rabbhaban

পুলিশ কর্মকর্তার ভুয়া স্বাক্ষরে খুনের মামলা


দৈনিক যুগান্তর হতে নেওয়া | প্রকাশিত: ০৩:০৬ পিএম, ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার
পুলিশ কর্মকর্তার ভুয়া স্বাক্ষরে খুনের মামলা

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে গণপিটুনীতে প্রতিবন্ধী যুবককে হত্যার ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তার ভুয়া স্বাক্ষর দিয়ে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। মামলাটির বাদী ও ওই পুলিশ কর্মকর্তা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই (সহকারী পুলিশ পরিদর্শক) সাখাওয়াত হোসেন মৃধা।

গত ২০জুলাই মামলা দায়েরের পর এসআই সাখাওয়াত হোসেন মৃধা নিজেই এব্যাপারে গত ২২জুলাই সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় সাধারন ডায়েরী করে দাবী করেছেন, মামলা দায়েরের সময় তিনি নারায়ণগঞ্জেই ছিলেন না এবং মামলার এজাহারে দেয়া স্বাক্ষরটি তার নয়।

মামলায় ৭৫জন এজাহার নামীয়সহ অজ্ঞাত প্রায় ৪০০জনকে আসামী করা হয়েছে যাদের বেশীর ভাগই আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী ও প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী।

এদিকে এই মামলা দায়েরের ব্যপারে সরাসরি কোন মন্তব্য করতে রাজি নন জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কেউই।

যদিও মামলা দায়েরের পর থেকে জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ গণমাধ্যমে একাধিকবার বলেছেন, তদন্তে কেউ অপরাধী না হলে মামলা থেকে তাকে বাদ দেয়া হবে। অপরদিকে মামলায় কারাগারে আছেন প্রায় অর্ধশত আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা। এনিয়ে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে দলটির নেতা কর্মী ও সমর্থকদের মাঝে। ৭ সেপ্টেম্বর শনিবার দলীয় সমাবেশেও এই মামলা নিয়ে চরম সমালোচনা করেছেন প্রভাবশালী নেতা ও সাংসদ শামীম ওসমান।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, চলতি বছরের ২০ জুলাই সিদ্ধিরগঞ্জে নাসিকের ১নং ওয়ার্ডের মিজমিজি আলআমিন নগর এলাকায় ‘ছেলেধরা’ সন্দেহে বাক প্রতিবন্ধী সিরাজ নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করে এলাকাবাসী। সেদিন রাতেই এই ঘটনায় উপ-পরিদর্শক সাখাওয়াত হোসেনকে বাদী করে ৭৫ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত ৪শ জনকে আসামি করে মামলাটি রেকর্ড করেন তৎকালীন পরিদর্শক (তদন্ত) সেলিম মিয়া।

আসামী তালিকায় যারা রয়েছেন তাদের বেশীর ভাগই বসবাস করেন ১নং থেকে ১০নং ওয়ার্ডে, যার ঘটনাস্থল থেকে দূরত্ব প্রায় ১১কিলোমিটার। এই মামলা দায়েরের পর থেকে ক্ষোভে ফুঁেস উঠেন নারায়ণগঞ্জের “গোপালগঞ্জ” খ্যাত সিদ্ধিরগঞ্জের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা। শুধু তাই নয় পুলিশ কর্তৃক এ মামলা দায়েরের পর থেকে স্থানীয় সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমান, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনসহ শীর্ষ নেতারা আওয়ামীলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে আসছেন।

অনুসন্ধানে বেড়িয়ে এসেছে এই মামলার নেপথ্যের চমকপ্রদ তথ্য-প্রমাণ। তথানুসন্ধানে দেখা গেছে, গত ২০জুলাই সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় বাক প্রতিবন্ধী যুবক সিরাজ হত্যার ঘটনায় পুলিশের দায়েরকৃত মামলায় (মামলা নং ৫৪) বাদী হয়েছেন এস আই (নি:) সাখাওয়াত হোসেন মৃধা।

কিন্তু গত ২২জুলাই এস আই সাখাওয়াত হোসেন মৃধা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পুলিশের নিজস্ব সাধারন ডায়েরী বইয়ে (পাতা নং-৪৪১৪৫৩, জিডি নং-১১৪৯) থানায় হাজির হয়ে একটি সধারন ডায়েরী করেন। সেখানে সাখাওয়াত হোসেন মৃধা উল্লেখ করেন, গত ২০জুলাই তিনি থানার জিডি (১০৭৫) মূলে সঙ্গীয় কনস্টেবল আসাদুজ্জামান,কাবিউল ও জমসেদ আলীকে নিয়ে স্পেশাল-৩(দিবা) ডিউটি করছিলেন। বেতার যন্ত্রের মাধ্যমে তিনি মিজমিজি আলআমিন নগরের ঘটনা শুনে সেখানে গিয়ে সিরাজকে উদ্ধার করে শহরের খানপুর ৩শ’শয্যা হাসপাতালে প্রেরণ করেন। পরবর্তীতে সিরাজ মারা গেলে তিনি মৃতের লাশ সনাক্ত করার জন্য পিবিআই নারায়ণগঞ্জের সহায়তা নেন।

পরিচয় সনাক্তের পর তিনি নিহত সিরাজের ভাই আলমকে ডেকে আনেন এবং মামলা দায়ের করতে বলেন। নিহত সিরাজের ভাই এজাহার দিলেও এজাহার আমলে না নিয়ে এস আই সাখাওয়াতের অনুপস্থিতিতে তার নাম স্বাক্ষর করে মামলাটি রুজু করা হয়েছিল। জিডিতে এস আই সাখাওয়াত আরো উল্লেখ করেন, ওই সময় তিনি তার বাবা-মাকে হজে প্রেরণের উদ্দেশ্যে ঢাকা বিমান বন্দরে ছিলেন।

এ ব্যাপারে সেসময় সিদ্ধিরগঞ্জ থানার দ্বায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) সেলিম মিয়াকে (বর্তমানে কিশোরগঞ্জ জেলায় কর্মরত) মোবাইলে ফোন করলে তিনি যুগান্তরকে বলেন, আমি এ ব্যাপারে কিছুই জানি না। ওই সময় আমি ছুটিতে ছিলাম, চার্জে থাকায় আমাকে ডেকে এনে স্বাক্ষর করানো হয়েছে।

আর মামলার বাদী সাখাওয়াত হোসেন মৃধাকে (বর্তমানে গোপালগঞ্জে কর্মরত) মোবাইলে ফোন করলে যুগান্তরকে তিনি জানান, “ভাই আকাম করছে তারা, গোসল করে আমারে নিয়া। এই ঘটনার পর আমার ক্ষতির আশঙ্কায় আতঙ্কিত হয়ে নিজেই বদলী হয়ে চলে আসতে বাধ্য হয়েছি। আমাকে মেরেও ফেলতে পারে, ইয়াবা দিয়েও মামলা দিতে পারে”। সাখাওয়াত দাবী করেন, তার ভুয়া স্বাক্ষর দিয়েই মামলাটি করা হয়েছে।

এব্যাপারে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এসপি পদোন্নতী প্রাপ্ত) মনিরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে জানান, বিষয়টি নিয়ে আমরা অফিসিয়াল বক্তব্য দিব।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর