বৃষ্টিতে শীত


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:০০ পিএম, ০৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার
বৃষ্টিতে শীত ফাইল ফটো

‘বৈদ্যুতিক পাখা বন্ধ থাকলে গরম অনুভূতি হয় আর পাখা চললে লাগে শীত’ একেবারে যেন নাতিশীতোষ্ণ অবস্থা। তার মধে সকাল থেকে রোদের তেমন দেখা নেই। আকাশে মেঘের দেখা না থাকলেও গুড়িগুড়ি বৃষ্টি। জানা গেছে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে দেয়ে আসছেন ঘুর্ণিঝড় বুলবুল। এর প্রভাবেই সারাদেশের মতো নারায়ণগঞ্জে বৈরী আবহওয়া সৃষ্টি হয়েছে।

সপ্তাহের ছুটির দিন ৮ নভেম্বর শুক্রবার হওয়ায় সকাল থেকে নগরীর রাস্তা ঘাটে যান চলাচল অন্যান্য স্বাভাবিক দিনের তোলনায় কম। শহর ছিল ফাঁকা। সূর্যোদ্বয়ে রোদের দেখা মিললেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেঘে ঢেকে যায়। বেলা ১টা বাজতেই শুরু হয় গুড়িগুড়ি বৃষ্টি। যা সন্ধ্যা পর্যন্ত থেমে থেমে গুড়িগুড়ি পড়তেই থাকে। এ বৃষ্টিতে রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি না হলেও ভোগান্তি ঠিকই বাড়িয়েছে। রাস্তায় কাদা সৃষ্টি করে চলাচলে দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। একই সঙ্গে গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে শীতের অনুভূতি বাড়িয়ে দিয়েছে। অনেকই একাধিক জামা কাপড় পড়ে বের হতে দেখা গেছে।

সপ্তাহে ছুটির দিন হলেও গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের ফুটপাত দখল করে অবৈধ হকাররা বসতে পড়েনি। ফলে নগরীর ফুটপাতও ছিল ফাঁকা। এতে করে স্বল্প আয়ের মানুষরাও বিপাকে পড়েন। একই সঙ্গে শহরের বিভিন্ন বিক্রিয় বিপনীও বন্ধ দেখা যায়। তবে ভীর ছিল নগরীর সব থেকে বড় পাইকারী ও খুচরা বিক্রয়ের দিগুবাবু বাজার। কিন্তু বৃষ্টিতে দুপুরের পর থেকে বাজারও ফাঁকা হয়ে যায়।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকাল ৬টায় বঙ্গোপসাগরের পশ্চিম এবং পূর্ব কেন্দ্রে থাকা ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ উত্তর পশ্চিম উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে। যা শনিবার সকালেও আঘাত আনবে। এতে করে আগামী শনিবার গুড়িগুড়ি কিংবা ভারী বৃষ্টি থাকতে পারে।

অন্যদিকে বলা হচ্ছে, শীতের আগমনী বার্তা হিসেবে এ বৃষ্টি শুরু হয়েছে। যার ফলে তীব্র শীতের অনুভূতি হতে পারে। কারণ ইতোমধ্যে শহরের কুয়াশা দেখা যায়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর