খানাখন্দকে বেহাল দশায় দাশেরগাঁও-লাঙ্গলবন্ধ সড়ক


বন্দর করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:২৫ পিএম, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, সোমবার
খানাখন্দকে বেহাল দশায় দাশেরগাঁও-লাঙ্গলবন্ধ সড়ক

খানাখন্দে বেহাল আবস্থা বন্দরের মুছাপুর ইউনিয়নের দাশেরগাও-লাঙ্গলবন্ধ সড়কটি। ইটভাটার গাড়ী চলাচলের কারণে রাস্তাটি বর্তমানে জনগনের জন্য অভিশাপে পরিণত হয়োছে। সম্প্রতি চায়না ব্যাটারি কোম্পানি দিনে দুপুরে ভেকু দিয়ে রাস্তা খননের কাজ করলেও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ও জনপ্রতিনিধিরা নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছেন বলে জানা গেছে।

তবে ১ নং ওর্য়াড মেম্বার মান্নাত জানান, জনগন আমাকে ভোট দিয়ে চেয়ারে বসার অধিকার দিয়েছে। তাদের সাথে কেউ জুলুম করতে পারবে না। প্রতিষ্ঠান হলে এলাকার উন্নয়ন হবে। তারপরও তাদের বলেছি অনুমতি আনলেও রাস্তা খননের সাথে সাথে চলাচল উপযোগীও করে দিতে হবে। এমনকি আমি নিজে থেকে কাজটি করাবো।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সামান্য বৃষ্টিতেই সড়কটিতে কাদা, পানি মিলে একাকার হয়ে যায়। চলতে গিয়ে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। যেখানে জনগন হেঁটে চলাচল করতে পারে না। কখনও গ্যাস লাইন, কখনও পানির লাইন, কখনওবা অন্য কোনো কারনে প্রায় প্রতিদিনই রাস্তাটি কাটা হচ্ছে। আজ এক প্রতিষ্ঠান কাটছে তো কাল কাটছে অন্যটি। ফলে রাস্তাটিতে সাধারণ মানুষের পায়ে হেঁটে চলাচল করাই দুষ্কর হয়ে পড়েছে।

ফনকুল গ্রামের ব্যবসায়ী শিবপদ মন্ডল জানান, ‘মুছাপুর ইউনিয়নের এ রাস্তাটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। প্রায় ৪ থেকে ৫ কিলোমিটার এই রাস্তায় প্রতিনিয়ত কয়েক শ’ ইট বহনকারী ট্রাক, মাটির ও বালুর ট্রাক চলাচল করে। এছাড়া ইজিবাইক, নসিমন ও ইঞ্জিনচালিত ভ্যান চলাচল করে এই পথে। অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে উঠা ইটভাটার কারণেই এলাকার মানুষের চলাচলের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটির আজ বেহাল দশা।’

ইজিবাইক চালক রিপন লাল জানান, ‘রাস্তাটির পিচ উঠে বড় বড় খানা-খন্দে রূপ নিয়েছে। ইঞ্জিনচালিত বাহনগুলি প্রায় দূর্ঘটনায় পতিত হয়। দাশেরগাঁও-লাঙ্গলবন্ধ রাস্তা সংস্কার করা না হলে গাড়ি চালানো বন্ধ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে ইটভাটার গাড়ী চলাচল বন্ধ করে দিতে পারে।’

দাশেরগাঁও এলাকার আবু তালেব বলেন, ‘দুর্ঘটনার কবলে পরে হাত-পা ভেঙ্গে হাসপাতালে অবস্থান করছে এই এলাকার অনেক মানুষ। এছাড়া প্রতিদিনই ইটভাটার ট্রাকসহ ভারী যানবাহন প্রবেশ করায় রাস্তাটি আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে।’

বন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী বলেন, দাশেরগাঁও-লাঙ্গলবন্ধ সড়কটি চলাচলের যোগ্য না। সরকার রাস্তা সংস্কার করবে আর অবৈধ প্রতিষ্ঠানের কবলে পড়ে নষ্ট হবে তা কিভাবে? রাস্তাটির অবস্থা এত নাজুক যা ভাষায় প্রকাশ করার মত না। এ রাস্তার পাশেই প্রায় ১২ টি ইটভাটা আছে। ইটভাটার কারনে রাস্তাটির অবস্থা এত নাজুক। প্রায় প্রতিটি ইটভাটাই অবৈধ।’

মুছাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন বলেন, ‘রাস্তাটির অবস্থা খুবই খারাপ। চলাচলের যোগ্য না। আমাদের নারায়নগঞ্জ- ৫ আসনের সদস্য সেলিম ওসমান মহোদয়কে বলেছি। আগে এলজিআরডির আওতায় ছিল রাস্তাটি। বর্তমানে লাঙ্গলবন্ধ মেলা উন্নয়ন প্রকল্পের সাথে রাস্তাটির প্রজেক্ট। রাস্তাটি আরো চওড়া হবে। প্রয়োজনে সরকার জায়গা একোআর করে কিনে নিয়ে বড় করবে।’

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
ফিচার এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর