rabbhaban

উদ্বোধনের আগেই বৈশাখী অনুষ্ঠানে নজর কেড়েছে চুনকা পাঠাগার


সিটি করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৩৮ পিএম, ১৬ এপ্রিল ২০১৮, সোমবার
উদ্বোধনের আগেই বৈশাখী অনুষ্ঠানে নজর কেড়েছে চুনকা পাঠাগার ফাইল ফটো

উদ্বোধন হওয়ার আগেই জমে উঠেছে আলী আহাম্মদ চুনকা পাঠাগার। নির্মাণাধীন থাকা অবস্থায় পাঠাগারের বাইরে স্বল্প সময়ের কয়েকটি অনুষ্ঠান হলেও এবার সাত দিনের কর্মসূচি চলছে এ পাঠাগারে। যার ফলে ঘোষণা ছাড়াই উদ্বোধন হয়েছে বলে মানছেন নগরবাসী। তবে সিটি করপোরেশনের দাবি পাঠাগারের সব কাজ শেষ হয়নি। কাজ শেষ হওয়ার পরই নির্দিষ্ট সময়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা হবে।

জানা গেছে গত ১৩ এপ্রিল থেকে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে বর্ষবরণ ও ৩৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সাত দিনের কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। যার মধ্যে গ্রন্থমেলা, চিত্রকলা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী শুরু হয় ১৩ এপ্রিল বিকাল থেকে। যার ধারাবাহিকতায় আগামী ২০ এপ্রিল সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় বাউল গানের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি হবে। তবে এ অনুষ্ঠান মালার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো নাটক কিনু কাহারের থেটার, দি জুবলী হোটেল, কহে বীরাঙ্গনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে,  প্রায় ৭ হাজার ৫৩৩ স্কায়ার বর্গফুট জায়গায় জুড়ে ৬ তলা বিশিষ্ট ২৬ কোটি টাকা ব্যয় সাপেক্ষে পুননির্মিত ভবনের কাজ শুরু হয় ২০১১ সালের ২২ মে। চার বছরে নির্মাণকাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা থাকলেও ত্রুটিপূর্ণ নকশা ও মামলার জেরে তিন দফায় টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ দুই বছর কাজ বন্ধ থাকে। তারপর পুনরায় ২০১৪ সালের ৯ মার্চ আবারো কাজ শুরু হয়।

১৯৮৪ সালে পৌরপিতা মারা যাওয়ার পরে পৌর পরিষদ সিদ্ধান্ত নিয়ে আলী আহমেদ পৌর মিলনায়তন নামকরণ করা হয়। এরপর থেকেই এখানে সাংস্কৃতিক, এমনকি রাজনৈতিক কার্যক্রম চলে আসছিল। পরে পাঠাগারটির সৌন্দর্য্যে বৃদ্ধি ও আধুনিকরণের জন্য ২০১১ সালের ৭ মে এটা পুননির্মাণের জন্য ভিত্তিপ্রস্তর করা হয়। তার থেকে এখনও পর্যন্ত নির্মাণকাজ চলছে।

এদিকে সরেজমিনে দেখা যায়, পাঠাগারের প্রায় সব কাজ শেষ। বেশ বড় আকারে পাঠাগারের সামনে লাগানো হয়েছে ‘আলী আহাম্মদ চুনকা নগর মিলনায়তন ও পাঠাগার’ নাম ফলক। এছাড়াও প্রবেশমুখে দেয়ালে লাগানো হয়েছে বিশাল আকৃতির নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আলী আহমেদ চুনকার মুর‌্যাল। তবে ভিতরে ফার্নিচার ও অন্য বিভিন্ন কাজ চলছে।

পাঠাগারটিতে রয়েছে ৪ হাজার ৮শ বর্গফুটের উন্মুক্ত অভ্যর্থনাঙ্গন, আরো ৪টি বিভিন্ন আকারের উন্মুক্ত স্থান, হল, ঝুলন্ত ছাদ, দুইটি স্থায়ী প্রদর্শনী ডিসপ্লে, আর্ট গ্যালারী ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীর সুব্যবস্থা, ৩০০ আসনের মূল মিলনায়তন, ৭টি প্রবেশ পথ, আধুনিক শব্দের ব্যবস্থা, গল্প করার মতো খোলা জায়গা, বাগান, শিশু ও বড়দের জন্য পাঠাগার প্রমুখ।

এদিকে একের পর এক অনুষ্ঠান চলায় নগরবাসীর মধ্যে কথিত রয়েছে চুনকা পাঠাগার উদ্বোধন হয়ে গেছে। তবে বিষয়টি নিয়ে সিটি করপোরেশনের কোন কর্মকর্তা অনুষ্ঠানিক কোন বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

সিটি করপোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী জীবন কৃষ্ণ সরকার বলেন, ‘পাঠাগারের সব কাজ শেষ হয়নি। কাজ শেষ হওয়ার পরই নির্দিষ্ট সময়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা হবে।’

নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েল বলেন, ‘নগরবাসীর জন্য সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে পাঠাগার উন্মুক্ত করা হয়েছে। তবে উদ্বোধন করা হয়নি যার ফলে সাংস্কৃতিক জোট সাত দিনের কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়তো আরো পরে হবে।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
rabbhaban
আজকের সবখবর