মর্গ্যান স্কুল : নাসিক ভাঙে এমপি গড়ে, পাশ হলো কোটি টাকার চেক


সিটি করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৯:০৯ পিএম, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
মর্গ্যান স্কুল : নাসিক ভাঙে এমপি গড়ে, পাশ হলো কোটি টাকার চেক

গত ১৯ মে রাতে আধারে নারায়ণগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ১০৮ বছরের পুরানো মর্গ্যান গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভবন ভেঙে দেয় নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। সেই ভবনের ভাঙার প্রতিবাদে যখন শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে আন্দোলনে ঘোষণা দেয়া হয় তখন স্কুলের গভর্নিংবডির সভাপতি আনোয়ার হোসেনকে ফোনে এমপি সেলিম ওসমান বলেছিলেন, ‘আমার শিক্ষার্থীদের সড়কে নামাবেন না। একজন ভেঙ্গেঙছ আমি ভবন গড়ে দিবো। কোন মতে কারো বিরোধী করতে শিক্ষার্থীদের মধ্যে জাগ্রত করা উচিত হবে না।’

সেই এমপি সেলিম ওসমানের ওয়াদা পূরর্ণে লক্ষ্যে ১৬ আগস্ট মর্গ্যান গালর্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের একটি অনুষ্ঠানে স্কুল ভবন নির্মাণের জন্য ৩ কোটি অনুদানের ঘোষনা দেয়া হয়। এমপি আরো বলেন, দেড় কোটি টাকার একটি চেক আজ তোমাদের গভর্নিংবডির কাছে তুলে দিচ্ছে। আরেকটি ১ অক্টোবর আরো দেড় কোটির টাকার চেক প্রদান করা হবে।

এর প্রেক্ষিতে তখন উপস্থিত শিক্ষার্থীরা এই ভবনটি নাম যেন ‘বঙ্গমাতা ফজলেতুন্নেছা ভবন’ করা হয়। এমপি সেলিম ওসমান শিক্ষার্থীদের চাহিদা অনুযায়ী তার নামকরণে সকল প্রস্তুতি করা জন্য সরকারী দপ্তরে কাজ করবেন।

৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় প্রথম দফা চেক এর দেড় কোটি টাকা ব্যাংকে পাশ হওয়ার সংবাদ শিক্ষার্থীদের মাঝে গভর্নিং বডির কর্মকর্তা জানালে উপস্থিত শিক্ষার্থীরা আনন্দিত হন। গভর্নিংবডির সদস্য এস এম আহসান হাবিব শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, আগামী ১ অক্টোবর আরো দেড় কোটি চেক এমপি প্রদান করবে। দ্রুত ভবনটি কাজ চলছে, অত্যাধুনিক ব্যবস্থা আকারে ৮ তলা ভবন হচ্ছে। কেউ মর্গ্যান স্কুল এন্ড কলেজের ঐতিহ্য ভবন ভাঙ্গে অন্য জন ভবন গড়ে দেয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, গভর্নিংবডির সদস্য মোশাররফ হোসেন জনি, ইয়া রাসূল মিয়া, হাজেরা  খাতুন, হুমায়ূণ কবির ও আবুল কালাম সহ সকল শিক্ষক ও শিক্ষিকাবৃন্দ।

গভর্নিংবডির সদস্য মোশাররফ হোসেন জনি নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, ঐহিত্যবাহী এই স্কুল থেকে বহু শিক্ষার্থী বাংলাদেশের সরকারী ও উচ্চ পর্যায়ে পদে ছিল ও রয়েছে। তাদের অবদান স্কুলের প্রতি রয়েছে, সেই সাথে এই স্কুলের শিক্ষার্থী বর্তমান সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী। তিনি কিভাবে মাত্র ২ শতাংশ জায়গা জন্য তাদের শিক্ষার সময়কাল ভবনটি রাতে আধারে ভেঙ্গে দেয়।

গভর্নিংবডি সদস্য এস এম আহসান হাবিব নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, মর্গ্যানের ১৯১ শতাংশ জায়গা ছিল। কিন্তু এখন স্কুলটি মোট জায়গা মাত্র ১২৩ শতাংশ। বাকি জায়গা আমরা খুঁজে পাচ্ছি না। আগে গভনিং বডি ও স্কুলের কতিপয় লোকজনের সেই জায়গা কি করেছে তাও সন্ধান করা হচ্ছে না। অনেকে বলছে, আগে যারা স্কুলটি দেখাশোনা করতো এখন তারা স্কুল জায়গা দখল করে ভুয়া কাগজ বানিয়ে ভবন করে বসবাস করছে।

গভর্নিংবডির সদস্য হুমায়ূণ কবির নিউজ নারায়ণগঞ্জকে বলেন, গভর্নিংবডি কমিটি সকল সদস্যরা স্কুল উন্নয়ন ও শিক্ষার্থীদের শিক্ষার মান উন্নত করার জন্য কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। স্কুলটি এখন মানসম্মত স্কুল রূপান্তর করা হয়েছে। স্কুলটি ভবন নিয়ে একটি ঘটনায় জনপ্রতিনিধির কর্মকান্ডে আমাদের চিহিৃত করে ছিল। কিন্তু এমপি সেলিম ওসমানের নিজস্ব উদ্যোগে স্কুলটির জন্য ৩ কোটি টাকা অনুদানে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে উচ্ছাসিত হয়ে পড়েছে।

উল্লেখ্য, ১৯ মে দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে বিদ্যালয়ের পূর্বদিকে প্রায় দেড়শ বছরের পুরোনো একটি দু’তলা ভবন নাসিকের ভেকু দিয়ে ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়। ২০ মে সকালে স্কুল কর্তৃপক্ষ ভবনটি পরিদর্শন করেছেন এবং এ ব্যাপারে অভিযোগ করে জানিয়েছেন অসৎ উদ্দেশ্য ছিল বলেই রাতের আধারে ভবনটি ভেঙ্গে ফেলেছেন নাসিক মেয়র ও কর্মকর্তারা।

প্রায় দেড়শ বছরের পুরোনো এই ভবনের দ্বিতীয় তলায় ছিল শ্রেনীকক্ষ যেখানে পাঠদান হতো এবং নিচতলায় একপাশে ছিল স্টোর রুম ও আরেক পাশে ছিল স্কুলের সকল শিক্ষার্থীদের জন্য রান্নাঘর। স্কুলটিতে রোজার মাস উপলক্ষে এখন ছুটি চলছে।

স্কুলের গভর্নিং বডির সদস্য আহসান হাবিব জানান, স্কুলটি বন্ধ থাকায় রমজানের রাতের অন্ধকারে শুধুমাত্র অসৎ উদ্দেশ্যেই এই ভবনটি ভেঙ্গে ফেলেছেন মেয়র আইভী। তার বাবার নামে নির্মিত আলী আহমেদ চুনকা পাঠাগারটির জন্যই দেড়শ বছরের পুরাতন এই ভবন ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। আমরা তার সাথে দেখা করে অনুরোধ করেছিলাম যেন এটি ভাঙ্গা না হয়, কারণ তার বাবা জীবিত থাকা অবস্থায়ই এই ভবনটি নির্মিত হয়েছিল। এতদিন কোন সমস্যা হলোনা হটাত কি সমস্যা হলো যে স্কুল ভবন ভাঙতে হবে। রাতের আধারে এ ধরনের কাজ আসলেই নিন্দনীয়, আমরা শিক্ষক, গভর্নিং বডি, ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের সাথে আলোচনা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেব।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভী জানান, এই ২ শতাংশ জমি নাসিকের। আরএস, সিএস সহ সকল কাগজপত্র রয়েছে আমাদের। নাসিক তার প্রয়োজনে জায়গাটি চাইতেই পারে। তা ছাড়া জমিটির ব্যাপারে বার বার স্কুলকে চিঠিও দেয়া হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
শিক্ষাঙ্গন এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর