rabbhaban

বধির সফলে তৈমূরের ৪ সুপারিশ


প্রেস বিজ্ঞপ্তি | প্রকাশিত: ০৬:১৪ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০১৯, শনিবার
বধির সফলে তৈমূরের ৪ সুপারিশ

ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব দি ডেফ ইন থাইল্যান্ড (থাইল্যান্ডের জাতীয় বধির সংগঠন) এর সাথে সভা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র পরিদর্শন শেষ করে দেশে ফিরেছেন বিশ্ব বধির সংস্থার এশিয়া মহাদেশের সমন্বয়ক ও বাংলাদেশ জাতীয় বধির সংস্থার চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। ২৯ ও ৩০ সেপ্টেম্বর এন.এ.ডি.টি’র সাথে মত বিনিময়ে বিশ্ব বধির সংস্থায় প্রেরণের জন্য তিনি ৪ বিষয়ে সুপারিশ করেন।

৫ অক্টোবর শনিবার প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। মত বিনিময়ে যে চারটি বিষয়ে সুপারিশ গৃহিত হয় তা হল- জাতিসংঘ ঘোষিত ইশারা ভাষাকে প্রতিটি রাষ্ট্রে রাষ্ট্রীয় ভাবে স্বীকৃত ও প্রতিষ্ঠিত করতে হবে, প্রতিবন্ধীদের সুরক্ষার জন্য জাতিসংঘ ঘোষিত বিশেষ সুবিধা প্রতিটি রাষ্ট্রে শতভাগ বাস্তবায়ন করতে হবে, বধির সমাজকে জনশ্রোতের মূল ধারায় ফিরিয়ে আনার জন্য শিক্ষা, প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তা প্রদান করার উপর গুরুত্ব অর্পণ করতে হবে, কেন বধির হয়ে শিশু জন্ম গ্রহণ করে এ জন্য গবেষণার উপর গুরুত্ব অর্পণ করার সুপারিশ করা হয়।

তিনি ২৯ ও ৩০সেপ্টেম্বর এন.এ.ডি.টি’র সাথে সভা করে বিশ্ব বধির সংস্থার পক্ষে মতবিনিময় করেন এবং ব্যাংককের পার্টানাকরামে অবস্থিত জাতীয় বধির প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ১ অক্টোবর পরিদর্শন করেন। এন.এ.ডি.টি এর সাথে মত বিনিময়ে বিশ্ব বধির সংস্থায় প্রেরণের জন্য সুপারিশ গৃহিত হয়।

এছাড়া ব্যাংককের পার্টানাকরামে অবস্থিত বধির প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক্স বিষয়াদি বিশেষ প্রশিক্ষণ পরিদর্শন করে অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং আগামী বছর (২০২০ সালে) ঢাকায় অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক বধির সংস্কৃতি সপ্তাহ সফল করার জন্য সকলের সহযোগীতা কামনা করেন।

বিদায় লগ্নে তৈমূর আলম খন্দকার এ মর্মে প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন যে, পৃথিবী ব্যাপী বিভিন্ন রাষ্ট্রে গড়ে উঠা সকল বধির সংগঠনগুলির মধ্যে সমন্বয় করে বধির সমাজকে জনশক্তির মূল শ্রুতিধারায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য বিশ্ব বধির সংস্থা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করছে যা অবশ্যই অব্যাহত থাকবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর