rabbhaban

আরেকটি ইতিহাসের সাক্ষী হতে চলেছে নারায়ণগঞ্জের বৃহৎ ঈদ জামাত


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৫:৩৫ পিএম, ১১ আগস্ট ২০১৯, রবিবার
আরেকটি ইতিহাসের সাক্ষী হতে চলেছে নারায়ণগঞ্জের বৃহৎ ঈদ জামাত

নারায়ণগঞ্জে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের উদ্যোগে তৃতীয়বারের মতো দেশের অন্যতম বৃহৎ ঈদ জামাতের আয়োজন করা হয়েছে। শহরের মাসদাইর এলাকায় জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রস্তাবিত একেএম সামসুজ্জোহা স্টেডিয়াম, পাশ্ববর্তী পৌর ঈদগাহ ময়দান ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কের একটি বৃহৎ এলাকা জুড়ে এই ঈদ জামায়াতের আয়োজন করা হয়েছে।

১২ আগস্ট সোমবার সকাল আটটায় ঈদুল আযহার নামাজের জামাত অনুষ্ঠিত হবে। নগরীর নূর মসজিদের ঈমাম আব্দুস সালাম এই জামাতের ঈমামতি করবেন।

এবারের ঈদের জামাতে গতবারের চেয়েও বেশি মুসুল্লির নামাজের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রায় দুই লাখের বেশী মানুষ এক সাথে ঈদের জামাতে অংশ নিতে পারবেন বলে সংসদ সদস্য শামীম ওসমান আশা করছেন। রবিবার দুপুরে ঈদ জামায়তের আয়োজনের প্রস্তুতি পরিদর্শন করে শামীম ওসমান সাংবাদিকদের এ প্রত্যাশার কথা জানান।

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জের সর্ববৃহৎ ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। যদি মানুষের অতিরিক্ত অংশগ্রহণ দেখা যায় সেক্ষেত্রে দ্বিতীয় জামাতের ব্যবস্থা করা হবে বলে নিশ্চিত করেছে নারায়ণগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ।

 

নিউজ নারায়ণগঞ্জকে তিনি জানান, ঈদের জামাত এখনো পর্যন্ত একটি হবে সিদ্ধান্ত করা হয়েছে যা সকাল ৮টায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ও ঈদগাহ সংলগ্ন সামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে একযোগে শুরু হবে। যেহেতু বড় পরিসরে আয়োজন করা হচ্ছে তাই মানুষ দূরদূরান্ত থেকে আসবে। যদি মানুষের সংখ্যা বেশী হয় তাহলে দ্বিতীয় জামাতের আয়োজন করা হবে।

চিরাচরিত বাঁশ, কাঠের তৈরী স্টেজের পরিবর্তে গত ঈদ উল ফিতরে পবিত্র মদিনার আদলে আধুনিক প্রযুক্তিতে তাবু তৈরীর কাজ করা হয়েছিল। এবারও তৈরী হচ্ছে আধুনিক প্রযুক্তির তাবু যা একই সাথে অধিক মজবুত ও স্বল্প সময়ে তৈরী করা যায়। তবে গত ঈদের তুলনায় এবার আরো অধিক সংখ্যক মানুষের নামাজের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। যে কারণে আগেরবার ৪টি তাবু সাটানো হলেও এবার সেখানে স্থাপন করা হচ্ছে আরো বড় আকারের ৬টি তাবু। যার বিশালাকৃতির দুইটি ও মাঝারি আকারের দুইটি মোট চারটি তাবু থাকবে সামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে।

অপর দুইটি স্থাপন করা হবে সামসুজ্জোহা ক্রীড়া কমপ্লেক্স সংলগ্ন কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে। তবে গত বারের মত এবারও সব থেকে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে বৃষ্টি। গত ঈদের তুলনায় এবার বুষ্টির পরিমাণ বেশি হওয়ায় ভোগান্তি আরো বেশি হতে পারে।

এছাড়া আলোকসজ্জা, সাজসজ্জার জন্য কাজ করছে আরো কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। মোট পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের শতাধিক কর্মী নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে মাঠ তৈরীর জন্য। তাবুর মূল কাঠামো তৈরী শেষে এখন চলছে মূল কাঠামোতে ত্রিপল টাঙানোর কাজ।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর