নারায়ণগঞ্জে ৭ দিনে ৫ ধর্ষণ গণধর্ষণ


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১০:০৯ পিএম, ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শুক্রবার
নারায়ণগঞ্জে ৭ দিনে ৫ ধর্ষণ গণধর্ষণ

করোনাভাইরাসের মত নারায়ণগঞ্জে ধর্ষণের ঘটনা মহামারি আকার ধারণ করছে। করোনাভাইরাসের মত মরণব্যাধী সুস্থ্য ব্যক্তিকে যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হয়। ঠিক তেমনটি ধর্ষণের ঘটনায় ধর্ষিতা বেঁচে থেকেও মানষিক ও শারীরিকভাবে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর চেয়েও অধিক যন্ত্রণা সহ্য করে থাকে। সম্প্রতি ধর্ষণের ঘটনা ভয়াবহ আকারে বৃদ্ধি পেয়েছে।

৮ ফেব্রুয়ারী থেকে ১৪ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত জেলার বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া ধর্ষণ, গণধর্ষণ ও ধর্ষণ চেষ্টার নানা বর্ণনা তুলে ধরা হলো। এ সপ্তাহে ৫টি ধর্ষণ ও গণধর্ষণ এবং ২ টি শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটেছে।

১৩ ফেব্রুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লায় গণধর্ষণের অভিযোগে ২ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো ফতুল্লার তল্লা সবুজবাগের মনির হোসেনের ছেলে রনি (১৮), কাঠেরপুল এলাকার হাসেমের ছেলে হৃদয় (১৮)।


অভিযোগের বরাত দিয়ে মামলার বরাত দিয়ে ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (আইসিপি) আজগর হোসেন জানান, ফতুল্লার ভূইগড় দোতলা মসজিদ গলি এলাকার সিএনজি চালকের কিশোরী কন্যার সাথে ধর্ষক রনির সাথে পূর্ব থেকে পরিচয় ছিল। সেই সুবাধে গত ১১ ফেব্রুয়ারী রাত ৯টার দিকে রনি ফুসলিয়ে কিশোরীকে তল্লা সবুজবাগস্থ ব্যাংকার মতি মিয়ার ভাড়াটিয়া রনির চাচাতো ভাই মামুনের ভাড়াকৃত বাসার সাথে একটি টিনের তৈরি ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে রনি, হৃয়সহ তিনজনে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। তার পরের দিন ভোরে কিশোরীকে ঘর থেকে বাহির করে দিয়ে ধর্ষকরাও চলে যায়। এ ঘটনায় কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে ফতুল্লা মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর বৃহস্পতিবার দুপুরে ধর্ষক রনি ও হৃয়কে আদালতে প্রেরণ করা হলে তারা দুইজন ধর্ষণের দায় স্বীকার করে পৃথক দুটি আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। বাকী আরেক ধর্ষককে গ্রেপ্তারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

১৩ ফেব্রুয়ারি রূপগঞ্জে সিম ফেব্রিক্স নামে শিল্প কারখানার এক গার্মেন্টস শ্রমিককে গণধর্ষনের ঘটনায় মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলো ঠাকুর বাড়িটেক এলাকার সুরুজ আলী ভুঁইয়ার ছেলে সবুজ (২৩), খোরশেদ আলমের ছেলে মহিউদ্দিন (১৯)।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, তিনি পরিবার নিয়ে উপজেলার ঠাকুর বাড়ির টেক এলাকার আমিনুল মিয়ার বাড়িতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করে আসছিলেন। তার মেয়ে উপজেলার সিম ফেব্রিক্স নামে গার্মেন্টসে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে আসছেন। গত ১০ ফেব্রয়ারী বিকেলে পাড়াগাঁও ঠাকুরবাড়ি এলাকার স্থানীয় একটি ফুলের বাগানে তার মেয়ে নিয়ে ঘুরতে যায়। এ সময় ঠাকুর বাড়িটেক এলাকার সবুজ, খোরশেদ মহিউদ্দিন, শহিদ, আকাশ মিলে ওই গার্মেন্টস কর্মীকে ফুলের বাগানের নির্জন স্থানে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানা মামলা দায়ের করেন।

১৩ ফেব্রুয়ারী বন্দরে ৫ বছরের শিশুকে যৌন হয়রানি মামলায় লম্পট আবু বক্কর সিদ্দিক (২৫) নামে মাদ্রাসা শিক্ষককে আটক করেছে মদনগঞ্জ ফাঁড়ি পুলিশ। আটককৃত লম্পট মাদ্রাসা শিক্ষক আবু বক্কর সিদ্দিক বন্দর উপজেলার দক্ষিন ঘারমোড়া নাজিরাপট্রি এলাকার সিরাজ গাজী মিয়ার ছেলে। এ ব্যাপারে শিশুটির মা বাদী হয়ে বন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ ফেব্রুয়ারী বুধবার বিকেলে ৪টায় বন্দর উপজেলার দক্ষিন ঘারমোড়া নাজিরাপট্রি এলাকায় নব র্নিমিত ভবনের ছাদে ৫ বছরের শিশুটি খেলা করছিল। ওই সময় লম্পট মাদ্রাসার লম্পট শিক্ষক ছাদের মধ্যে শিশুটির প্যান্ট খুলে যৌন হয়রানি করে। পরে বিষয়টি শিশুটি তার মাকে খুলে বলে। এ ঘটনায় তার মা বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযুক্ত লম্পট মাদ্রাসা শিক্ষককে বন্দর উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে আটক করে।

১২ ফেব্রুয়ারী চিকিৎসা সেবা নিতে আসা নারীকে অচেতন করে ধর্ষণের অভিযোগে নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালের নাক, কান গলা বিভাগের রেজিস্টার ডা. আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে মামলার আবেদন করা হয়েছে আদালতে। এতে অভিযোগ করা হয়, প্রথম দফায় তাকে খানপুরের জোড়া পানির টাংকি সংলগ্ন ইউনিক ক্লিনিকে অচেতন করে ধর্ষণের পর সেই ভিডিও ধারণ করে সেটার ভয় দেখিয়ে পরবর্তীকে একাধিকবার চেকআপের নামে ধর্ষণ করা হয়েছে। ওই ক্লিনিকটি বিকেএমইএর সাবেক সহসভাপতি (অর্থ) জিএম ফারুক ও তার ভাই জিএম মারুফের মালিকানাধীন বলে জানা গেছে।


ঘটনার বিবরণে জানা যায়, ফতুল্লার কাশীপুর এলাকার এক নারী বাসিন্দা দীর্ঘদিন ধরে থাইরয়েড ক্যানসারে আক্রান্ত ছিল। ফলে ওই নারী তার চিকিৎসার জন্য শহরের খানপুরে গ্যাস্ট্রেলিভ ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড কনসালষ্টেশন সেন্টারে ডাঃ আমিনুল ইসলামের চেম্বারে যান। প্রাথমিক পর্যায়ে ডাঃ আমিনুল ইসলাম ওই নারীকে শারীরিক পরীক্ষার টেস্ট ও কিছু ওষুধপত্র দেন। ওই নারী ডাঃ আমিনুল ইসলামের পরামর্শ অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে চিকিৎসা চালিয়ে যেতে থাকেন। চিকিৎসার একপর্যায়ে ২০১৯ সালের ১৩ জুলাই খাঁনপুর জোড়া টাংকি এলাকার ইউনিক ক্লিনিকে ইমার্জেন্সি ইনজেকশন দিয়ে ওই নারীর শরীর অবশ করে ধর্ষণ করে ডাঃ আমিনুল ইসলাম। পরবর্তীতে আরও একবার ওই নারীকে ধর্ষণ করে আমিনুল ইসলাম। এই ঘটনায় থানায় মামলা নিতে না চাইলে ওই নারী আদালতের শরনাপন্ন হন।

১১ ফেব্রুয়ারি সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন মিজমিজি পশ্চিমপাড়াস্থ এলাকায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে একজন অপ্রাপ্তবয়স্ক কিশোরী ধর্ষণের অভিযোগের দায়ে ধর্ষক আসামী মোঃ কাউসার হোসেন ওরফে রাফিকে (২৫) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১। এ সময় তার ব্যবহৃত মোবাইলের গ্যালারীতে উক্ত ধর্ষণের ভিডিওচিত্র পাওয়া যায়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী বর্ণিত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে।

র‌্যাব-১১ এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ জসিম উদ্দীন চৌধুরী জানান, গ্রেফতারকৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রাথমিক অনুসন্ধানে জানা যায় ভিকটিম ১৫ বছরের একজন অপ্রাপ্তবয়স্ক বালিকা। ভিকটিম তার পরিবারের সাথে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন মিজমিজি পশ্চিমপাড়া এলাকায় বসবাস করে আসছে। ভিকটিমের পরিবার এবং অভিযুক্ত আসামী মুখোমুখি বাসায় বসবাস করে করত। আসামী প্রায়শই ভিকটিমকে অনুসরণ করত এবং এক পর্যায়ে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে প্রেমের প্রস্তাবে রাজি করে। এরপর গত ২৩ জানুয়ারি অভিযুক্ত আসামী বিভিন্ন কৌশলে ফুসলিয়ে ভিকটিমকে মিজমিজি পশ্চিমপাড়াস্থ তার ফুফুর বাড়িতে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে এবং তার মোবাইলে ছবি তোলে ও ভিডিও ধারণ করে রাখে। পরবর্তীতে উক্ত অশ্লীল ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল করে দেওয়ার হুমকি দিয়ে পুনরায় অনৈতিক সম্পর্ক করার জন্য চাপ দেয়।

৯ ফেব্রুয়ারী বন্দরে গৃহবধূর স্পর্শকাতর স্থানে কামড় মেরে শ্লীলতাহানী করে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। রাতে ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে বন্দর থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

জানা গেছে, বন্দর থানার মদনপুর এলাকার সরাফত আলী মিয়ার ছেলে আরিফ দীর্ঘ দিন ধরে মদনপুরের চাঁনপুর এলাকার একজন গৃহবধূকে প্রায় সময় কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছে। গত ৩ ফেব্রুয়ারী সোমবার রাত ১০টায় গৃহবধু তার ছেলের বাড়ি থেকে নিজ বাড়িতে ফেরার পথে মদনপুরের চাঁনপুর জামে মসজিদের সামনে আসলে লম্পট আরিফ গৃহবধূকে জড়িয়ে ধরে ষ্পর্শকাতর স্থানে একাধিক বার কামড় মেরে পালিয়ে যায়। পরে গৃহবধূর চিৎকারের শুনে স্থানীয় এলাকাবাসী দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে তাকে উদ্ধার করে।

বন্দর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম জানান, গৃহবধূ শ্লীলতাহানীর ঘটনায় থানায় মামলা নেয়া হয়েছে। আমরা লম্পট আরিফকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালাচ্ছি।

৯ ফেব্রুয়ারী রূপগঞ্জে আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে এক গৃহবধূকে গণধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ধর্ষণের ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন, উপজেলার হাটাবো এলাকার জমশের আলীর ছেলে শহর আলী, একই এলাকার মন্টু মিয়ার ছেলে রকি ও তার স্ত্রী ফারজানা বেগম।


মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, গত ৫ ফেব্রুারী দুপুরে ওই গৃহবধূকে তার বান্ধবী ফারজানা বেগম তার খালা শাশুরীর বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে মাসুমাবাদ এলাকার একটি নির্জন ঘরে নিয়ে যায়। এসময় বান্ধবী ফারজানা বেগম বাথরুমে যাওয়ার কথা বলে ওই গৃহবধূকে রেখে অন্যত্র চলে যায়। পরে শহর আলী, রকি ও অজ্ঞাত একজন মিলে ওই গৃহবধূকে জোর পূর্বক গণধর্ষণ করেন। এ ঘটনায় গৃহবধূ বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর