সংস্কারের ১৮ দিনেই আরো ভয়াবহ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়ক (ভিডিও)


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:৪১ পিএম, ২১ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার
সংস্কারের ১৮ দিনেই আরো ভয়াবহ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়ক (ভিডিও)

নারায়ণগঞ্জের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ পুরাতন সড়কে বার বার জোড়াতালির মেরামত করেও অল্প দিনেই আগের অবস্থাতেই ফিরে যাচ্ছে। বড় ধরনের কোনো মেরামত না থাকায় এবং সড়কটির পাশে কোনো পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে পানি জমে বেহাল অবস্থায় বছরের পর বছর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। এত দুর্ভোগের পরেও টনক নড়ছে না কর্তৃপক্ষের।

২১ মে বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায় সড়কটির ভয়াবহ চিত্র। ইট-বালু দিয়ে মেরামত করায় মাটির রাস্তার মত উচু নিচু হয়ে গেছে। এছাড়া সড়কটিতে গর্ত তৈরী হয়ে পানি জমে তৈরী হয়েছে জলাবদ্ধতা। ফলে যানবাহন চলাচল করতে হচ্ছে অতি ধীর গতিতে। যে কারণে লকডাউনের কারণে যানবাহনের সংখ্যা কম থাকার পরেও সড়কে তৈরী হচ্ছে যানজট। সড়কের এই পরিস্থিতির জন্য প্রায়শই ঘটছে প্রাণঘাতি দুর্ঘটনা।

সবশেষ গত ১৩ মে সড়কটিতে চলাচল করারর সময় পন্য নিয়ে ইজিবাইক উল্টে যায়। গুরুতর না হলেও আহত হন ইজিবাইক চালক। এর আগে গত ৩ মে একই জায়গাতে আটকে যায় মেঘনা পেট্রোলিয়ামের একটি তেলবাহী ট্যাংকার আটকে যায়। পরে কয়েক ঘণ্টা চেষ্টা করেও উঠাতে ব্যর্থ হয়ে র‌্যাকারের মাধ্যমে ট্যাংকারটি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনার পরেরদিন ৪ মে সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঢাকা জোনের পক্ষ থেকে সড়কে ইট বালু ফেলে তালিজোড়া দিয়ে সংস্কার করা হয়েছিল। সড়কটির ওই অংশে ওয়াসার পানির পাইপ থাকায় এবং প্রতিনিয়ত ভারি যানবাহন চলাচল করায় সেদিনই সড়কটি নষ্ট হয়ে যেতে শুরু করে। জোড়াতালির মেরামতের ১৮ দিন পেরোতেই আগের থেকেও ভয়াবহ অবস্থায় পৌঁছে গেছে সড়কটি।

নারায়ণগঞ্জের জন্য অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সড়ক হওয়ার পরেও এর বড় ধরণের মেরামত নিয়ে দোটানায় কর্তৃপক্ষ। বছরের পর বছর ধরে সড়কটির বেহাল দশা হলেও মেরামতের দায়িত্বে থাকা সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঢাকা জোনের পক্ষ থেকে শুধু ইট বালু ফেলেই মেরামত করা হয়েছে। যে কারণে সড়কটির অবস্থা এখন এতটাই ভয়াবহ যে সড়কটি এখন চলাচলের অযোগ্য।

এ প্রসঙ্গে সড়কটিতে চলাচলকারী চালকরা জানান, বিকল্প সড়ক না থাকায় বাধ্য হয়েই এই সড়কদিয়ে চলাচল করেন। তবে একটু অসাবধান হলেই গর্তে গাড়ি আটকে যাওয়া কিংবা উল্টে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে। যে কারণে তাঁরা সড়কটিকে যতটুকু সম্ভব এড়িয়ে চলার চেষ্টা করেন।

এ প্রসঙ্গে কথা বলার জন্য সড়ক ও জনপথ বিভাগের ঢাকা জোনের ওয়ার্ক সুপারভাইজার মোজাম্মেল হকের সঙ্গে কথা বলার জন্য তাঁর মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর