নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে তামাশার রাজনীতি


স্পেশাল করেসপনডেন্ট | প্রকাশিত: ০৭:৫৯ পিএম, ০২ অক্টোবর ২০১৭, সোমবার
নারায়ণগঞ্জ বিএনপিতে তামাশার রাজনীতি

নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির শীর্ষ নেতাদের মধ্যে প্রকাশ্যে বিরোধ বিভক্তি রয়েছে। মূলত কর্মীদের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি করেছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারাই। কিন্তু শীর্ষ নেতারা যখন এক হয়ে যান তখন কর্মীদের কথা মনেও রাখেন না।

ফলে নেতাকর্মীরা বলেছেন, নারায়ণগঞ্জে কর্মীদের মধ্যে বিভক্তি সৃষ্টি করে শীর্ষ নেতারা তামাশার রাজনীতি করছেন। তেমনি দেখা গেল ২৭ সেপ্টেম্বর বুধবার নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায়। জেলার শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে ফটোসেশনও করেছেন তারা। কিন্তু ফটোসেশন শেষ করেই এক নেতা আরেক নেতার বিরুদ্ধে নিজ নিজ বলয়ের কর্মীদের কাছে গীবত করে থাকেন।

নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, বুধবার নারায়ণগঞ্জ আদালতপাড়ায় এসেছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির, সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালাম, সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দীন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌস, আব্দুল হাই রাজু, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সেক্রেটারি এটিএম কামাল, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবু আল ইউসুফ খান টিপু সহ সকল পক্ষের নেতাকর্মীরা।

নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, বুধবার আদালতপাড়ায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও তার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির উভয় পক্ষের নেতাকর্মীদের নিয়ে এক সঙ্গে ফটোসেশন করেছেন। এর পর কাজী মনিরের সঙ্গে আবার দেখা গেছে সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আবুল কালামকে। এসব নেতাদের সঙ্গে আবার দেখা গেছে সাবেক এমপি গিয়াসউদ্দীনকে। আদালতপাড়ায় এসব নেতাদের মধ্যে কুশল বিনিময় করতেও দেখা গেছে। এসব নেতারা আদালতে বিভিন্ন মামলায় হাজিরা দিতে এসেছিলেন। তবে কর্মীরা বলেছেন, এসব নেতারা কর্মীদে মধ্যে বিবেদ বিভক্তি সৃষ্টি করেন তাদের নিজ স্বার্থে। ফটোসেশন করেই তারা আবার আগের মত করে কর্মীদের কাছে একে অপরের বিরুদ্ধে কথা বলা শুরু করে দেন। যে কারনে কর্মীরা বলছেন নেতারা এখানে তামাশার রাজনীতি করেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন:
-->
newsnarayanganj24_address
রাজনীতি এর সর্বশেষ খবর
আজকের সবখবর