rabbhaban

সেই চার যুবক হত্যার এক বছর


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪৭ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার
সেই চার যুবক হত্যার এক বছর

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় চার যুবককে গুলি করে হত্যার ঘটনার এক বছর অতিবাহিত হয়েছে।

গত বছরের ২১ অক্টোবর ভোরে ৪ জনের লাশ উদ্ধারের পর গাড়ি চালকের লুৎফর রহমানের পরিচয় শনাক্ত হয়। আর সোমবার শনাক্ত হওয়া অপর তিনজন হলেন পাবনা জেলার সদর আতাইকুল থানা ধর্মগ্রাম এলাকার লোকমান হোসেনের ছেলে জহিরুল (৩০), একই গ্রামের জামালউদ্দিন প্রামাণিকের ছেলে ফারুক প্রামানিক (৩৫) ও খায়রুল সরদারের ছেলে সবুজ সরদার (২০)। তাদের চারজনের মধ্যে তিনজনকে শটগানের গুলি করে হত্যা করা হয় উঠে এসে ময়না তদন্ত রিপোর্টে। আর একজনকে ভারী কোন বস্তু দিয়ে মাথা ও মুখমন্ডল থেতলে দেয়া হয়েছে।

লাশ উদ্ধারের ঘটনায় আড়াইহাজার থানায় পৃথকভাবে দুটি মামলা হয়েছে। এসআই রফিকউদ্দৌলা বাদী হয়ে ওই দুটি মামলা দায়ের করেন।

এতে উল্লেখ করা হয় ভোরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সাতগ্রাম ইউনিয়নের পাঁচরুখী ফকির বাড়ি এলাকাতে দুই দল সন্ত্রাসীদের মধ্যে গোলাগুলির কারণেই চারজনের মৃত্যু হয়েছে। ওই সময়ে  ঘটনাস্থল থেকে এক রাউন্ড গুলি সহ দুটি পিস্তল ও একটি সিলভার রঙয়ের নোয়া গাড়ি উদ্ধার করা হয়।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা চারজন ও রূপগঞ্জে নিহত একজনের মধ্যে ৪ জন ছিল সম্পর্কে মামা ভাগ্নে। যার মধ্যে নিহত ৩ জন ছিল একে অপরের খালাতো ভাই। জীবিকার অন্বেষনে সম্প্রতি তারা দূর সম্পর্কের মামা ফারুকের ডাকে সাড়া দিয়ে তারা এসেছিলেন রূপগঞ্জে। কথা ছিল তাদেরকে রূপগঞ্জের একটি বেকারীতে চাকুরীতে লাগিয়ে দিবে ফারুক।

জহিরুলের লাশ শনাক্ত করে শ্বশুর নজরুল ইসলাম হাসপাতালে জানান, নিহতদের মধ্যে জহিরুল, সবুজ ও লিটন সম্পর্কে একে অপরের খালাতো ভাই। তাদের গ্রামের বাড়িও পাশাপাশি। আর মৃত ফারুক প্রামানিক তাদের দূর সম্পর্কের মামা। জহিরুল, সবুজ ও লিটন পাবনা এলাকার একটি বেকারিতে কাজ করতো। কিন্তু বেশ কিছুদিন হলো তাদের বেকারিটি বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। কয়েক মাস আগে ফারুক এলাকায় গেলে তাদেরকে রূপগঞ্জের ভুলতায় একটি বেকারিতে কাজে লাগিয়ে দেয়ার কথা বলেছিল। লিটন কয়েকস মাস আগে রূপগঞ্জে এসেছিল আর জহিরুল ও সবুজ এসেছিল ১০ দিন আগে।

নিহত সবুজের বাবা ইসলাম জানান, অভাবের তাড়নায় পরিবারের ঋণের কিস্তির টাকা পরিশোধের জন্য বাড়তি আয়ের উদ্দেশ্যে গত ১৫ অক্টোবর ঢাকায় এসেছিল। এরপরদিন থেকেই সবুজের মোবাইল ফোন বন্ধ থাকলে তার কোন সন্ধান পাচ্ছিল না। ঢাকার একটি বেকারিতে কাজে যোগদান করবে বলে সে বাড়িতে বলে এসেছিল। তাকেও ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর