শহীদ মিনারে মাস্ক ছাড়া ঘুরাঘুরি মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ১০:১৪ পিএম, ০৬ আগস্ট ২০২০, বৃহস্পতিবার
শহীদ মিনারে মাস্ক ছাড়া ঘুরাঘুরি মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব

সারাদেশের মতো নারায়ণগঞ্জজুড়েও বইছে প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ। নারায়ণগঞ্জবাসীকে সচেতন করা সম্ভব হচ্ছে না। তাদের মধ্যে সচেতনতার কোনো বালাই লক্ষ্য করা যাচ্ছে না। যে যার মতো করে কোনো স্বাস্থবিধি না মেনেই চলাচল করছে।

বিশেষ করে নারায়ণগঞ্জ শহরের প্রাণকেন্দ্র চাষাঢ়া এলাকার শহীদ মিনারে সাধারণ মানুষজন মাস্ক ছাড়াই ঘুরাঘুরি করছে। সেই সাথে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্বও। ফলে নিজেরাও সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছে এবং অন্যদের মাঝে সংক্রমণের ঝুঁিক ছড়াচ্ছে। তবে এ ব্যাপারে প্রশাসনের কোনো নজরদারি পরিলক্ষিত হচ্ছে না।

সূত্র বলছে, গত ৮ মার্চ দেশের প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় নারায়ণগঞ্জে। এরপর থেকেই নারায়ণগঞ্জ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে থাকে। আর এভাবে ছড়াতে ছড়াতে দেশের প্রথম পর্যায়ে চলে আসে করোনা ভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা। যা এখনও বলবৎ রয়েছে।

ফলশ্রুতিতে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের শুরু থেকেই নারায়ণগঞ্জবাসীকে সকর্ত করা হয়। ধীরে ধীরে সবকিছু বন্ধ করে দেয়া হয়। যার ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারও বন্ধ করে দেয়া হয়। এরই মধ্যে ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জে সবকিছু সচল হতে শুরু করে। সেই সূত্র ধরে যার ধারবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জ শহরের অন্যতম প্রধান ব্যস্ত জায়গা হচ্ছে চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার খুলে দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ শহরের অন্যতম প্রধান ব্যস্ত জায়গা হচ্ছে চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার। এখানে প্রতিদিন সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত নানা শ্রেণি পেশার মানুষের আড্ডা জমে থাকে। কিন্তু প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের কারণে চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার বন্ধ ছিল। ফলে সাধারণ মানুষজনের আড্ডাও বন্ধ ছিল।

এদিকে নারায়ণগঞ্জে সবকিছু সচল হওয়ার সাথে সাথে চাষাঢ়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারও খুলে দেয়া হয়। সেই সাথে ফের পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে নারায়ণগঞ্জ শহীদ মিনার। তবে শহীদ মিনারে প্রবেশের ক্ষেত্রে স্বাস্থবিধির অনুসরণ করা হচ্ছে না। মাস্ক ছাড়াই অবাধে প্রবেশ করছে সাধারণ মানুষজন। সেই সাথে একে অপরের শরীর ঘেঁষেই জমজমাট আড্ডা জমে উঠছে। সামাজিক দূরত্বের কোনো বালাই রক্ষা হচ্ছে না।

আর এ বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বইছে তীব্র ক্ষোভ। কেউ কেউ আবার শহীদ বন্ধ করে দেয়ার দাবী জানান। আবার কেউ কেউ প্রশাসনের জোর নজরদারির দাবি জানিয়েছেন। তবে সকলেই বক্তব্য হচ্ছে শহীদ মিনারে প্রবেশের ক্ষেত্রে যেন স্বাস্থ্যবিধির অনুসরণ করা হয়।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর