মর্গ্যানের কোন ছাত্রী উত্ত্যক্ত হলে আমাদের জন্য লজ্জার : আনোয়ার


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৫৯ পিএম, ২৫ ডিসেম্বর ২০১৯, বুধবার
মর্গ্যানের কোন ছাত্রী উত্ত্যক্ত হলে আমাদের জন্য লজ্জার : আনোয়ার

নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেছেন, দেশে কোটি কোটি শিক্ষার্থীদের প্রতি বছর বই বিতরণ করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ ইতিহাস আজ আমাদের বাংলাদেশের গর্ব। যে দেশে শিক্ষা নেই সে দেশ উন্নতি করতে পারেনা আর তাই শেখ হাসিনা কোটি কোটি টাকা এ দেশের সন্তানদের শিক্ষিত করতে কাজ ব্যয় করছেন।

বুধবার ২৫ ডিসেম্বর বিকাল ৪টায় দেওভোগ শেখ রাসেল পার্কে নারায়ণগঞ্জের শহরের দেওভোগস্থ উল্লাস সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে শিক্ষা উপকরণ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সেলিম হাসান দিনারের সঞ্চালনায় সংগঠনের সভাপতি ওয়াহিদ মুরাদের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংগঠনের উপদেষ্টা রফিকুল ইসলাম রফিক, জি এম আরাফাত, বাংলাদেশ হোসিয়ারী অ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক সাব্বির আলম সাগর।

আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি মাসুদুর রহমান মাসুদ, সহ-সভাপতি সাইদুর রহমান হাইয়্যূল, যুগ্ম সম্পাদক সাজ্জাদ নয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক জি এম কুদরত উল্লাহ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহাম্মেদ, দপ্তর সম্পাদক সালাউদ্দিন আহাম্মেদ মামুন, প্রচার সম্পাদক এ এ এম রিশাত, কোষাধ্যক্ষ নুরুল হুদা মহব্বত, সাংস্কৃতিক আওলাদ হোসেন চাও, ক্রীড়া সম্পাদক শরীফুর রহমান সজীব, সাবেক সভাপতি মোঃ রাকিব, কার্যকরি সদস্য এ এম সাইফুল্লা রাহাত, আরিফুল হক ফাহিম, আশরাফুর রহমান হৃদয়, মনির হোসেন ও উজ্জল আহাম্মেদ।

আনোয়ার হোসেন আরো বলেন, দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রাম করে আমি আজ এ অবস্থানে এসেছি। এ এলাকার মানুষের উপকার করতে ও এলাকার উন্নয়নে আমি কাজ করে যাচ্ছি। যে কাজ করতে পারেননি জাতির জনক আজকে তার সেই অসমাপ্ত কাজ আমি আমার দলের প্রধান জাতির জনকের কন্যার নির্দেশে পালন করছি। ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু করে আজ হয়েছি মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি, হয়েছি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। সারা নারায়ণগঞ্জের ৫টি উপজেলায় আমরা উন্নয়নের কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, উল্লাসের কর্মকর্তারা আসলেই চাইতেই পারেনা। আমি নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন অঞ্চলে অনুদান দিয়ে থাকি, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপহার দিয়ে থাকি, আমি দরিদ্র মানুষের সেবার কাজ করে থাকি। উল্লাস সামাজিক সংগঠন কি চায় তা আমাদের তারা বলতে পারেনি তবে উল্লাসের সকল কার্যক্রমে আমি আছি থাকবো। মাদক ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে সচেতনতা তৈরী করতে এ সংগঠনের প্রতি আমার আহবান রইলো।

আনোয়ার হোসেন বলেন, মাদক খুব মারাত্মক জিনিস। এটি আজ আমাদের সমাজকে খেয়ে ফেলছে আমাদের সন্তানদের নষ্ট করে দিচ্ছে। মাদকের বিরুদ্ধে ও ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে এ সংগঠন কাজ করবে বলে আমি প্রত্যাশা করি। আমি জেলা পরিষদ থেকে এবার একটি অনুদান দেব এই সংগঠন থেকে প্রকল্পের মধ্যে। মর্গ্যান স্কুল এন্ড কলেজের কোন শিক্ষার্থী যদি উত্ত্যক্ত হয় তাহলে সেটি আমাদের জন্য লজ্জা। তাই এ সংগঠনকে কাজ করতে হবে যেন এখানে এরকম কোন ঘটনা না ঘটে কারণ এটি একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান।

বিশেষ অতিথি মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত বলেছেন, মাদকের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়া, কাজ করা উল্লাসের একটি অন্যতম কার্যক্রম। এ সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করতে আমরা কাজ করছি এবং এ কাজে সকলের সহযোগিতা কামনা করছি। কিছুদিন আমি দেখেছি স্কুলের সময়ে অনেক টিনেজার এখানে মেয়েদের পথে ইভটিজিং করে থাকে। উল্লাসের সকলে মিলে এখন একটি করে টিম করে এখানে যেন বাইরের কোন বখাটে কিংবা কোন কেউ যেন আমাদের সন্তানদের উত্ত্যক্ত করতে না পারেন সেজন্য কাজ করবেন। যদি কেউ এ ধরনের কাজ করে থাকেন তাহলে যদি ধরা পড়েন তাহলে কিন্তু রক্ষা নেই। মাদকের সাথেও কেউ যদি সম্পৃক্ত থাকেন তাহলে তাদেরও রক্ষা নেই।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর