rabbhaban

মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কে খানা খন্দকে দুর্ভোগ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৩৮ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার
মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কে খানা খন্দকে দুর্ভোগ

রাজধানীর সাথে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার যোগাযোগের একমাত্র সংযোগ সড়কটি (মদনপুর-মদনগঞ্জ) এখন খানা খন্দকে জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে। দীর্ঘ ৬ বছরে এই সড়কে সংস্কারের ছোঁয়া লাগেনি; যেকারণে সড়কের বেহাল দশা যাত্রীদের দুর্ভোগের কারণে পরিণত হয়েছে। অথচ এই সড়কের আশেপাশে বিভিন্ন কোম্পানির কারখানা, সিমেন্ট, ডকইয়ার্ড, ইট খেলা সহ প্রচুর প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তবুও সংশ্লিষ্টরা এই সড়ক মেড়ামতে কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা।

সাড়ে তিন লাখ মানুষ ও এসব প্রতিষ্ঠানের পণ্যবাহী গাড়িকে চলাচল করতে হয় বন্দরের এই প্রধান সড়ক দিয়ে। অথচ গত ছয় বছরে সংস্কারের হাত পড়েনি সড়কটিতে। ১৪ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটির পুরোটাই গর্ত আর খানাখন্দে ভরা। ফলে দুর্ভোগ আর ঝুঁকির মধ্যেই চলাচল করতে হচ্ছে সাধারণ মানুষ, শ্রমিক ও যানবাহনকে।

সূত্র জানায়, বন্দরের এক সময়ের রেললাইনটিই মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়ক হিসেবে গড়ে উঠেছে। সড়কটি সর্বশেষ গুরুত্ব সহকারে সংস্কার করা হয়েছিল ২০১০ সালে। প্রধানমন্ত্রীর মদনগঞ্জে আগমনকে কেন্দ্র করে ওই সংস্কারের পর এদিকে আর মুখ ফিরে তাকায়নি সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগ। দীর্ঘ সময় ধরে অবহেলায় থাকার কারণে সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। জায়গায় জায়গায় বিটুমিন উঠে গেছে।

সড়কের পুরোটা দখল করে নিয়েছে ছোট-বড় গর্ত। বৃষ্টি হলে পানিতে ভরে গর্তগুলো আরো বিপজ্জনক হয়ে ওঠে। ময়লা-আবর্জনা ও কাদায় একাকার হয়ে যায় আঁকাবাঁকা সড়কটি। শুষ্ক আবহাওয়ায় রাস্তাজুড়ে থাকে ধুলার আস্তরণ। এর মধ্য দিয়েই ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে বন্দরের সাড়ে তিন লাখ মানুষকে; বন্দরে গড়ে ওঠা বসুন্ধরা সিমেন্ট, আকিজ সিমেন্ট, আকিজের অবৈধ স্ট্যান্ড, সিমেক্স সিমেন্ট, সামিট পাওয়ার প্লান্ট, এসিআই ফুড অ্যান্ড বেভারেজ, নৌবাহিনী পরিচালিত নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ড, মেরিন ইনস্টিটিউট, তিন শতাধিক তুলা কারখানা, খাদ্যগুদামসহ বিভিন্ন শিল্প-কারখানার গাড়িগুলোকে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ফরাজিকান্দা এলাকায় সড়কটির দুই পাশের মাটি সরে গিয়ে সরু হয়ে গেছে। ঝোপঝাড় আর খানাখন্দ তো রয়েছেই। সড়কের দুই পাশে গড়ে উঠেছে অবৈধ দোকানপাট। একই অবস্থা নবীগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড ও হাজীগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডেও। নয়াপাড়ায় সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে। বাগবাড়ী এলাকায় নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ময়লা-আবর্জনা ফেলা বন্ধ হলেও মরনব্যাধী অবৈধ স্ট্যান্ড সড়কের অবস্থা ভয়াবহ। দুটি গাড়ি অতিক্রম করতে হলে ঝুঁকি নিতে হয়। ধামগড় ইস্পাহানি এলাকার অবস্থাও খুব খারাপ।

মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মদনপুর মোড়ে এসে মিশেছে। এ মোড়ে চলছে দখলের প্রতিযোগিতা। অটোরিকশা, বেবির অবৈধ স্ট্যান্ড গড়ে উঠেছে। ফলে এ এলাকায় যানজট লেগেই থাকে, যার রেশ পড়ে মহাসড়কেও।

বন্দর প্রেস ক্লাবের সভাপতি কমল খান বলেন, ‘বন্দরে গড়ে ওঠা শিল্প-কারখানাগুলো সরকারকে বিপুল অঙ্কের রাজস্ব দিয়ে থাকে। অথচ মদনপুর-মদনগঞ্জ সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারহীন অবস্থায় পড়ে আছে।

বন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান এম এ রশিদ বলেন, ‘পদ্মা ও তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতু হলে এ সড়ক দিয়েই রাজধানীর ওপর কোনোরূপ চাপ না ফেলেই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের গাড়িগুলো বৃহত্তর সিলেট ও চট্টগ্রামে যাতায়াত করতে পারবে। সড়কটি মেরামতে আমরা নারায়ণগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগকে লিখিতভাবে জানিয়েছি। তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর