দেওভোগের শরীফ হত্যাকারীদের শাস্তি দাবীতে মানববন্ধন


সিটি করেসপন্ডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৫৫ পিএম, ০৪ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার
দেওভোগের শরীফ হত্যাকারীদের শাস্তি দাবীতে মানববন্ধন

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার দেওভোগ এলাকার শরীফ মাদবর হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন হয়েছে।

৪ জুন বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে শরীপের বাবা আলাল ও মা শরীফা বেগম কান্না জড়িত কণ্ঠে ছেলে হত্যার বিচার দাবী করেন। সেই সঙ্গে এর সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তি দাবী করেন।

প্রসঙ্গত ফতুল্লার দেওভোগ আদর্শনগর এলাকায় কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় নিহত ব্যবসায়ী শরীফ হত্যাকান্ডের মামলায় অন্যতম প্রধান আসামি সহ ১৭জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রধান আসামি অপরাধ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে যেখানে হত্যাকান্ডের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে অপরাধ স্বীকার করেছে তিনজনই।

ফতুল্লা মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শাহাদাৎ হোসেন শান্ত বলেন, ‘গত ২৭ এপ্রিল শরীফ হত্যাকান্ডের ঘটনায় এজাহার নামীয় প্রধান আসামি শাকিল ও লালনকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়াও ২৬ এপ্রিল রাব্বি, নূর মোহাম্মদ, ছোট শাকিল ও শাহিন সহ ৭জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। যার মধ্যে র‌্যাবের অভিযানে ২জন গ্রেফতার হয়। এছাড়াও এ মামলায় সন্দেহভাজন ও সিসিটিভি ফুটেজ দেখে আরো ৮জনকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের মধ্যে থেকে লিমন যে শরীফের বুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে সে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। এছাড়াও আরো দুইজন অপরাধ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দী দিয়েছে।’

ঘটনার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘মূলত এলাকায় প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে ঘটনা ঘটেছে। ছোট শাকিল স্থানীয় একটি মেয়ের কাছে ৩০ হাজার টাকা দাবি করে। তখন ওই মেয়ে শরীফের কাছে নালিশ দেয়। পরে শরীফ এটির বিচার করে সমাধান করে দেয়। এতেই শাকিল গ্রুপের লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এর সূত্র ধরে শরীফের দোকান লকডাউনে খোলা থাকায় দোকানের সাটারে লাথি সহ লাঠি দিয়ে আঘাত করে হুমকি ধমকি দেয় যাতে দোকান না খোলা রাখে। আর ওইদিন শরীফের মামাতো ভাই সোহাগ শাকিল গ্রুপের রাজু নামে একটি ছেলেকে মারধর করে। এতে ক্ষোভে রাজুকে না পেয়ে শরীফকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে লিমন আঘাত করে। পরে শরীফকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করে।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর