্ধা প্লাসকে ২০ হাজার টাকা, বৈশাখী হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টকে ৫ হাজার টাকা ও সুমাইয়া হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্টকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করে।

৯ মে শহরের অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোসাম্মৎ রহিমা আক্তার, শেখ মেজবাহ উল সাবেরিন ও নুসরাত তারা খানম, এসময় পঁচা মাছ, মাংস ও মশলা সহ অতিরিক্ত মূল্য রাখার অপরাধে নারায়ণগঞ্জ শহরের মিশনপাড়া এলাকায় ডিপার্টমেন্টাল স্টোর ‘স্বপ্ন’ কে ৫০ হাজার টাকা, বনফুল মিষ্টির দোকানে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে মিষ্টি সহ বিভিন্ন খাবার তৈরি করার অপরাধে ১০ হাজার টাকা এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরি, নিম্নমানের উপকরণ ব্যবহারের অপরাধে প্যারিস বাগেতকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে কোয়েল পাখি, কবুতর বিক্রি নিষেধ ও দ্রব্য মূলের দাম সঠিক ভাবে নির্ধারণ সহ পঁচা পণ্য দ্রব্য বিক্রি না করতে কঠোর হুশিয়ারী দেওয়া হয়।

এর আগেও বিভিন্ন সময় এসকল প্রতিষ্ঠানগুলোকে জরিমানার মুখোমুখি হতে হয়েছে। একের পর এক জরিমানার মুখোমুখি হলেও কাঙ্ক্ষিত ভোক্তা সেবা কেন মিলছে না সেটি এখন প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে ক্রেতাদের নিকট। ক্রেতারা অভিজাত এসকল প্রতিষ্ঠানে ভরসা করে পন্য ক্রয় করলে সেই ভরসাকে পুঁজি করে অবৈধ মুনাফা হাতিয়ে নেয়ার লোভ সংরক্ষণ করতে ব্যার্থ হচ্ছে। পবিত্র রমজান সহ সারাবছর খাবারের সঠিক মান বজায় রাখতে প্রশাসনের কার্যক্রম নিয়মিত জোরদার রাখার দাবী রাখছেন সকলে।

 

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর