বৃহত্তম ঈদের জামাতের প্রস্তুতি ৭০ ভাগ সম্পন্ন


স্টাফ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৮:১৫ পিএম, ১৮ আগস্ট ২০১৮, শনিবার
বৃহত্তম ঈদের জামাতের প্রস্তুতি ৭০ ভাগ সম্পন্ন

কিশোরগঞ্জের প্রায় সোয়া লাখ মুসল্লীর উপস্থিতির কারণে নামকরণ হয় শোলাকিয়া ময়দানে যেখানে প্রতি বছর দুটি ঈদের বৃহত্তম জামাত অনুষ্ঠিত হয়। এবার সেই শোলাকিয়ার রেকর্ড ভাঙার দিকেই যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ।

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের উদ্যোগে চলছে বৃহত্তম ঈদ জামাত আয়োজনের প্রস্তুতি। ইতোমধ্যেই ঈদের জামাতটি দেড়লাখিয়া নামে পরিচিতি পেতে শুরু করেছে সাধারণ মানুষের মাঝে।

মুসলমানদের অন্যতম বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদ-উল আযহা অনুষ্ঠিত হবে ২২ আগষ্ট। এবার একযোগে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ও একেএম সামসুজ্জোহা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে ঈদের প্রধান জামাত।

মুসল্লিদের সুবিধার্থে মাঠের আশেপাশের ময়লা আবর্জনা অপসারণ ও অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এবারের ঈদের নামাজে ইমাম সাহেবের মিম্বর থাকবে স্টেডিয়ামে। কেন্দ্রীয় ঈদগাহের বাঁশের তৈরী মূল কাঠামো ও ত্রিপল টানানোর কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে মাঠ পরিষ্কার ও টুকিটাকি কিছু কাজ।

শ্রমিকদের মাধ্যমে জানা যায় নিচের মাঠ পরিস্কার করে ধুয়ে মুছে নিচে ত্রিপল আর মাইক টানানোর কাজ শেষ হলেই নামাজের জন্য প্রস্তুত হবে ঈদগাহ।

এদিকে স্টেডিয়ামে প্রস্তুতির কাজ চলছে বেশ দ্রুতগতিতে। বাঁশের তৈরী ফ্রেমের কাজ শেষ হয়েছে। এখন চলছে মাঠের ঘাস কেটে পরিষ্কার করা ও ত্রিপল টানানোর কাজ। দুটি মেশিন ও ১০ জন শ্রমিক মিলে করছে ঘাস কাটার কাজ। একই সাথে ২০-২৫ জন শ্রমিক ত্রিপল টানানোর কাজে নিয়োজিত আছে।

কাজের সার্বিক দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান নিরা ডেকোরের্টস এর মালিক মো. জাকির হোসেন নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, কাজটা দেওয়া হয়েছে অনেক দেরিতে। তাই ঈদগাহ থেকে এখানকার কাজ পিছিয়ে আছে। তবে প্রায় ৭০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। প্রতিদির ৩৫-৪০ জন শ্রমিক দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে যাতে সঠিক সময়ে কাজ শেষ করতে পারি। মাঠের ঘাস কাটার জন্য দুইটা মেশিন আনা হয়েছে আবার শ্রমিক দিয়েও ঘাষ কাটানো হচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য।’

ঈদগাহে আগত মুসল্লিদের নিরাপত্তার জন্য আইন শৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে থাকবে দুই স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পোষাকধারী পুলিশের পাশাপাশি মাঠে থকবে সাদা পোষাকের পুলিশ। মাঠে প্রবেশ পথে থাকবে মেটাল ডিটেক্টর। সম্পূর্ণ মাঠটি রাখা হবে সিসি টিভি ক্যামেরার আওতায়।

মাঠে মুসল্লিদের নিরাপত্তা নিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো মনিরুর ইসলাম বলেন, ‘মাঠে পোষাক ও সাদা পোষাকে প্রায় ১৭৫ জন আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্য থাকবে। এছাড়া বিশেষ প্রয়োজনে মাঠে র‌্যাবের মোবাইল টিম খাকতে পারে।’

এসময় তিনি মুসল্লিদের শুধু জায়নামাজ নিয়ে মাঠে আসার অনুরোধ করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
ধর্ম এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর