rabbhaban

সিটি করপোরেশনের ড্রেন দখল করে সদর থানার ফটক নির্মাণ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১০:০২ পিএম, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, রবিবার
সিটি করপোরেশনের ড্রেন দখল করে সদর থানার ফটক নির্মাণ

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পানি নিষ্কাশনের ড্রেন দখল করে ফটক ও রুম নির্মাণ করেছে পুলিশ প্রশাসন। এতে করে বন্ধ হয়ে গেছে ড্রেন। এছাড়াও ড্রেনে জমে থাকা ময়লা আবর্জনাও পরিস্কার করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে থানার অভ্যন্তরে যেমন পানি জমে থাকতে তেমনি নগরীর পানি নিষ্কাশনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এ বিষয়ে সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে একাধিকবার চিঠি দিলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সহযোগিতা পায়নি। ফলে ক্ষমতার দাপটে চলছে নির্মাণ কাজ।

সম্প্রতি সরেজমিনে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় গিয়ে দেখা গেছে, থানার পূর্ব পাশে ফটক নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। যেখানে ফটকের পাশে একটি ছোট রুমও করা হয়েছে। ওই রুমের পিলার এসে পড়েছে ড্রেনের উপর। তাছাড়া সীমা প্রাচীর করা হয়েছে ড্রেনের উপর। এছাড়াও নির্মাণ সামগ্রী রাস্তায় ফেলে রাখা হয়েছে। যার জন্য প্রতিনিয়ত যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। তাছাড়া নির্মাণ কাজের ভেতরে সৃষ্টি হয়ে রয়েছে জলাবদ্ধতা। যেখানে এডিস মশা জন্ম নেওয়ার উপদ্রব রয়েছে।

পুলিশের একজন কনস্টেবল বলেন, প্রায় এক মাস ধরে গণপূর্তের ঠিকাদার ফারুক ফটক নির্মাণের কাজ করছেন। কিন্তু তারা কয়েকদিন আগে এ অবস্থায় রেখে চলে গেছে। বর্তমানে পুলিশ লাইনসে অন্য একটি উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ করছেন। যার জন্য এখন থানার নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একজন ব্যক্তি বলেন, সিটি করপোরেশনের ড্রেনের উপর এ ফটক ও রুম তৈরি করা হয়েছে। এখানে বালু ফেলে রাখা হচ্ছে। এজন্য ড্রেন বন্ধ হয়ে গেছে। বৃষ্টি হলে এখানে পানি জমে থাকে। সিটি করপোরেশনের কর্মী প্রায় সময় ড্রেন পরিস্কার করতে আসে কিন্তু এখানে ড্রেনের উপর ফটক ও সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করায় ড্রেনের স্লাব তুলতে পারে না। এজন্য পরিস্কারও করতে পারে না। ফলে বৃষ্টি হলে ড্রেন দিয়ে পানি যেতে না পেরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। আর সেই পানি সরে যেতে প্রচুর সময় লাগে।

তিনি বলেন, সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও কর্মীরা একাধিকবার এ বিষয়ে থানার ওসিকে বলেছে। কিন্তু তারা কোন পদক্ষেপ নেয়নি। এজন্য নির্মাণকাজ চলমান আছে।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ্বাস বলেন, সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে সাবেক ওসিকে একাধিকবার বলা হয়েছে তারা তা শোনেননি। পরবর্তীতে এসপিকে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে। তাতেও কোন কাজ হয়নি।

তিনি আরো বলেন, নতুন ওসি এসেছেন তাকেও জানানো হবে। তিনি যদি ব্যবস্থা নেন তাহলে এ সমস্যা সমাধান করা সম্ভব। অন্যথায় নগরবাসীকেই ভোগতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসাদুজ্জামান বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও সদর থানা দুটিই সরকারি প্রতিষ্ঠান। যারা মানুষের সেবায় কাজ করে। যদি ফটকের সীমানা প্রাচীর ড্রেনের উপর চলে আসে তাহলে সেটা ভেঙে দেওয়া হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর