rabbhaban

রূপগঞ্জে প্রসূতির উপর হামলায় জমজ নবজাতক শিশুর মৃত্যু


রূপগঞ্জ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৬:৫৫ পিএম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার
রূপগঞ্জে প্রসূতির উপর হামলায় জমজ নবজাতক শিশুর মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে বাড়ির সীমানা নিয়ে ঝগড়ার জের ধরে এক প্রসূতির উপর হামলা চালিয়েছে সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য ও তার ছেলে। হামলাকারীরা গর্ভবতী মহিলার পেটে এলোপাথারী পিটিয়ে গর্ভের দুই সন্তান নষ্ট করে দেয়।

২৪ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকেরা পরিক্ষা নিরীক্ষার পর নিশ্চিত হন শামীমার পেটে দুটি জমজ সন্তান এবং আঘাতের ফলে দুটি সন্তানই মৃত্যুবরণ করেছে। মঙ্গলবার সকালে চিকিৎসকগণ শামীমার পেট থেকে ৮ মাসের দুই মৃত সন্তানকে নিস্কাষন করেন।

হামলাকারীরা প্রভাবশালী হওয়ায় এ ঘটনায় মামলা নিতেও অনিহা প্রকাশ করেছে থানা পুলিশ।  উপজেলার ভোলাব ইউনিয়নের ভোলাব গ্রামে এই ঘটনা ঘটে।

উপজেলার ভোলাব ইউনিয়নের ভোলাব গ্রামের রিকসা চালক সরফতউল্যাহ জানান, দীর্ঘ দিন ধরে তার সাথে ভোলাব ইউনিয়ন পরিষদের ১-২-৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ও ভোলাব গ্রামের মোশারফ হোসেনের স্ত্রী সাজেদা বেগমের সাথে বাড়ীর সীমানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এক মাস পূর্বে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিরা বসে সেটার সমাধান করে দিয়েছে। এদিকে চলতি মাসের ৫ সেপ্টেম্বর তার নিজ বাড়ীতে সে একটি ঘর তৈরী করতে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য সাজেদা বেগম বাধা দেয়। এনিয়ে উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে সাজেদা ও তার ছেলে মোরশেদ লাঠিসোটা নিয়ে সরফতউল্যাহকে পেটানো শুরু করে। এ সময় তার বাড়িতে বেড়াতে আসা তার ৮ মাসের অন্তঃস্বত্তা ছোট মেয়ে শামীমা তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা তার উপরও হামলা করে। এ সময় মহিলা ইউপি সদস্য তার চুলের মুঠি ধরে টেনে ছিচড়ে বাড়ির একপ্রান্ত থেকে অন্তপ্রান্তে নিয়ে যায়। তার ছেলে মোরশেদ লাঠি দিয়ে শামীমার পেটে এলোপাঠারী পেটাতে থাকে। এ সময় সে ব্যাথায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে আর্থিক অনটনের কারনে সুচিকিৎসা না করে স্থানীয় একটি ক্লিনিক থেকে চিকিৎসা গ্রহন করে। চলতি মাসের ১৯ তারিখ তার অবস্থার অবনতি হলে পরিবারের লোকজন তাকে গাজীপুরের কালীগঞ্জের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে যায়। সেখানকার চিকিৎসকেরা উন্নত চিাকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মেম্বারের সাথে যোগাযোগ করা হলেও তিনি তার  মুঠোফোনে কল গ্রহন করেননি।

রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন, এত বড় ঘটনার অভিযোগ পুলিশ নিবেনা এটা অস্বাভাবিক ঘটনা। অভিযুক্ত ব্যাক্তি যেই হোন তাকে আইনে আওতায় আনা হবে। ভিকটিম কিংবা তার পরিবারের যে কোন সদস্য আমার সাথে যোগাযোগ করলে আমি প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর