‘জাহাঙ্গীর তুমি মরে বেঁচে গেছ’


জামাল উদ্দিন কালু | প্রকাশিত: ০৮:৩৪ পিএম, ২৩ জুন ২০১৮, শনিবার
‘জাহাঙ্গীর তুমি মরে বেঁচে গেছ’

১০জুন পবিত্র রমজানের রোজা প্রায় শেষ। সেহরী খেয়ে শোবার সময় হঠাৎ টেলিফোন- কে করেছে জানার আগেই একটি দুঃসংবাদ আমার আদরের ছোট ভাই জাহাঙ্গীর কমিশনার আর ইহ জগতে নাই। সংবাদটি পেয়ে ঠিক বর্তমান মূহূর্তের জন্য অত্যন্ত বেদনাদায়ক ও দারুণভাবে মর্মাহত হয়েছি। ঘুম আর নেই, অপেক্ষা কতক্ষণে আমার প্রিয় সহযোদ্ধা (রাজনৈতিক) সর্বসময়ের পরামর্শ দাতাকে শেষ এক নজর দেখব! চলে গেলাম মনে হচ্ছে আমার দেহ মন কাপছে। কারণ আমিও ওর মত শক্তিহীন বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত।

দু’নয়ন ভরে দেখলাম, শান্ত নিথর দেহ ঘুমিয়ে আছে। আমি মনের সান্তনা খুঁজছিলাম, না দেখি সত্যি সত্যি আল্লাহ্র প্রেরিত আজরাঈল খুব শান্ত আলতোভাবে তোমার জান নিয়ে গেছে। যেহেতু তুমি আল্লাহর বান্দা নবীজির উম্মত-তাই আজরাঈল খুব হিসাব কষে তোমার জান নিয়ে গেল।

সারা শরীরে জখমের বা অন্য কোন চিহ্ন নেই। কত ভাগ্যবান তুমি! আল্লাহ তোমাকে জান্নাতবাসী করুন। তোমার সৌভাগ্য, ঘুমিয়ে আছ ছোট্ট একটি নির্জন, নিরব কুটিরে। তোমার কুটিরটি বনলতা ঘেরা, না তোমাকে আর খুঁজে পাবো না। ছয় তলা ভেঙ্গেও আর তোমার চিহ্ন পাবে না। তবে বলা যায় না ভবিষ্যতে অজ্ঞাত নাশকতার মামলার আসামী হও কিনা? ভয় করোনা- তোমাকে ধরবে না, গ্রেফতার করতে হলে আদালতের অনুমতি লাগবে। আদালত যদি তোমার অবস্থান জানে তবে হয়তো অনুমতি দিবে না। তুমি ঘুমিয়ে থাক-শান্ত হয়ে, তোমার নেতা কর্মীদের কথা চিন্তা করো না। ওদের জন্য একমাত্র শেষ ভরসা মহান সৃষ্টিকর্তা। আল্লাহ ন্যায় ও সত্যকে করেছে জয় মিথ্যাকে করেছে ধ্বংস। নির্যাতনের মাত্রা যত বেশী হয় শেষ পর্যন্ত বেঁচে থাকার লড়াইয়ে শপথ হয় প্রতিরোধ। জয় হয় সত্যের, মিথ্যা হয় ধ্বংস। জাহাঙ্গীর রাজনৈতিক ব্যক্তিগত, সামাজিক অবস্থানের কথা ভোলার নয়। তবে তুমি বেঁচে গেছ! তুমি যতই ভাল হওনা কেন, তুমি আসলে ভাল না। কারণ তুমি বিএনপি কর। তাই তোমার জন্য নাশকতা, অজ্ঞাত মামলার অভাব ছিল না। তোমাকে বহুবার গ্রেপ্তার করেছে। তোমার ভগ্ন দেহ কতনা কষ্ট পেয়েছে। তোমার জন্য কষ্ট হয়েছে, কিন্তু কিছুই করার ছিল না। আদালতের মাধ্যমে যখন তুমি মুক্তি পেতে তখন শুধু একটি ভয়ই তোমার শুভাকাঙ্খীদের মাঝে। আবার নাকি কোন নতুন মামলায় তোমাকে জেল গেট থেকে গ্রেফতার করে! আমি তোমাকে খুব কাছ থেকে জেনেছি, তুমি তোমার প্রিয় দল বিএনপির প্রতি কত আত্মবিশ্বাসী ছিলে। কষ্ট হয় তোমার প্রিয় নেত্রীও কিন্তু মিথ্যা মামলায় বন্দি রয়েছে। জেলের ঘানি টানছে বর্তমান শাসন আমলে, আশ্চর্য হই না! গণতন্ত্র, মানবতাবোধ আজ প্রায় শেষ হয়ে গেছে। ভোটের অধিকার প্রায় বিলুপ্ত। রাজনীতিতে তোমার সিনিয়র ছিলাম। তবু সব বিষয়ে তোমার পরামর্শ সবসময় প্রয়োজন ছিল।

যুবদল প্রায় তোমার হাতেই গড়া ছিল। তুমি কষ্ট নিওনা। আল্লাহ যখন যা করেন সব তার বান্দাদের মঙলের জন্যই করেন। আধার সব সময় থাকে না, আলোর দেখা মিলবেই। হামলা-মামলা করে মানুষকে কষ্ট দেয়া যায় কিন্তু একটি সময় আসে বা আসবে যে যার জন্য কুয়া খুড়ছে সেই কুয়ায় তারই ভাগ্য নির্ধারণ করেছে মহান আল্লাহ। জাহাঙ্গীর তুমি চলে গেছ পৃথিবী ছেড়ে, এখনো আমি ও আমরা বেঁচে আছি নানা ধরণের কষ্ট নিয়ে। তারপরও আল্লাহর নিকট শুকরিয়া বয়স প্রায় ৭০ হতে চলেছে, নানা রোগে আক্রান্ত। সারাক্ষণ দুশ্চিন্তা- তবে পরক্ষণেই সব ভুলে যাই। সৃষ্টিকর্তাকে স্মরণ করি। একদিন তোমার বনলতা ঘেরা ছোট্ট কুটিরটি ফুলে ফুলে ভরে যাবে হয়তো বা সেই দিন খুব বেশী দূর নয়। জনগণই হচ্ছে ক্ষমতার উৎস- একদিন গণতন্ত্র মুক্তি পাবে- তোমার আত্মা শান্তি পাবে। লেখক : বিএনপি নেতা।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
মন্তব্য প্রতিবেদন এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর