rabbhaban

‘আমার সব স্বপ্ন শেষ’


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১০:৩৪ পিএম, ০৩ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার
‘আমার সব স্বপ্ন শেষ’

‘ওর বাবা মারা যাওয়ার পর ছেলেকে নিয়ে বাঁচতে চাইছি। এখন ছেলেটাকেও নিয়ে গেছে। কত স্বপ্ন ছিল ছেলেটাকে মানুষের মতো মানুষ করবো। ওর মুখের দিকে তাঁকিয়ে সব দুঃখ ভুলে গেছিলাম। আমার সব স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে। আমি এখন কি নিয়ে বাঁচবো। রাত হয়ে গেছে আমার ছেলেকে ঘরে নিয়ে আসো।’

রোববার ৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ শহরের বাবুরাইল এলাকাতে খালের উপর নির্মিত ৪ তলা একটি ভবন ধসে পড়ে মো. সোহায়ের (১০) নামের ষষ্ঠ শ্রেণির স্কুল ছাত্র নিহতের পর তার মা রোজিয়া বেগম এভাবেই বিলাপ করে কাঁদছিলেন।

জানা গেছে, নিহত স্কুল ছাত্র সোহায়েরর বাবা শাহাবউদ্দিন দুই বছর আগে মারা যায়। এরপর থেকে সোহায়ের কে নিয়ে ছোট ভাই মো. রনির বাবুরাইলের উত্তর গোয়ালবন্দ এলাকার নিচ তলা বাসায় বসবাস করছিলেন রোজিয়া বেগম। স্বামী জমানো টাকা ও ভাইয়ের সহযোগিতায় ছেলেকে পড়ালেখা ও সংসার চলছিল বলে জানায় মো. রনি।

রাতে সরেজমিনে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বিকেলে ভবন হেলে পড়ে সোহায়ের নিহতের খবরের পর থেকেই ওই পরিবারের স্বজনদের মধ্যে চলছে শোকের মাতম। সন্তান হারিয়ে আহাজারি করছিলেন রোজিয়া বেগম।

বড় বোন সুমাইয়া আক্তার বলেন, ‘প্রতিদিন বিকেল সাড়ে ৩টায় বাসা থেকে বের হয়ে বাবুরাইলের ওই বাড়িতে পড়তে যেতেন সোহায়ের। সে ভবনের নিচ তলায় সোনিয়া নামের এক নারীর কাছে আরবী শিখতেন। ফিরতেন বিকেল সাড়ে ৪টায়। কিন্তু রোববার বিকেল আর বাসায় ফিরেনি। ভাই আমার ফিরেছে লাশ হয়ে।’

স্থানীয়রা জানান, নারায়ণগঞ্জ শহরের ১নং বাবুরাইল এলাকাতে এইচ এম ম্যানসন রোডস্থ মৃত রউফ মিয়ার চার সন্তান মিলে ওই ভবনটি নির্মাণ করে। চার তলার মধ্যে তৃতীয় তলাতে আজহারউদ্দিন, দ্বিতীয় তলায় বোন শিউলি বেগম ও নিচ তলায় অপর দুই ভাই সুমন এবং বাবু থাকতো। সেখানে আরেকটি রুমে সোনিয়া নামের একজন ভাড়া থাকতেন। তিনি আরবী পড়াতেন। সেটা মূলত একটি খালের উপর। ঠিকমত পাইলিং করা হয়নি। এ নিয়ে স্থানীয়রা আগেই ভবন মালিককে সতর্ক করেছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আজহারউদ্দিনের এক মামাতো বোনের বিয়ে থাকার কারণে সকলেই সেখানে চলে যান। ফলে পুরো ভবন ছিল মূলত ফাঁকা। নিচ তলার ভাড়াটিয়া সোনিয়ার বাসায় ৬ষ্ঠ শ্রেণীর স্কুলছাত্র সোয়াইন হোসেন সোয়েব, ওয়াজেদমগ কয়েকজন বিকেলে আরবি পড়তে এসেছিল। রোববার বিকেল ৪টার দিকে আসরের আজান চলাকালীন হঠাৎ ভবনটি খালের উপর ধসে পড়ে যায়। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের ৬টি ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধার অভিযান চালায়। এছাড়া স্থানীয় লোকজন, র‌্যাব, পুলিশ ও সিটি করপোরেশনের কর্মীরাও উদ্ধার অভিযানে অংশ নেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর