rabbhaban

সেলিম ওসমান আইভী নির্বাচন প্রসঙ্গে যা বললেন ‘গুরু’ আনোয়ার হোসেন


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:১৭ পিএম, ২৭ জুন ২০১৮, বুধবার
সেলিম ওসমান আইভী নির্বাচন প্রসঙ্গে যা বললেন ‘গুরু’ আনোয়ার হোসেন

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমানের দেওয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন।

তিনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেছেন, ২৬ জুন সেলিম ওসমানকে যে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে সেটা ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে সংবর্ধনা। এখানে তো কোন দলের ব্যাপার না। এটা রাজনৈতিক ব্যাপার না। মানুষ তাকে আবার নির্বাচন করতে অনুরোধ করেছে। আমরা যারা আওয়ামীলীগ করি আমাদের নির্দেশনা যা আসবে আমরা তা নিয়েই কাজ করবো। আমাদের যে প্রার্থী আসবে আমরা তাকে নিয়েই কাজ করবো। এখন যদি তাকে নমিনেশন দেয় তাহলে তাকে নিয়েই করবো। সে বলেছেন তাকে মার্কা না দিলেও সে আনারস মার্কায় নির্বাচন করবে কিন্তু আমরা তো আর তা পারবো না। আমাদেরকে নৌকা মার্কা ও দলের নির্দেশনা যদি জোটের প্রার্থী দেয় তাহলে আমরা সেদিকেই থাকবো।

তিনি বলেন, সেলিম ওসমান জাতীয় পার্টির মার্কায় নাকি স্বতন্ত্র নির্বাচন করবে এটা তার ব্যাপার। আর মেয়র তার ডাকে সাড়া দিচ্ছেন কি দিচ্ছেন না এটা মেয়রের ব্যাপার আর তার ব্যাপার। আমরা আসলে যেটা মনে করি এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে দলের জিনিস আর এলাকার উন্নয়ন এক জিনিস। সিটি করপোরেশনের উন্নয়নের মালিক সিটি করপোরেশনের মেয়র। এখানে এমপির কোন কিছু নেই, তবে যদি এমপি সহযোগিতা করেন কিংবা জনপ্রতিনিধিরা সহযোগিতা চান তাহলে তা ভিন্ন। এখন দেখা যাক ভবিষ্যৎ কি হয়, সিটি করপোরেশনে যে উন্নয়ন হচ্ছে না তা ঠিক না আর একসাথে বসতে না পারলে যে উন্নয়ন হবে না তাও না। সিটি করপোরেশনে কাজ হচ্ছে। তবে একসাথে বসতে পারলে ভালো কারণ মুখ ঘুরিয়ে থাকলে জনগণ উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হয়। দল এক জিনিস আর উন্নয়ন এক জিনিস। দল দলের যায়গায় থাকবে আর উন্নয়ন সকল কিছুর উপরে উঠে করতে হবে। আমি আশা করি আমরা সকলেই মিলিতভাবে জনগনের সাথে কাজ করবো। সেলিম ওসমান দীর্ঘ যাবৎ নাসিক মেয়র আইভীর সাথে এক টেবিলে বসার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এর আগে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান বলেন, আমাকে যতই সংবর্ধনা দেন না কেন আমি ব্যর্থ। আমি এমপি হতে পারি নাই। আমি ছোট ভাই ও বোনের (শামীম ওসমান ও আইভী) ঝগড়া থামাতে পারি নাই। কারা এসব ঝগড়া করায় কারা এটা সৃষ্টি করায়। আমি দায়িত্ব দিয়েছি মোহাম্মদ আলী, এমপি বাবলী, আমিনুর রহমানের কাছেও। কিন্তু তারাও ব্যর্থ।

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি হিসেবে ৪ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে ২৬ জুন মঙ্গলবার বিকেলে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। চার বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ওই সংবর্ধনার আয়োজন করে।

এর আগে ২০১৪ সালের ২৬ জুন উপ নির্বাচনে জাতীয় পার্টি হতে এমপি নির্বাচিত হন সেলিম ওসমান। ওই বছরের ৩০ এপ্রিল সেলিম ওসমানের বড় ভাই জাতীয় পার্টির সভাপতি মন্ডলীর সদস্য নাসিম ওসমানের মৃত্যু হলে আসনটি শূন্য হয়।

সেলিম ওসমান নেতাকর্মীদের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে বলেন, ‘আমি আবারো সবার সঙ্গে কথা বলবো। আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত উন্নয়ন করবো। সেপ্টেম্বরে উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরবো। তখন আপনাদের মতামত নিব। আপনারা চাইলে মার্কা ছাড়াও সেলিম ওসমান নির্বাচন করতে পারে। এটা আজ প্রমাণিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেটা নির্ধারণ করবেন সেটাই হবে। তিনি যদি বলেন এ মার্কায় নির্বাচন করো। তাহলে ওই মার্কার পক্ষেই সবাই কাজ করবে। এর আগে প্রধানমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জে এসে নৌকার উপরে লাঙল তুলে দিয়ে গেছেন। সুতরাং এটা নিয়ে এখনই কিছু বলার নাই।’

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আমি সবার সঙ্গেই কথা বলতে পেরেছি। পারি নাই সিটি করপোরেশনের মেয়রের সঙ্গে। আমি সিটি করপোরেশনের মেয়রের সঙ্গে কথা বলতে চাই। আমি ডিক্লেয়ারেশন দিব আমি সিটি করপোরেশনের সাথে কথা বলতে চাই। আজকে এতগুলো কমিশনার এসেছেন আপনাদের দায়িত্ব যদি উনি আমাকে না করেন তাহলে এমনও হতে পারে আমি অপেক্ষা করবো। যদি তিনি বসতে রাজি না হয় তাহলে নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষকে দুর্ভোগ থেকে মুক্তি এবং নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নে স্বার্থে আগামী সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ থেকে অন্য কেউ এমপি হবে। অনুরূপ সংসদ সদস্য আল্লাহ যদি আমাকে বাঁচিয়ে রাখে আমি সিটি করপোরেশনের চেয়ারে বসবো। আমার নারায়াণগঞ্জের মানুষ ময়লা খাবার খায়, ডায়রিয়ায় ভোগে, রাস্তায় ময়লার স্তূপ হাটতে পারেনা।  ছোট বোন তোমার বাবা আমার খুব পছন্দের মানুষ। আপনার চেয়ারে বসে কাজ করতে সমস্যা হলে আমাদের বলেন আমরা সহযোগিতা করবো। আমাকে অনুমতি দিয়ে দেন সিটি কর্পোরেশন এলাকায় কাজ করার। তারপর কিভাবে শহর পরিস্কার রাখতে হয়, কিভাবে যানজটমুক্ত রাখতে হয় করবো।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
rabbhaban
আজকের সবখবর