rabbhaban

সোনারগাঁয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘাট দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান


সোনারগাঁ করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৫:২৮ পিএম, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
সোনারগাঁয়ে হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘাট দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে হিন্দু সম্প্রদায়ের নদীতে গোসল করার ঘাটের জায়গা দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। গত এক সপ্তাহ ধরে সাহাপুর এলাকায় রাতের আধাঁরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের এ ঘর নির্মাণ করছে বলে অভিযোগ উঠে। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন। নদীর ঘাট ও রাস্তাটি উদ্ধারের জন্য স্থানীয় প্রশাসনের নিটক দাবী করেছেন এলাকাবাসী।

জানা যায়, উপজেলার সাহাপুর এলাকায় ১৩শতাংশ অর্পিত সম্পত্তি রয়েছে। তার মধ্যে ৪ শতাংশ চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত হিসেবে আল মোস্তফা গ্রুপ লিজ নিয়ে ভোগ দখল করে আছে। বাকি ৯ শতাংশ জমি ওই এলাকার হিন্দু সম্প্রদায়ের নদীতে গোসল করার জন্য ঘাট ও রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করে আসছে। এ সরকারী সম্পত্তি ওই এলাকার প্রভাবশালী হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতা রাতের আধারে নির্মল সাহা ও তার ভাই বাবন সাহা দখল করে দোকান ঘর নির্মাণ করছেন। এতে করে ওই এলাকার মানুষের নদীতে যাতায়তের পথ ও ঘাটে গোসল করার পথ বন্ধ হয়ে যায়। গ্রামবাসীর পক্ষে আদালতে একটি মামলা দায়ের করা হলে আদালত ওই জায়গায় নিষেধাজ্ঞা দেয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে তাদের গোসল করার ঘাটে খুবই কষ্ট করে যেতে হচ্ছে। সরকারী খাল ও লিজকৃত জমি দখল করে ৩-৪টি ঘর নির্মাণ করে ঘাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। সেখানে এক প্রভাবশালী নেতার তেলের ব্যবসা গড়ে তুলেছেন। আমাদের ঘাট ও রাস্তা উদ্ধারের জন্য একাধিকবার প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দিয়েও কোন ফল পাওয়া যায়নি। নদীর ঘাট ও রাস্তা উদ্ধার করে অবাধ চলাচলের সুযোগ করে দেওয়ার আমাদের দাবী।

সাহাপুর গ্রামের বাসিন্দা নারায়ণ দাস জানান, পাশ^বর্তী কোম্পানির গড়ে উঠার আগে এ জায়গাটি খোলা অবস্থায় ছিল। কোম্পানির বালু ভরাটের সুযোগে নির্মল সাহা ও তার ভাই বাবন সাহা বালু ভরাট করে আমাদের নদীতে যাওয়ার পথ ও ঘাট বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা খালের মধ্যে একটি সাকোঁ ব্যবহার করে অনেক কষ্টে নদীতে যেতে হচ্ছে। আমাদের নদীর ঘাটের জায়গা উদ্ধারের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাই।

নমিতা রানী সাহা জানান, প্রতিদিন আমাদের নদীতে ¯œান করতে হয়। নদীর পানি আমরা রান্না বান্নার কাজে ব্যবহার করে থাকি। নদী থেকে পানি আনতে আমাদের অনেক কষ্ট করতে হয়। সহজে নদীতে যাওয়ার পথ উন্মুক্ত করার জন্য কর্তৃপক্ষের দাবি করছি।

বৈদ্যোরবাজার এলাকায় মাছ ব্যবসায়ী ইসমাইল হোসেন জানান, জমি দখলের বিষয়ে আদালতের একটি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নির্মাল সাহা ও তার ভাই বাবান রাতের অন্ধকারে জায়াগা নদীর ঘাটের জায়গা দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করেছে। প্রশাসন মনে হয় তাদের পক্ষে কাজ করছে। নয়তো রাতের আধাঁরে ঘাটের জায়গা দখল করে প্রশাসন কিছুই বলেনি।

অভিযুক্ত নির্মল সাহার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমাদের নামে লিজকৃত সাড়ে ৩ শতাংশ জমি দখলে রেখেছি। আমাদের ক্রয়কৃত সম্পত্তিতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছি।

সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কেউ জমি দখল করতে পারবে না। অর্পিত সম্পত্তি দখল হয়ে থাকলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। কোন ভাবেই সরকারী সম্পত্তি দখল করতে দেওয়া হবে না। এখনই সংশ্লিষ্ট তহসিলদার পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
newsnarayanganj-video
আজকের সবখবর