রাজনীতি করতে জানি না : সেলিম ওসমান


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:৩৫ পিএম, ০৫ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার
রাজনীতি করতে জানি না : সেলিম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমান বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জবাসী যতটুকু ভালো থাকার কথা ছিল সেটা নাই। এজন্য অপরাজনীতিকে চাপা দিতে হবে। এক সময়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে দেশের আয় ছিল সেটা আর নাই। আমরা অনেক কিছু হারিয়েছি। নারায়ণগঞ্জের মানুষের অনেকের মধ্যে অপরাজনীতি ‘কালচারালে’ পরিণত হয়েছে। অপরাজনীতি বেড়ে যাওয়ার কারণে আমরা একসাথে বসতে পারছি না। আজ একজনের সঙ্গে বসতে পারলে অন্যদের সঙ্গে বসতে পারছি না। গত চার বছরে এমপি হিসেবে সবাইকে নিয়ে একসঙ্গে বসতে না পারাটা বড় একটি ব্যর্থতা।’

তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জে ব্যক্তি কম্পিটেশন বেড়ে গেছে। এ কারণে অনেক উন্নয়ন হচ্ছে না।

মদনগঞ্জ ও সৈয়দপুর পয়েন্টে শীতলক্ষ্যা নদীর উপর সেতুর নির্মাণ কাজ প্রসঙ্গে বলেন, ‘ওই এলাকাতে এখন কিছু ব্যবসা ক্ষেত্র গড়ে তোলার চেষ্টা করা হচ্ছে। সৌদির অর্থায়নে চাইনিজরা সেই নির্মাণ করছে। কিন্তু আমাদের কেউ কেউ সেখানে ব্যবসা করতে গিয়ে মালামাল সাপ্লাই দিতে চায়। এসব নিয়ে চাইনিজদের উপর স্থানীয় কেউ হামলাও করেছে।’

সেলিম ওসমান বলেন, ‘বর্তমানে রাজনীতিকে অনেকে একটি পেশা হিসেবে নিয়েছেন। নির্বাচন আসলে অনেকে সিজনাল পেশা হিসেবে নিয়েছে। ‘আমি ওনাকে সমর্থন করবো’ এসব বলে ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা করে। এটা একটি সাময়িক ব্যবসা হিসেবে নিয়েছে অনেকে। অথচ এখন আর সেই দিন নাই যে মুরুব্বীরা বলে দিবেন আর ভোট দিবেন। মানুষ এখন অনেক সচেতন। ডিজিটাল যুগে মানুষ বুঝে শুনেই ভোট দেন।’

২০১৪ সালের ২৬ জুন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের উপ নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে এমপি হন সেলিম ওসমান। ২৬ জুন ছিল সেই এমপি হওয়ার চার বছর পূর্তি। এ উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি শহরের খানপুরে ৩০০ শয্যা হাসপাতালের সামনে সেলিম ওসমানকে সংবর্ধনা দেন। সেখানে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে উদ্দেশ্য করে সেলিম ওসমান বলেন, ‘আমি সবার সঙ্গেই কথা বলতে পেরেছি। পারি নাই সিটি করপোরেশনের মেয়রের সঙ্গে। আমি সিটি করপোরেশনের মেয়রের সঙ্গে কথা বলতে চাই। আমি ডিক্লেয়ারেশন দিব আমি সিটি করপোরেশনের সাথে কথা বলতে চাই। আজকে এতগুলো কমিশনার এসেছেন আপনাদের দায়িত্ব যদি উনি আমাকে না করেন তাহলে এমনও হতে পারে আমি অপেক্ষা করবো। যদি তিনি বসতে রাজি না হয় তাহলে নারায়ণগঞ্জের সাধারণ মানুষকে দুর্ভোগ থেকে মুক্তি এবং নারায়ণগঞ্জের উন্নয়নে স্বার্থে আগামী সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ থেকে অন্য কেউ এমপি হবে। অনুরূপ সংসদ সদস্য আল্লাহ যদি আমাকে বাঁচিয়ে রাখে আমি সিটি করপোরেশনের চেয়ারে বসবো। আমার নারায়াণগঞ্জের মানুষ ময়লা খাবার খায়, ডায়রিয়ায় ভোগে, রাস্তায় ময়লার স্তূপ হাটতে পারেনা।  ছোট বোন তোমার বাবা আমার খুব পছন্দের মানুষ। আপনার চেয়ারে বসে কাজ করতে সমস্যা হলে আমাদের বলেন আমরা সহযোগিতা করবো। আমাকে অনুমতি দিয়ে দেন সিটি কর্পোরেশন এলাকায় কাজ করার। তারপর কিভাবে শহর পরিস্কার রাখতে হয়, কিভাবে যানজটমুক্ত রাখতে হয় করবো।’

ওই প্রসঙ্গে সেলিম ওসমান বলেন, ‘রাজনীতি করতে জানি না। মাঝেমধ্যে খোচা দিতে পারলে ভালো লাগে। অন্তত আলোচনা হয়। উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তবে আসলে ব্যাপারটি তা না। আসলে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের মেয়র আমার স্নোহেরও। ১৩ বছরের বেশী সময় ধরে তিনি কর্তৃত্ব হাতে নিয়েছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী ও আমারও অত্যন্ত স্নেহেরও। আমরাও কিন্তু সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেছি তাকে ভোট দিতে। আমরা মনে করি প্রধানমন্ত্রী ভালো প্রার্থী দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘আমি মেয়রকে কখনো দোষী করি না। যদি তাঁর আশেপাশের লোকজন যদি সহযোগিতা করে তাহলে অনেক কিছু সম্ভব। কারণ আশেপাশের লোকজন ভালো না হলে আগানো যাবে না। যদি তাঁর আশেপাশের লোকজন তাকে বলে আমরা একত্রে বসতে পারি কিন্তু উপদেশ দিতে পারি সেটা তো দোষের না। তাঁর উপর আমার কোন রাগ অভিমান নাই। আমি তাকে অত্যন্ত স্নেহ করি। আমরা একত্রে বসতে পারলে অনেক উন্নয়ন সম্ভব। হারানো প্রাচ্যের ডান্ডির কিছুটা রূপও ফিরিয়ে আনতে পারি।’

তিনি বলেন, ‘মেয়র আমাকে একবার অধিকার দিয়েছিলেন আমি চেষ্টা করে দেখেছি। তিনি যদি এখন অধিকার দেন তাহলে আমি চেষ্টা করে দেখতে পারি। অধিকার আমাকে দিলে আমি কাজ করতে পারবো।’

নারায়ণগঞ্জের সমসাময়িক বিষয় নিয়ে নিউজ নারায়ণগঞ্জের বিশেষ ফেসবুক লাইভ টক শো ‘নারায়ণগঞ্জ কথন’ এ সেলিম ওসমান এসব কথা বলেন।

নিউজ নারায়ণগঞ্জ স্টুডিওতে ৪ জুলাই বুধবার রাত সাড়ে ৮টা থেকে ১ঘণ্টা ১০ মিনিটের ওই সরাসরি টক শোর বিষয় ছিল ‘ব্যবসায়ী থেকে জনপ্রতিনিধি : ৪ বছরের মূল্যায়ন’। সঞ্চালনায় ছিলেন নিউজ নারায়ণগঞ্জের এডিটর ইন চিফ শাহজাহান শামীম।

প্রাণবন্ত টক শোতে বিভিন্ন দর্শকও প্রশ্ন করেন। ওইসব প্রশ্নেরও জবাব দেন এমপি সেলিম ওসমান। প্রায় ১ঘণ্টার টক শোতে সেলিম ওসমান বিগত ৪ বছরে নিজের অবস্থান, ব্যবসায়ী নেতা হিসেবে কাজ, শিক্ষাক্ষেত্রে কেন উন্নয়ন সহ নানা ক্ষেত্রের বর্ণনা দেন।         

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
টক শো এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর