বৈশাখী রঙ লাগেছে নারায়ণগঞ্জ শহরে


সিটি করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ০৫ এপ্রিল ২০১৮, বৃহস্পতিবার
বৈশাখী রঙ লাগেছে নারায়ণগঞ্জ শহরে অনলাইন থেকে নেওয়া প্রতিকী ছবি।

বাংলাদেশ তথা বাংলা ভাষা ভাষিদের বড় উৎসব পহেলা বৈশাখ। বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনটি খুব ঘটা করে পালন করে এখানকার বাসিন্দারা। আর এই পহেলা বৈশাখকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জের আনাচে কানাচে রঙ লাগতে শুরু করেছে। ব্যবাসায়ীরা তাদের পসরা সাজাতে শুরু করেছে। আর এই সুযোগকে কাজে লাগাতে বিনোদন কেন্দ্র, হোটেলগুলোর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মেলার আয়োজকরা তাদের আয়োজনে হাত লাগিয়েছেন।

কয়েকদিন থেকে শুরু হয়ে গেছে আলোক সজ্জা, স্টল সাজানো, প্রচার-প্রচারণার কাজ। বৈশাখকে সামনে রেখে বুটিকের দোকান, ছোট ছোট পোষাকের কারখানায় ব্যস্ততা চলছে। সাজ-সজ্জার ঘর গুলোতে থরে থরে সাজিয়ে রেখেছে রঙ বেরঙ এর পণ্য।

শহর এবং শহরের বাইরের দোকানগুলো তাদের দোকানে বৈশাখী পোষাক উঠিয়েছে। মিষ্টিসহ খাবারের দোকানগুলো তাদের বাড়তি চাহিদা মেটানোর জন্য কারিগরদের প্রস্তুত করছেন। অপরদিকে ফুটপাতের নতুন করে দোকান বসতে শুরু করেছে। সবগুলো দোকানই পোষাকের দোকান। কয়েকদিন ধরে এসব দোকান খুলে বসতে শুরু করেছে হকাররা। এতে কানায় কানায় ফুটপাত ভরে উঠেছে। অনেক ক্ষেত্রে ক্রেতাদের দাড়ানোর যায়গা হয় না।

দোকানি রফিক বলেন, পোষাক ব্যবসার কয়েকটি মৌসুম রয়েছে। তার মধ্যে একটি মৌসুম হচ্ছে পহেলা বৈশাখ। এই দিনকে কেন্দ্র করে সাধারণ মানুষের মঝে আনন্দের হিল্লোল বয়ে যায়। আর এতে সবাই চায় তাদের পোশাকটি হউক উৎসবের পোষাক।

আহসান বলেন, বেচাকেনা শুরু হয়েছে। তবে এখনো বিক্রির ধুম পড়েনি। তবে দিন দিন তা বাড়ছে। পোষাক, জুতা, প্রসাধনি কোনটাই বাদ পড়ছে না। লাভের পরিমান বেশি, তাই এই সময় দোকানের সংখ্যা একটু বেশি হয়ে থাকে। অনেক দোকানি রয়েছেন যারা মৌসুমি ব্যবসায়ী। তারা ১০ থেকে ১৫ দিন ব্যবসা করে থাকেন। আবার অনেক দোকানি রয়েছেন যারা মালামাল বেশি মজুদ করায় আরেকটি দোকান নিয়ে তা বিক্রি বাড়ানোর চেষ্টা করেন।

খাবারের দোকানি মনির বলেন, সাধারণত কোন দিবসে খাবারের বেচাকেনা এমনেতি বেশি হয়ে থাকে। তবে পহেলা বৈশাখে রসনা বিলাসীরা মুখরোচক খাবারের প্রতি নজর বেশি থাকে। সেদিকে খেয়াল করেই আমরা খাবার সাজিয়ে থাকি।

উৎসবকে আরো বাড়িয়ে তুলতে ক্রেতা এবং ভোক্তা করই আগ্রহের কম নেই। বাঙালীর চিরাচরিত এ উৎসব আরো প্রণবন্ত হবে এমনটাই আশা করে নারায়ণগঞ্জবাসী।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
সাহিত্য-সংস্কৃতি এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর